ঢাকা, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, শুক্রবার, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১২ শাবান ১৪৪৫ হিঃ

আপন আলোয় মানবজমিন

লাকি ফিল্ড মানবজমিন

কাজী ইমরুল কবীর সুমন, সাবেক স্পোর্টস ইনচার্জ, মানবজমিন
২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, বৃহস্পতিবার
mzamin

এইতো সেদিন কথা হচ্ছিল প্রেস ক্লাবে। মানবজমিনের সাবেক বর্তমানদের নিয়ে একটি গেট টুগেদার বা মিলনমেলা করলে কেমন হয়? অনেকদিনের ভালোবাসা থেকেই এ উপলব্ধি। সে মতে ফেসবুক গ্রুপ পেজ খোলা হলো ‘মানবজমিন পরিবার’ নামে। সে সময় জানতাম না মানবজমিন ২৬ বছরে পা দিতে চলেছে। ১৫ ফেব্রুয়ারি মানবজমিনের রজতজয়ন্তী। জানতে পারলাম বার্তা সম্পাদক কাজল ঘোষ দাদা’র মেসেজ পেয়ে। ভাবতেই ভালো লাগছে এই পথচলার একটা বড় সময় আমি মানবজমিনের সঙ্গী ছিলাম। 
মানবজমিন পত্রিকায় দু’দফায় প্রায় বছর দশেক কাজ করার সুযোগ হয়েছে আমার। সাংবাদিকতার ক্যারিয়ারে একটি হাউজে কাজ করা এটা দীর্ঘতম সময় আমার। এই সময়ে আমি সাংবাদিকতা জীবনে আমার সেরা অর্জনগুলোর দেখা পাই। ২০০৪, ২০০৫, ২০০৬ সালে মানবজমিনে প্রকাশিত রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করে আমি ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির বর্ষসেরা রিপোর্টিংয়ের পুরস্কার ডিআরইউ নাভানা অ্যাওয়ার্ড পাই টানা ৩ বছর।

বিজ্ঞাপন
 
মানবজমিনে এম এম কায়সার ভাইয়ের টিম আব্দুল্লাহ সাঈদ, মো. জাকারিয়া হোসেন,  আজাদ মজুমদার, মনোয়ার হোসেনের সঙ্গে ছিলাম আমি। পরে এই টিমে তালহা বিন নজরুল যোগ দেন। এরপর অনেক পট পরিবর্তনের পর মানবজমিন স্পোর্টস টিমের ইনচার্জ হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছি। মানবজমিনে পরবর্তীতে আমার টিমে তালহা বিন নজরুল, মনোয়ার হোসেন, নাহিদ মেরাজ, শফিক কলিম, জহির ভূঁইয়া, মাকসুদা লিসা, কামাল আহমেদ, মাহফুজ মুকুল, মোহাম্মদ নূরী, আবু হুরায়রা তামিম, রাজু আলাউদ্দিন, একরাম হোসেন, ইফতেখার রাজিব, সুদীপ্ত আনন্দসহ অনেকেই কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন। 
স্পোর্টস রিপোর্টার হিসেবে যখন কাজ করতাম তখন স্কুপ নিউজ আর ব্রেকিং নিউজের জন্য হন্যে হয়ে ঘুরে বেড়াতাম ক্লাব পাড়া আর স্টেডিয়ামে। আমার দেয়া ব্রেকিং নিউজ ধরানোর পীড়াপীড়ির জন্য অনেক সময়ই স্পোর্টস এডিটর, চিফ রিপোর্টার, নিউজ এডিটর, কম্পিউটার ইনচার্জ, পেজ মেকাপম্যান, রিটারেচারদের সঙ্গে ঠাণ্ডা লড়াই চলতো। নিউজ ধরানোর পর এজন্য পরদিন অবশ্য বাহবাও পেতাম। এ জন্য মানবজমিন পত্রিকার প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী, সম্পাদক মাহবুবা চৌধুরীর কাছে কৃতজ্ঞ। বলতে গেলে আমার সাংবাদিকতা জীবনের সেরা সময়টি কেটেছে বাংলামোটর আর কাওরানবাজারে মানবজমিন অফিসে।
মানবজমিনে আমি অনেকগুলো বিটে কাজ করেছি। এখানে শুরুটা স্পোর্টস ডেস্ক দিয়ে। একটা সময় মানবজমিন কর্তৃপক্ষ আমাকে ডেস্কের অফিস ডিউটি থেকে সরিয়ে রিপোর্টিংয়ে নিয়ে আসে। স্পোর্টস বিট ছেড়ে সরাসরি দেয়া হয় জেনারেল বিট। তাও যেই সেই বিট না। জেনারেল সেকশনে জাতীয় সংসদ, আওয়ামী লীগ, বিকল্প ধারা, সিপিবি, জাসদ, পরিবেশ বিট নিয়ে কাজ করতে দেয়া হয় আমাকে। তখন পুরোদস্তুর জেনারেল বিটের রিপোর্টার হয়ে উঠেছিলাম। 
পাওয়া না পাওয়ার কষ্ট বেদনা পেছনে ফেলে আমার সাংবাদিকতা জীবনে যা কিছু অর্জন সবই মানবজমিনে। আমার লাকি ফিল্ড মানবজমিন। আমার সৌভাগ্যের প্রতীক এই হাউজটি। এক জীবনে এতকিছু পাওয়া মানবজমিন পরিবারের কাছে সেটাই অভাবনীয়। এ সময়ে আমরা মানবজমিনের প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী, সম্পাদক মাহবুবা চৌধুরী ও টেকনিক্যাল এডিটর ড. মেহযেব রহমান চৌধুরী মিশুকে খুব কাছ থেকে পেয়েছি। যুগ যুগ মানবজমিন টিকে থাকুক সে কামনা করি।

আপন আলোয় মানবজমিন থেকে আরও পড়ুন

   

আপন আলোয় মানবজমিন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status