ঢাকা, ২২ জুন ২০২৪, শনিবার, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ জিলহজ্জ ১৪৪৫ হিঃ

রকমারি

১১ হাজার পাউন্ড খরচ করে ৯৬০ বারে ড্রাইভিং পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেন পরীক্ষার্থী

মানবজমিন ডিজিটাল

(১ বছর আগে) ২৭ মার্চ ২০২৩, সোমবার, ৫:১৬ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১২:১৭ পূর্বাহ্ন

mzamin

ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে তিনি খরচ করেছিলেন ১১ হাজার পাউন্ড। কিন্তু বার বার পরীক্ষায় বসেও কিছুতেই উত্তীর্ণ হতে পারছিলেন না। অবশেষে  ৯৬০তম প্রচেষ্টায় তিনি সফল হয়েছেন। ১৫ বছর আগে ঘটে যাওয়া সেই ঘটনা আরো একবার জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে।  চা সা-সনের গল্পটি রেডডিট পুনরায় শেয়ার করেছে।  চা সা ২০০৫ সালের  এপ্রিল মাসে প্রথম  ড্রাইভিং - এর  লিখিত পরীক্ষায় বসেন। কিন্তু  দুর্ভাগ্যবশত তিনি সফল হননি। দক্ষিণ কোরিয়ান এই নারী দমে যাওয়ার পাত্রী নন।  এরপর টানা  তিন বছর ধরে সপ্তাহে পাঁচদিন প্রতিদিন পরীক্ষায় বসতেন যতদিন না তিনি  উত্তীর্ণ হতে পারেন।

অবশেষে ৮৬০ বারে এসে   লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন চা সা। তখনও প্র্যাক্টিকাল  পরীক্ষা বাকি ছিলো।

বিজ্ঞাপন
চা সা- কে  সেই পরীক্ষাটি ১০ ​​বার দিতে হয়েছিল।  লিখিত এবং  প্র্যাক্টিকাল  মিলিয়ে   মোট  ৯৬০ বার পরীক্ষায় বসেন দক্ষিণ কোরিয়ান এই নারী । রিপোর্ট অনুযায়ী এর পেছনে  খরচ হয়েছিলো প্রায়  ১১ হাজার পাউন্ড।  তা সত্ত্বেও তিনি হাল ছেড়ে দেননি। কারণ তার সবজি বিক্রির ব্যবসা এগিয়ে নিয়ে যেতে প্রয়োজন ছিলো ড্রাইভিং  শেখা । চা সা-সুনের ড্রাইভিং প্রশিক্ষকের মতে, অবশেষে চা-সা  পাস করার পর তারাও হাফ ছেড়ে বাঁচেন।  জিওনবুক ড্রাইভিং স্কুলের প্রশিক্ষক চা -সা এর হাতে লাইসেন্স দেবার পর  ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।  চা সা-সনের গল্পটি   তাকে একজন জাতীয় সেলিব্রিটি করে তোলে ।

এমনকি দক্ষিণ কোরিয়ার গাড়ি নির্মাতা 'হুন্ডাই' তাকে ১১, ৬৪০ পাউন্ডের ঝাঁ চকচকে গাড়ি  উপহার দিয়েছিলো। তার গল্পটি সম্প্রতি reddit-এ  প্রচার করা হয়েছে।  একজন  লিখেছেন: ' চা -সা  আদর্শ পরিস্থিতিতে  এই ড্রাইভিং পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন , নিশ্চয়ই তিনি সব ধরনের পরিস্থিতিতে একটি ডেথ মেশিন চালাতে  সক্ষম হবেন, তাই না?' অন্য একজন লিখেছেন: '৯৬০  বার? এটি একটি সিস্টেমিক ব্যর্থতার  মতো শোনাচ্ছে। এটি প্রত্যেকের সময় নষ্ট করেছে ''। কিন্তু  সহানুভূতিশীল কিছু মানুষ মনে করেছেন অসহায় এই নারীকে পরীক্ষায় বসার জন্য সাহায্য করার মতো কেউ ছিল না।  

সূত্র : dailymail.co.uk

রকমারি থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

রকমারি সর্বাধিক পঠিত

মা-বাবার বিরুদ্ধে মামলা/ 'অনুমতি না নিয়েই কেন জন্ম দিয়েছ?'

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status