ঢাকা, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১৬ শাবান ১৪৪৫ হিঃ

রকমারি

লাল গ্রহে ৩.৬ বিলিয়ন বছর আগে পৃথিবীর মতো অবস্থা ছিল?

মানবজমিন ডিজিটাল

(৬ মাস আগে) ১৯ আগস্ট ২০২৩, শনিবার, ৫:৫৮ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ৫:০৮ অপরাহ্ন

mzamin

নাসার কিউরিওসিটি রোভার ১১ বছর ধরে মঙ্গল গ্রহে প্রাণের চিহ্ন খুঁজে চলেছে ।গাড়ির আকারের রোবটটি নতুন  কিছু খুঁজে পেয়েছে বলে  অনুমান বিজ্ঞানীদের । ২০২১ সালে, রোভার মঙ্গলের  মাটির মধ্যে বহুভুজ-আকৃতির ফাটলগুলির একটি অস্বাভাবিক বিন্যাস শনাক্ত করেছে যা দেখে বিজ্ঞানীদের অনুমান - লাল গ্রহে একসময় পৃথিবীর মতো অবস্থা ছিল।  ৩.৬বিলিয়ন বছর আগে হয়তো অণুজীবরা বেঁচে ছিল মঙ্গলের বুকে। একটি প্রাচীন হ্রদে রহস্যময় কাদার ফাটল ইঙ্গিত দেয় যে আজ আমাদের গ্রহে যেমন ঋতুর বিন্যাস লক্ষ্য করা যায়, তেমনি মঙ্গলের বুকেও হয়তো  আর্দ্র ও শুষ্ক ঋতুচক্র বিদ্যমান ছিলো।

এই ধরনের চক্রগুলি কার্বন-ভিত্তিক 'পলিমার' গঠনের  জন্য অত্যাবশ্যক - যা জৈব যৌগ এবং ডিএনএর বিল্ডিং ব্লক গঠনের জন্য পরিচিত।ফ্রান্সের Institut de Recherche en Astrophysique et Planetologie-এর প্রধান লেখক উইলিয়াম রাপিন বলেছেন, 'এটিই প্রথম বাস্তব প্রমাণ যাতে আমরা দেখেছি যে মঙ্গলের প্রাচীন জলবায়ুতে  পৃথিবীর মতো  আর্দ্র ও শুষ্ক চক্র ছিল। কিন্তু তার চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ হল এই চক্র  আণবিক বিবর্তনের  দিকে ইঙ্গিত করে। '' মঙ্গোল গ্রহে প্রাণের অনুসন্ধানের উদ্দেশে ২০১১ সালে ফ্লোরিডার কেপ ক্যানাভেরাল থেকে কিউরিওসিটি মিশন চালু করা হয়েছিল ।এর সাফল্যের কারণে, মিশনটির সময়কাল  অনির্দিষ্টকালের জন্য বাড়ানো হয়. মাত্র দুই বছর আগে রোভারটি ১৫,৮৪০ ফুট উচ্চ পাহাড়ে  আরোহণের পরে কাদার ফাটল সনাক্ত করে ।এগুলি একটি প্রাচীন হ্রদের জায়গায় পাওয়া গেছে, যেখানে কাদামাটি-সমৃদ্ধ পলি স্তর এবং  লবণাক্ত সালফাইট স্তরের উপস্থিতি মিলেছে ।দুটি বিপরীত স্তর পরামর্শ দেয় যে ভিজা এবং শুষ্ক চক্র মঙ্গলের বুকে বিদ্যমান ছিলো , কারণ কাদামাটি সাধারণত আর্দ্র অবস্থায় উদ্ভূত হয় এবং সালফাইটগুলি সাধারণত যে কোনও পানি  শুকিয়ে যাওয়ার সাথে সংযুক্ত। এর থেকে পলিমার নামে পরিচিত কার্বন-ভিত্তিক অণুগুলির দীর্ঘ চেইনগুলিও তৈরি হতে পারে, যা মূলত জীবনের রাসায়নিক বিল্ডিং ব্লক তৈরির সহায়ক ।

২০১৭  সালে, 'ওল্ড সোকার' নামে পরিচিত কাছাকাছি একটি শিলায়ও অনুরূপ ফাটল আবিষ্কৃত হয়েছিল। কেন এই চক্রগুলি বন্ধ হয়ে গেলো তা স্পষ্ট নয়, যদিও কিছু বিজ্ঞানী বিশ্বাস করেন যে গ্রহে তাপমাত্রা আজকের তুলনায় অনেক বেশি উষ্ণ ছিল, যা তরল পানির প্রবাহকে সহজতর করে।রাপিন মনে করেন: 'আমাদের কাছে মঙ্গল গ্রহের মতো একটি গ্রহ পাওয়া খুবই সৌভাগ্যের বিষয় যেটিতে এখনও প্রাকৃতিক প্রক্রিয়ার বৈশিষ্ট বিদ্যমান ,  যা জীবনের  দিকে ইঙ্গিত করে ।'বিজ্ঞানীরা বিশ্বাস করেন যে লাল গ্রহের প্রাগৈতিহাসিক জীববিজ্ঞান এবং ভূতত্ত্ব আরও পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পরীক্ষা করা যেতে পারে। তাঁদের দাবি, পৃথিবীর বিমতো মঙ্গলগ্রহ কোনো টেকটোনিক প্লেটের আবাসস্থল নয়, যার অর্থ প্রাচীন পললগুলি ভূপৃষ্ঠের খুব নীচে চাপা পড়েনি  এবং পরিবর্তে বেশ ভালভাবে সংরক্ষিত রয়েছে ।

মঙ্গল গ্রহে জীবনের জন্য বিজ্ঞানীদের কাছে কী প্রমাণ আছে?

অন্যান্য গ্রহে জীবনের সন্ধান কয়েক দশক ধরে মানবজাতিকে বিমোহিত করেছে। কিন্তু বাস্তবটা ভিন্ন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞানীরা মনে করেন , যদি লাল গ্রহে প্রাণ থাকে তবে এটি সম্ভবত জীবাশ্ম ব্যাকটেরিয়া হিসাবে রয়েছে  - এবং এটি সন্ধান করার জন্য একটি নতুন উপায় প্রয়োজন । এই গ্রহে  জীবনের জন্য একধিক  লক্ষণ উপস্থিত।

পানি 
মঙ্গল গ্রহে জীবন খোঁজার সময়, বিশেষজ্ঞরা একমত যে পানিই মূল বিষয় ।যদিও গ্রহটি এখন পাথুরে এবং অনুর্বর,  পানি এর মেরু বরফের ক্যাপগুলিতে আটকে আছে, যার প্রমাণ অতীতে এই গ্রহে পানি থাকতে পারে। ২০০০ সালে, বিজ্ঞানীরা প্রথম মঙ্গলে পানির অস্তিত্বের প্রমাণ খুঁজে পান।নাসা মার্স গ্লোবাল সার্ভেয়ার এমন কিছু ঢাল দেখতে পেয়েছেন  যা প্রবাহিত পানির  দ্বারা তৈরি হতে পারে।যদিও বিষয়টি নিয়ে দ্বিমত রয়েছে।

উল্কা
স্পেস ডট কম লিখেছে, মঙ্গল গ্রহ থেকে পৃথিবীতে ৩৪ টি উল্কাপাত হয়েছে, যার মধ্যে তিনটি প্রমান করে লাল গ্রহে অতীতে  জীবন থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। ১৯৯৬  সালে, বিশেষজ্ঞরা এন্টার্কটিকায় ALH 84001 নামে পরিচিত একটি উল্কা খুঁজে পান যাতে জীবাশ্মযুক্ত ব্যাকটেরিয়া-সদৃশ গঠন রয়েছে।পরে ২০১২ সালে, বিশেষজ্ঞরা উপসংহারে পৌঁছেছিলেন যে এই জৈব উপাদানটি জীবনের সম্ভাবনা ছাড়াই আগ্নেয়গিরির কার্যকলাপ দ্বারা গঠিত হয়েছিল।

জীবনের লক্ষণ
গ্রহের প্রথম ক্লোজ-আপগুলি ১৯৬৪ মেরিনার ৪ মিশন দ্বারা সংগ্রহ করা  হয়েছিল।এই প্রাথমিক চিত্রগুলি দেখায় যে মঙ্গল গ্রহে এমন ভূমিরূপ রয়েছে যা প্রমান করে এখানে  জলবায়ু একসময়ে  আর্দ্র ছিলো এবং তাই প্রাণের স্পন্দন থাকতে পারে ।অনেক রোভার, অরবিটার এবং ল্যান্ডার এখন ভূত্বকের নীচে পানির  প্রমাণ এবং এমনকি মাঝে মাঝে বৃষ্টিপাতের প্রমাণ প্রকাশ করেছে।এই বছরের শুরুর দিকে, নাসার কিউরিওসিটি রোভার  মঙ্গলগ্রহের একটি প্রাচীন লেকবেডে জীবনের সম্ভাব্য লক্ষণ  খুঁজে পেয়েছিল।গ্যাল ক্রেটারে ৩.৫ বিলিয়ন বছরের পুরানো  সংরক্ষিত জৈব অণুগুলি প্রমাণ করে  যে একসময় ফ্লোরিডার লেক ওকিচোবির আকারের একটি অগভীর হ্রদ ছিল মঙ্গলের বুকে। মঙ্গল গ্রহের ভবিষ্যত মিশনগুলি আরও পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পরীক্ষা করার জন্য লাল গ্রহের নমুনাগুলিকে পৃথিবীতে ফিরিয়ে আনার পরিকল্পনা চলছে ।

মিথেন
২০১৮ সালে, কিউরিওসিটি মঙ্গলগ্রহের বায়ুমণ্ডলে মিথেনের বৃদ্ধির বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। বিজ্ঞানীরা  প্রশ্ন তুলেছেন , মঙ্গল গ্রহে কিভাবে মিথেন উৎপন্ন হয় যদি সেখানে  কোন জৈবিক জীবন না থাকে? রোবট দিয়ে   মিথেন  পরিমাপ  শুরু করা হয়েছে।  সাড়ে চার বছর ধরে কিউরিওসিটি মঙ্গলের বুকে মিথেন পরিমাপ করছে।

সূত্র :  ডেইলি মেল

রকমারি থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

রকমারি সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status