ঢাকা, ২৮ নভেম্বর ২০২২, সোমবার, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিঃ

দেশ বিদেশ

উন্নয়ন সহযোগীদের প্রতিশ্রুতি বেড়েছে ৩১৬ শতাংশ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, মঙ্গলবার

চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে উন্নয়ন সহযোগীদের অর্থ ছাড় কমলেও তবে একই সময়ে ঋণ ও অনুদানের প্রতিশ্রুতি অনেক বেড়েছে। চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে ৩০ কোটি ৪৯ লাখ ডলারের প্রতিশ্রুতি এসেছে। ২০২১-২২ অর্থবছরের একই সময়ে প্রতিশ্রুতির পরিমাণ ছিল ৭ কোটি ৩৩ লাখ ডলারের। অর্থাৎ চলতি অর্থবছরের দুই মাসে এটি বেড়েছে ৩১৬ শতাংশের মতো। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে উন্নয়ন সহযোগীদের অর্থ ছাড় ও প্রতিশ্রুতির এসব তথ্য জানা গেছে। ইআরডি’র তথ্যমতে, অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে সবচেয়ে বেশি অর্থ ছাড় করেছে জাপান। ৩২ কোটি ৯১ লাখ ডলার দিয়েছে দেশটি। আর প্রতিশ্রুতি সবচেয়ে বেশি এসেছে বিশ্বব্যাংক গ্রুপের প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েশন (আইডিএ) থেকে। সফট লোন উইনডো খ্যাত সংস্থাটি গত জুলাই ও আগস্ট মাসে বিভিন্ন প্রকল্পে মোট ৩০ কোটি ডলার দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। জুলাই-আগস্ট সময়ে দাতাদের ঋণসহায়তার প্রতিশ্রুতি বেড়েছে।

বিজ্ঞাপন
২০২১-২২ অর্থবছরের এই দুই মাসে ৭ কোটি ৩৩ লাখ ২২ হাজার ডলারের ঋণসহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল দাতারা। এই বছরের জুলাই-আগস্টে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ৩০ কোটি ৪৯ লাখ ২০ হাজার ডলার। 
তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে বিশ্বব্যাংকের (আইডিএ) অর্থছাড় কিছুটা বেড়েছে। ৯ কোটি ডলার থেকে বেড়ে হয়েছে ৯ কোটি ৪১ লাখ ডলার। তবে অনেক কমে গেছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) ছাড়। এডিবি গত জুলাই-আগস্ট সময়ে দিয়েছে ১৩ কোটি ৫০ লাখ ডলার। যেটি আগের অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ৫৫ কোটি ৭১ লাখ ডলারের বেশি।
এ ছাড়া এই অর্থবছরের দুই মাসে চীন ১৮ কোটি ৭১ লাখ ডলার, ভারত ৭ কোটি ১৮ লাখ ডলার, রাশিয়া ৪১ লাখ ডলার দিয়েছে। পাশাপাশি জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা থেকে এসেছে ১ কোটি ৩১ লাখ ডলারের মতো। গত ২০২১-২২ অর্থবছর বিদেশি ঋণ ও অনুদান প্রথমবারের মতো ১০ বিলিয়ন বা ১ হাজার কোটি ডলার ছাড়ায়। এটি আগের অর্থবছরের তুলনায় ছিল দুই বিলিয়ন ডলার বেশি। ২০২০-২১ অর্থবছরে বাংলাদেশকে ৭.৯৬ বিলিয়ন ডলারের ঋণ ও অনুদান দেয় উন্নয়ন সহযোগীরা।
বাজেট ঘাটতি মেটাতে প্রতিবছর অভ্যন্তরীণ এবং বৈদেশিক উৎস থেকে ঋণ নিয়ে থাকে সরকার। অভ্যন্তরীণভাবে প্রধানত ব্যাংক ও সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নেয়া হয়। আর বৈদেশিক উৎস থেকে বহুপক্ষীয় ও দ্বিপক্ষীয় উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে ঋণ নেয় সরকার। বিদেশি সংস্থা ও দেশগুলো কিছু অনুদানও দেয়। অর্থ মন্ত্রণালয় প্রকাশিত মধ্যমেয়াদি সামষ্টিক অর্থনৈতিক নীতি বিবৃতিতে দেয়া তথ্য অনুসারে, ঘাটতি অর্থায়নের গড়ে ২৬ শতাংশ আসে বৈদেশিক উৎস থেকে। বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প ও কর্মসূচির জন্য এবং বাজেট সহায়তা হিসেবে এই অর্থ দিয়ে থাকে উন্নয়ন সহযোগীরা।
এদিকে চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে (জুলাই-আগস্ট) বিভিন্ন দাতা দেশ ও সংস্থার কাছ থেকে মোট ৮৬ কোটি ৪৩ লাখ ডলারের ঋণসহায়তা পেয়েছে বাংলাদেশ। এই অঙ্ক গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ২৪.৩৮ শতাংশ কম। গত অর্থবছরের এই দুই মাসে ১১৪ কোটি ২৯ লাখ (১.১৪ বিলিয়ন) ডলারের ঋণ ছাড় করেছিল দাতারা। অর্থাৎ আলোচ্য সময়ে বিদেশি ঋণপ্রবাহ কমেছে ২৮ কোটি ডলার। ইআরডি’র তথ্যমতে, ২০২০-২১ অর্থবছরে উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে ৭৯৫ কোটি ৭৫ লাখ ৬০ হাজার (৭.৯৬ বিলিয়ন) ডলার ঋণসহায়তা পেয়েছিল বাংলাদেশ। তার আগে ২০১৯-২০ অর্থবছরে এসেছিল ৭৩৮ কোটি (৭.৩৮ বিলিয়ন) ডলার।
পিআরআই নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, অস্থির বিশ্ব পরিস্থিতিতে আমাদের দেখেশুনে ঋণ নিতে হবে। কম সুদের ঋণ ছাড়া অন্য ঋণ নেয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।

 

দেশ বিদেশ থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

দেশ বিদেশ থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status