ঢাকা, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, শুক্রবার, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১২ শাবান ১৪৪৫ হিঃ

বাংলারজমিন

জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরেই তেঁতুলিয়ার মাছ ব্যবসায়ী কামরুলকে হত্যা করা হয়

পঞ্চগড় প্রতিনিধি
৩১ জানুয়ারি ২০২৩, মঙ্গলবার

 তেঁতুলিয়া উপজেলার তিরনইহাট ইউনিয়নের যোগীগছ এলাকার আব্দুল জব্বারের ছেলে মাছ ব্যবসায়ী কামরুল ইসলাম ওরফে কাজিমের দ্রুততম সময়ে হত্যা রহস্য উদ্ঘাটন করেছে পুলিশ। জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরেই পূর্ব পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয় কামরুলকে। দ্রুততম সময়ের মধ্যে এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্ঘাটন করেছে পুলিশ। গতকাল বিকালে পঞ্চগড়ের পুলিশ সুপার এস এম সিরাজুল হুদা প্রেস ব্রিফিং-এ এসব তথ্য জানান। পুলিশ সুপার জানান, তেঁতুলিয়া উপজেলার দেবনগর ইউনিয়নের করতোয়া নদীর পাশে একটি চা বাগানের নালা থেকে ২৫শে জানুয়ারি কামরুল ইসলাম (৩৫) নামে ওই মাছ ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করে তেঁতুলিয়া মডেল থানা পুলিশ। নিহত কামরুল ইসলাম তেঁতুলিয়া উপজেলার যোগীগছ গ্রামের আব্দুল জব্বারের ছেলে। পরদিনই ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগে পুলিশ গরিয়াগছ গ্রামের সরদার আলীর ছেলে দিদার আলীকে আটক করে। তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে দিদার জানায়, সে এ হত্যাকাণ্ডে সরাসরি জড়িত নয়। তবে ঘটনাস্থলে ছিল। চাচা সাইফুল ইসলামের সঙ্গে জমি জমা সংক্রান্ত বিরোধ ছিল কামরুলের।

বিজ্ঞাপন
এক ধরনের প্রতিশোধ নিতে এই হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা করেন আপন চাচা। এই হত্যাকাণ্ডে মূল পরিকল্পনাকারী ছিল কামরুলের চাচা যোগিগছ গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে সাইফুল ইসলাম। পরিকল্পনা অনুযায়ী সাইফুল ইসলাম আসামি দিদার আলী ও নজিবুল হককে ১০ হাজার টাকা দেয়। ঘটনাস্থলের পাশেই আসামি নজিবুল হক তাকে গত ২৩শে জানুয়ারি রাতে শ্বাষরোধ করে হত্যা করে লাশ চা বাগানের নালায় ফেলে দেয়। পুলিশ তথ্য প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার করে গতকাল গতকাল ভোরে ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গী থানার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত এলাকা থেকে সাইফুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে। নজিবুল হক এখনো পলাতক আছে। তাকে গ্রেপ্তার করতে জোর প্রচেষ্টা চলছে। উল্লেখ্য, গত ২৩শে জানুয়ারি কামরুল ইসলাম বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি করেও তাকে পাননি। পরে ছোট ভাই কাবুল ২৫শে জানুয়ারি তেঁতুলিয়া মডেল থানায় একটি জিডি করেন। জিডি করার ৩ ঘণ্টার মধ্যে লাশ উদ্ধার করে এবং পরদিনই আসামি দিদার আলীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার মূল কারণ বেরিয়ে আসে। গ্রেপ্তারকৃত সাইফুলকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে প্রেস ব্রিফিং-এ জানানো হয়। প্রেস ব্রিফিংয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) এসএম শফিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) রাকিবুল ইসলাম ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস্) কনক কুমার দাস উপস্থিত ছিলেন।

 

 

বাংলারজমিন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

বাংলারজমিন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status