ঢাকা, ৬ জুন ২০২৩, মঙ্গলবার, ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১৬ জিলক্বদ ১৪৪৪ হিঃ

অর্থ-বাণিজ্য

ভ্যাটের আওতার বাইরে বার্ষিক টার্নওভার ৪ কোটি টাকা নির্ধারণের প্রস্তাব

অর্থনৈতিক রিপোর্টার

(২ মাস আগে) ২২ মার্চ ২০২৩, বুধবার, ৯:৪১ অপরাহ্ন

করোনা মহামারির রেশ কাটতে না কাটতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বৈশ্বিক ব্যবসা-বাণিজ্যে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। পাশাপাশি জ্বালানি ও ডলার সংকটে দেশে বাড়ছে মূল্যস্ফীতি। এমন প্রেক্ষাপটে অতিক্ষুদ্র ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের প্রকৃত মুনাফা অনেক কমেছে। এ অবস্থায় মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাটের আওতাবহির্ভূত ব্যবসায়ের বার্ষিক টার্নওভারের ঊর্ধ্বসীমা ৩ কোটি থেকে বাড়িয়ে ৪ কোটি টাকা নির্ধারণের প্রস্তাব করেছে বাংলাদেশ চেম্বার অব ইন্ডাস্ট্রিজ (বিসিআই)।

বুধবার আগারগাঁওয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আয়োজিত ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রাক বাজেট আলোচনায় এ প্রস্তাব করেছে বিসিআই। এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিমের সভাপতিত্বে আলোচনায় বিসিআই সদস্যসহ এনবিআরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিসিআই সভাপতি আনোয়ার-উল আলম চৌধুরী বলেন, মোট লাভ খাতভিত্তিক নির্ধারণ করা যুক্তিসংগত নয়। আবার মোট লাভ কমলে অথবা ব্যবসায় লোকসান হলে সেটা বিবেচনায় নেয়া হয় না। এমনকি পূর্ববর্তী বছরের তুলনায় বিক্রি কম হলেও কর কর্তৃপক্ষ বিবেচনায় নিতে রাজি হয় না। এমন ধারণার সমাপ্তি টানা দরকার।

তিনি বলেন, ব্যবসায় ক্ষতি হওয়া সত্ত্বেও টার্নওভার কর নির্ধারণ করা হয়ে থাকে, যা প্রতিষ্ঠানের জন্য বোঝা হয়ে দাঁড়ায়। আয়কর আইনের ৮২ সি ধারা অনুসারে সর্বনিম্ন কর হিসেবে উৎসে কর কর্তন করা হয়ে থাকে। কিন্তু পরবর্তীতে তা আবার অ্যাসেসমেন্টে নেয়া হয়।

বিজ্ঞাপন
এ সময় তিনি উৎসে কর চূড়ান্ত কর দায় হিসেবে গণ্য করার প্রস্তাব করেন।

বিসিআইয়ের অন্য প্রস্তাবের মধ্যে রয়েছে- সম্পদ অর্জনের ক্ষেত্রে উৎসে কর কর্তন না করা হলে তা অন্য উৎসের আয় হিসেবে বিবেচিত হওয়ার বিধান বাতিল, শিল্পের কাঁচামাল আমদানির ক্ষেত্রে শূন্য শতাংশ থেকে তিন শতাংশ উৎসে কর নির্ধারণ, মাইক্রো, কুটির ওক্ষুদ্র শিল্প খাতে সব ধরনের ইউটিলিটির ওপর ভ্যাট অব্যাহতি, ক্ষুদ্র শিল্প এবং নারী উদ্যোক্তাদের সমন্বয়ে খাত ভিত্তিক যৌথ রপ্তানিমুখী প্রতিষ্ঠানগুলিকে বন্ডেড ওয়্যারহাউস সুবিধা প্রদান, তরুণ শিল্প উদ্যোক্তাদের জন্য ন্যূনতম ৫ বছর কর অবকাশ প্রদান এবং পরবর্তীতে ১০ শতাংশ থেকে ১৫ শতাংশের মধ্যে কর নির্ধারণ।

বাংলাদেশ পেপার মিলস এসোসিয়েশন (বিপিএম) সরবরাহ পর্যায়ে ৫ শতাংশ নির্ধারণ, সেলফ কপি পেপারের শুল্ককরসহ অন্যান্য শুল্ক প্রত্যাহারের প্রস্তাব করেছে। বাংলাদেশ মেরিন ফিসারিজ এসোসিয়েশন সব পর্যায়ে আমদানি শুল্ক ২০ শতাংশ ও করপোরেট কর ৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করেছে। পর্যটন ও বিনোদন কেন্দ্রের উন্নয়ন ও প্রবৃদ্ধির আয়কর কমানো এবং প্রচলিত ৭.৫ শতাংশ মূসকের স্থলে ৫ শতাংশ করার প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব অ্যামিউজমেন্ট পার্কস অ্যান্ড অ্যাট্রাকশনস (বাপা)।

ফেডারেশন অব বাংলাদেশ কাস্টমস ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরওয়ার্ডিং এজেন্টস এসোসিয়েশন একই জাতীয় পণ্যকে একাধিক এইচ এস কোডে শ্রেণিবিন্যাস ও শুল্কায়নের সম্ভাবনা থাকা পণ্যের ওপর প্রযোজ্য শুল্ককর একই হারে নির্ধারণ, ট্যারিফ মূল্য যৌক্তিক করা, অসত্য ঘোষণায় জরিমানার হার সর্বনিম্ন ৫০ হাজার টাকা ও আইজিএম সংশোধন করে সব কাস্টমস হাউসে একই পদ্ধতি ও একই হারে নির্ণয় করার প্রস্তাব দিয়েছে।

অনলাইন ডিজিটাল মধ্যস্ততা পরিষেবা প্রদানকারীদের ‘ডিজিটাল পরিষেবা কর’ (ডিএসটি) প্রদানের জন্য দায়বদ্ধ করা, অনাবাসীর শেয়ার আয়ের বিপরীতে উৎসে কর কর্তন, কর প্রশাসন স্বয়ংক্রিয় করা, অন্যান্য সংবিধিবদ্ধ সংস্থার সঙ্গে অটোমেশন, কর অব্যাহতি নীতি ও করহার নির্ধারণ, আগাম কর ধাপে ধাপে বিলুপ্তি, মূসক চালান আধুনিকীকরণ ও একত্রিকরণ, ভ্যাট সিস্টেমের সব স্তরে ডিজিটালাইজেশন, ভ্যাট সফটওয়্যার বাধ্যতামূলক ব্যবহারের জন্য সীমা বর্ধিত করার প্রস্তাব দিয়েছে দি ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেটস অব বাংলাদেশ (আইসিএবি)।

বাংলাদেশ এলপিজি অটোগ্যাস স্টেশন অ্যান্ড কনভার্সন ওয়ার্কশপ ওনার্স এসোসিয়েশেন ভোক্তাপর্যায়ে অটোগ্যাসের বিক্রয়মূল্যের সঙ্গে সংযোজিত মূসক প্রত্যাহারের প্রস্তাব দিয়েছে। এছাড়া এলপিজি গ্যাসাধার উৎপাদনে প্রয়োজনীয় কাঁচামাল, যন্ত্রাংশ ও যন্ত্রপাতি আমদানি পর্যায়ে শুল্কমুক্ত চায় সংগঠনটি।

প্রাক বাজেট আলোচনায় সবার বক্তব্য শোনার পর তা বিবেচনায় নেওয়ার আশ্বাস দেন এনবিআর চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, এলডিসি গ্র্যাজুয়েশনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমাদের সক্ষমতার জায়গা তৈরি করতে হবে। এজন্য যুগোপযোগী শিল্পায়ন যেমন করতে হবে তেমনি করের আওতাও বাড়াতে হবে। আমাদের কাছে যেসব প্রস্তাবনা এসেছে, অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা সবকিছু বাস্তবায়ন করতে পারবো না। কিন্তু ভবিষ্যতে ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ তৈরি করতে আগামীতে বিষয়গুলো বিবেচনা করা হবে।
 

অর্থ-বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

অর্থ-বাণিজ্য সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status