ঢাকা, ২২ জুন ২০২৪, শনিবার, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ জিলহজ্জ ১৪৪৫ হিঃ

বিশ্বজমিন

প্রধান বিচারপতির ক্ষমতা কমাতে সংসদে বিল পেশ করলো পাক সরকার

মানবজমিন ডিজিটাল

(১ বছর আগে) ২৯ মার্চ ২০২৩, বুধবার, ১:১৭ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১২:১৭ পূর্বাহ্ন

mzamin

পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতির ক্ষমতা খর্ব করা হলো। জিও নিউজের রিপোর্ট অনুযায়ী পাকিস্তানের আইনমন্ত্রী আজম নাজির তারার সুপ্রিম কোর্টে এই সংক্রান্ত বিল উত্থাপন করেছেন। চৌধুরী মাহমুদ বশির ভির্কের সভাপতিত্বে হাউস প্রস্তাবিত বিলটি অনুমোদনের জন্য জাতীয় পরিষদের (এনএ) আইন ও বিচার সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির কাছে পাঠিয়েছে। কমিটি তা নিম্নকক্ষে ফেরত পাঠাবে। এনএ-তে বিলটি পাস হওয়ার পর সেটি অনুমোদনের জন্য সিনেটে পাঠানো হবে। সুপ্রিম কোর্টের দুই বিচারপতি- সৈয়দ মনসুর আলি শাহ এবং জামাল খান মান্দোখাইল পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতির ক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন তোলার একদিন পর পাকিস্তান সরকারের এই সিদ্ধান্ত সামনে এলো। দুই বিচারপতি বলেছেন, ''সুপ্রিম কোর্ট একজন প্রধান বিচারপতির একক সিদ্ধান্তের উপর নির্ভরশীল হতে পারে না।"

বিচারপতি শাহ এবং বিচারপতি মান্দোখাইল পাঞ্জাব এবং খাইবারে শীর্ষ আদালতের ১ মার্চের রায়ের প্রেক্ষিতে ২৭ পৃষ্ঠার একটি নোটে  লিখেছেন-'' পাক সংবিধানের ১৯১ অনুচ্ছেদের অধীনে আদালতের সমস্ত বিচারকদের দ্বারা অনুমোদিত একটি নিয়ম-ভিত্তিক ব্যবস্থার মাধ্যমে আদালতকে চলতে হবে। ''ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির অধিবেশন চলাকালীন হাউসে তার বক্তৃতায়, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরীফ এ বিষয়ে সংসদীয় পদক্ষেপ চেয়েছিলেন।জিও নিউজের প্রতিবেদন অনুসারে তিনি তাঁর নোটটিকে "আশারআলো" বলে অভিহিত করেছেন। দেশের প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরীফও মনে করেন বিচার বিভাগ থেকে যে পরিবর্তনের আওয়াজ উঠেছে তা অবশ্যই দেশকে আশার আলো দেখাবে। পাকিস্তানের আইনমন্ত্রী আজম নাজির তারার একই সুরে বলেছেন যে সুওমোটো নোটিশের নামে গৃহীত পদক্ষেপের কারণে সুপ্রিম কোর্টের সুনাম ক্ষুণ্ন হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
তারার বলেন, দুই বিচারপতির ভিন্নমতের নোট নিয়ে আরও উদ্বেগের কারণ হয়েছে। স্বতঃপ্রণোদিত নোটিশের অধীনে নেওয়া সিদ্ধান্তগুলির আগে আপিল করা যেত না। 

আইনমন্ত্রী মনে করেন, ‘’আদালতে আপিল করার সুযোগ দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ এবং সংসদ সবসময় দাবি করেছে যে মানুষকে আপিল করার অধিকার দেওয়া উচিত''। বিলে প্রধান বিচারপতির কাছ থেকে স্বতঃপ্রণোদিত হওয়ার ক্ষমতা তিন প্রবীণ বিচারকের সমন্বয়ে গঠিত তিন সদস্যের কমিটিতে স্থানান্তর করা হয়েছে। বিলে সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করার অধিকার সম্পর্কিত একটি ধারা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে যা ৩০ দিনের মধ্যে দায়ের করা যেতে পারে এবং দুই সপ্তাহের মধ্যে শুনানির জন্য নির্ধারিত হবে। বিল অনুসারে, সুপ্রিম কোর্টের সামনে প্রতিটি ধারা, আপিল বা বিষয় পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতি এবং দুই সিনিয়র বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত একটি বেঞ্চ দ্বারা শুনানি ও নিষ্পত্তি করা হবে।বিলে আরও বলা হয়েছে যে কমিটির সিদ্ধান্ত সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে নেওয়া হবে। পাঞ্জাব এবং খাইবার পাখতুনখোয়ায় সুপ্রিম কোর্টের ১ মার্চের রায়ের জন্য একটি ২৭-পৃষ্ঠার নোটে, বিচারপতি সৈয়দ মনসুর আলি শাহ এবং বিচারপতি জামাল খান মান্দোখাইল পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতির [উমর আতা বন্দিয়াল] অফিস দ্বারা উপভোগ করা ক্ষমতা পুনর্বিবেচনা করা গুরুত্বপূর্ণ বলে উল্লেখ করেছেন।" বিচারপতি শাহ এবং বিচারপতি মান্দোখাইল জোর দিয়েছিলেন যে -একজন ব্যক্তির হাতে ক্ষমতা কেন্দ্রীভূত হলে ক্ষমতার অপব্যবহারের প্রবণতা দেখা দিতে পারে। বিচারপতিরা বলেছেন যে  একটি কলেজিয়াল সিস্টেম "ক্ষমতা প্রয়োগে অপব্যবহার রোধ করতে এবং স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার প্রচার করতে সহায়তা করে।''তারা জোর দিয়েছিলেন যে কলেজিয়াল সিস্টেম সুশাসন নিশ্চিত করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে কারণ এটি ক্ষমতার ভারসাম্যের উপর নির্ভর করে।

সূত্র : এনডিটিভি

বিশ্বজমিন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

বিশ্বজমিন সর্বাধিক পঠিত

প্রেমের টানে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফেনীতে/ পঞ্চাশোর্ধ নারী ধর্মান্তরিত হয়ে বিয়ে করলেন ২৫ বছরের যুবককে

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status