ঢাকা, ১৯ আগস্ট ২০২২, শুক্রবার, ৪ ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২০ মহরম ১৪৪৪ হিঃ

অর্থ-বাণিজ্য

১০ দুর্বল ব্যাংক চিহ্নিত করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক

অর্থনৈতিক রিপোর্টার

(২ সপ্তাহ আগে) ৪ আগস্ট ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৬:৫২ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১১:০২ পূর্বাহ্ন

পর্যাপ্ত জামানত না রাখা, দুর্বল জামানত, অনিয়মের মাধ্যমে সৃষ্ট ঋণ, খেলাপি ঋণের আধিক্য, আয়ের তুলনায় ব্যয় বেশি এমন ১০টি দুর্বল ব্যাংককে চিহ্নিত করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে কোন ১০টি ব্যাংক চিহ্নিত করা হয়েছে সে বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি।

বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের জাহাঙ্গীর আলম কনফারেন্স রুমে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানানো হয়। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার ছাড়া কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, একটি ব্যাংক খারাপ হলে অন্যটির ওপর প্রভাব পড়ে। আমরা কোনো ব্যাংক বন্ধের পক্ষে না, আমানতকারী যেন তার টাকা ফেরত পান সেটা নিশ্চিত করতে চাই। সব ব্যাংক ব্যবসা করবে, লাভ করবে, বাজারে টিকে থাকবে, এটা আমরা চাই।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা হয়, ঋণ ব্যবস্থাপনায় ব্যাংকসমূহের সিদ্ধান্তের বাস্তবায়ন সংক্রান্ত বিষয়ে স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা নিশ্চিতে ঋণ পুনঃতফসিলীকরণ ও পুনর্গঠন সংক্রান্ত মাস্টার সার্কুলার জারি করা হয়েছে। এ সার্কুলারে বর্ণিত শর্ত মোতাবেক ব্যাংকগুলো উপরোক্ত বিষয়ে নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিতে পারবে, যা আগে অনেকটা অস্বচ্ছ এবং অসমভাবে করা হতো।

ব্যাংকিং ব্যবস্থায় অপেক্ষাকৃত দুর্বল ব্যাংকসমূহকে চিহ্নিত করার লক্ষ্যে চারটি চালক যেমন- শ্রেণিকৃত ঋণের মাত্রা, মূলধন পর্যাপ্ততা, ঋণ-আমানত অনুপাত এবং প্রভিশনের পরিমাণের ওপর ভিত্তি করে ১০টি দুর্বল ব্যাংক চিহ্নিত করা হয়েছে। চিহ্নিত দুর্বল ব্যাংকগুলোকে তাদের সমস্যা সমাধানকল্পে বাংলাদেশ ব্যাংক ওয়ান-টু-ওয়ান ভিত্তিতে আলোচনা কার্যক্রম শুরু করছে। এ ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলো একটি তিন বছর মেয়াদী বিজনেস প্লান দেবে। যার ক্রমঅগ্রগতি বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পর্যবেক্ষণ করবেন।

বিজ্ঞাপন

পাঠকের মতামত

ব্যাংক গুলোর নাম কি ? আমানতকারীদের জমাকৃত টাকা ঠিক থাকলেই হল। আবারো টেনশন। এরা লাইসেন্স পায় কিভাবে।প্রজেক্ট জমা দেয় কিভাবে। মাথায় ঢুকে না। একটা কোম্পানি করতে অনেক খড় কুটো পুড়াতে লাগে। ব্যাংকের যদি এই অবস্থা হয়। নতুন গভর্নর মনে হয় তিনি সব ট্যাকেল দিতে পারবেন।

Anwarul Azam
১৮ আগস্ট ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৭:২৬ পূর্বাহ্ন

The Bank will not disclose those banks names, because they do not want to lose under desk money.- It's a very simple math.

Iqbal Mirza
৮ আগস্ট ২০২২, সোমবার, ৯:০২ অপরাহ্ন

আমরা তো শুধু ফলাফল ভোগ করবো। কি আর বলার আছে। এটাই বাস্তবতা।

gobinda
৮ আগস্ট ২০২২, সোমবার, ১২:২২ পূর্বাহ্ন

নাম বললে ঐ চেয়ারে আর বসা লাগবেনা।কারণ জাতি জানে ঐসব ব্যাংকের মালিক কে।

আবদুল মতিন
৭ আগস্ট ২০২২, রবিবার, ১১:৪০ পূর্বাহ্ন

ব্যাংকের নাম বললে চাকরি থাকবে না।

T. U Khan
৭ আগস্ট ২০২২, রবিবার, ১:৪০ পূর্বাহ্ন

It's a right of the depositor to know about the financial condition of the bank. Mr. Governor, plz don't hide the name of those banks who are actually sick.

Md. Shamsul Hoque
৫ আগস্ট ২০২২, শুক্রবার, ৬:৩২ পূর্বাহ্ন

Bank gulor nam prokas na amanotkarike ondhokare rakha.tar pore deulia hole amanotkarike tiroskar kora

Wadud
৫ আগস্ট ২০২২, শুক্রবার, ২:০৪ পূর্বাহ্ন

সম্প্রতি জারীকৃত শ্রেণিকৃত ঋণের বিশ্রেণিকরনের সার্কুলারটি লুটপাটের সংস্কৃতিকে বৈধতা দিয়ে ঋণের নামে লোপাটকৃত টাকা পরিশোধকে অসম্ভব করে তুলেছে। এক বছর সময় দিয়ে ঋন আদায় পরিস্থিতি সন্তোষজনক না হলে পত্রিকায় ওদের নাম প্রকাশ করার শর্ত দিন। প্রধান নির্বাহীসহ উচ্চ পদস্থদের শ্রেণিকৃত ঋণ আদায়ের নিদৃষ্ট টার্গেট পূরনের শর্ত দিন।

মোহাম্মদ হারুন আল রশ
৪ আগস্ট ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৯:৩১ অপরাহ্ন

এগুলোকে দুর্বল ব্যাংক না বলে মালিক ও পরিচালকদের মাধ্যমে সাধারণ আমানতকারীর অর্থ অবাধে গণলুণ্ঠন কেন্দ্র বললে যৌক্তিক হবে। তাছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংক নিজেই যে যথেষ্ট দুর্বল, জনগণের অর্থ হাত-সাফাই করা ব্যাংকের নাম প্রকাশ না-করতে পারাই সেটি প্রমানের জন্য যথেষ্ট।

হালিম
৪ আগস্ট ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৯:২৫ পূর্বাহ্ন

ব্যাংকের নামগুলি উল্লেখ করা দরকার ছিল। যাতে বিনিয়োগকারীরা সাবধান হতে বা ঐ সব ব্যাংক থেকে দূরে থাকতে পারে। আর ঐ ব্যাংকের মালিকদের নাম ও জানানো উচিত।

Md shamsul islam
৪ আগস্ট ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৭:৩৬ পূর্বাহ্ন

ব্যাংকগুলোর নাম নেই কেন রিপোর্টে

সুজা
৪ আগস্ট ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৬:১৬ পূর্বাহ্ন

অর্থ-বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

অর্থ-বাণিজ্য থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status