ঢাকা, ২৮ নভেম্বর ২০২২, সোমবার, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিঃ

দেশ বিদেশ

চুরির টাকায় নির্বাচন

স্টাফ রিপোর্টার
২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, বৃহস্পতিবার

মাদারীপুর শিরখাঁড়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের বর্তমান সদস্য আজিজুল হক ফকির (৪৭)। নিজ এলাকায় বিভিন্ন মারামারি, চুরি ও পারিবারিক-সামাজিক নানা বিষয়ে সালিশ করেন। নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হওয়াতে এলাকার সবাই তার সিদ্ধান্ত মেনে নেন। চলাফেরাও করেন সমাজের প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তিদের সঙ্গে। যাতায়াত করেন গাড়িতে চড়ে। এলাকার মানুষও থাকে সমীহ করে চলে। কিন্তু জনপ্রতিনিধির আড়ালে আজিজুলের আরেকটি পরিচয় আছে। আর সেটি হলো তিনি পেশাদার দুর্ধর্ষ একজন চোর। এক দশকের বেশি সময় ধরে তিনি একটি চক্র গড়ে চুরি করছেন। নিজের গাড়িতে করে মাদারীপুর থেকে এসে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় চুরি করেন।

বিজ্ঞাপন
এখন পর্যন্ত ১ হাজার চুরি করেছেন বলে তথ্য মিলেছে। গত মঙ্গলবার রাতে ঢাকায় চুরি করে ফেরার পথে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাফরুল থানা পুলিশের টহল টিম আজিজুলকে গ্রেপ্তার করেছে। এ সময় তার কাছ থেকে ১টি লোহার শাবল, ১টি ভোল্ড কাটার, গাড়ির দুটি ভুয়া নম্বর প্লেট, ১টি তালা, ১টি বড় স্ক্রু ড্রাইভার, ১২টি শাড়ি, ১টি প্লাস, ১টি সাদা রংয়ের প্রাইভেটকার, ১টি মোবাইল ফোন, ১টি প্রেসার মাপার যন্ত্র, নগদ ২ হাজার ৪০৯ টাকা, ১টি হ্যান্ড ব্যাগ এবং ৪৩৯ টাকার কয়েন উদ্ধার করা হয়। গতকাল ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান ডিএমপি’র অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপস) এ কে এম হাফিজ আক্তার। 

তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান, চুরি বিদ্যায় পারদর্শী আজিজুল। তার কাছে যে ধরনের সরঞ্জাম আছে সেগুলো দিয়ে যেকোনো বাসা, বাড়ি, দোকানের তালা বা গ্রিল কেটে চুরি করতে পারে। সপ্তাহে কয়েকদিন মাদারীপুর থেকে নিজের গাড়ি নিয়ে এসে চুরি করেন। চুরি করার উদ্দেশ্যে যখন গাড়ি নিয়ে বের হন তখন গাড়ির অরিজিনাল নম্বর প্লেট খুলে ভুয়া নম্বর প্লেট লাগান। চুরি করা শেষে আবার আসল নম্বর প্লেট লাগিয়ে যাতায়াত করেন। এভাবে বহু বছর ধরে চুরি করে লাখ লাখ টাকার মালিক হয়েছেন। চুরির টাকা দিয়ে এলাকায় দুইবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে  সদস্য পদে নির্বাচন করেছেন। প্রথমবার নির্বাচনে হেরেছেন। তবে পরের বার নির্বাচনে জিতে এখন পর্যন্ত ইউপি সদস্য হিসেবেই আছেন। নির্বাচন করতে যে খরচ হয়েছে সেগুলো চুরির টাকা। সূত্রগুলো বলছে, আজিজুলের চক্রে চার সদস্য। প্রত্যেকের আলাদা আলাদা কাজ আছে। চুরি করা মালামাল জমা রাখা হয় একজনের কাছে। এসব মালামাল বিক্রিও করার স্থানও ঠিক করা আছে। তবে কোথায় কোন বাসা বা দোকানে চুরি করা যাবে তার রেকি আজিজুল নিজেই গাড়িতে ঘুরে ঘুরে করেন। যেদিন ঢাকায় চুরি করতে আসেন সেদিন একসঙ্গে কয়েকটি দোকানে চুরি করে যান। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার রাতে ওষুধ ও কাপড়ের দোকানে চুরি করেছেন। 

মিরপুর বেনারশি পল্লী থেকে চুরি করার সময় চোররা তাদের স্ত্রীর জন্য দামি দামি লেহেঙ্গা ও শাড়ি নিয়ে যান। কাফরুল থানা সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আজিজুল যে গাড়িটি ব্যবহার করছিলেন সেটি ডিএমপি’র প্রতিটি থানার কর্মকর্তারা খুঁজছিলেন। কারণ এই গাড়িটি দিয়ে আজিজুল চুরি করতেন। ডিএমপি’র এমন কোনো থানা নাই যেখানে এই চক্রটি চুরি করেনি। ধরা পড়ার রাতে কাফরুল থানা পুলিশ কয়েকটি স্থানে তাকে বেরিকেড দিয়ে ধরতে চেয়েছিল। কিন্তু আজিজুল বেরিকেড ভেঙে ফুটপাথের উপর দিয়ে গাড়ি চালিয়ে পালাতে চেয়েছিলেন।  কাফরুল থানা পুলিশ বলেছে, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আজিজুল ৫০০ চুরি করেছে বলে স্বীকার করেছে। তবে ধারণা সে হাজারখানেক বা তার চেয়ে বেশি চুরি করেছে। কারণ সে প্রতিদিন ৪/৫ টা চুরি করে।  এদিকে, গতকালের সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশন) এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেছেন, রাজনৈতিক মিছিল ও সমাবেশে লাঠি আনার প্রয়োজন নেই।

 সমাবেশের নিরাপত্তা পুলিশ দেখবে। বলেন, মিছিলে পতাকা বেঁধে লাঠি নেয়া যাবে না। যেকোনো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ফোর্স থাকে। কে কোন উদ্দেশ্যে সমাবেশ করে সেটি বলা যায় না। যদিও সমাবেশগুলো রাজনৈতিক। তবে অন্য কোনো দুষ্কৃতিকারী সমাবেশে প্রবেশ করতে পারে। কারণ একটি সমাবেশের আশেপাশে অন্য নাগরিকরা থাকে। তাদের স্বাভাবিক কর্মকাণ্ড যেন বাধাগ্রস্ত না হয়। বিএনপি সমাবেশের অনুমতি চেয়েও পায় না- এমন অভিযোগের বিষয়ে অতিরিক্ত কমিশনার বলেন, এ ধরনের অভিযোগ আমরা পাইনি। ঢাকায় আমরা রাজনৈতিক ও অরাজনৈতিক প্রোগ্রামের অনুমতি দিচ্ছি। আমরা যদি মনে করি, ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে তাহলে লোকাল ডিসিরা মতামত দেয়। দেখা গেল, কোনো এক জায়গায় একাধিক সংস্থা বা দল সমাবেশ ও সভার অনুমতির আবেদন করলো। তখন আমরা নাগরিক সুরক্ষার জন্য এর অনুমতি বা অনুমোদন দেই না।

দেশ বিদেশ থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

দেশ বিদেশ থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status