ঢাকা, ২০ এপ্রিল ২০২৪, শনিবার, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১০ শাওয়াল ১৪৪৫ হিঃ

প্রথম পাতা

চট্টগ্রামে কোচিং সেন্টারে ধর্ষিত ছাত্রীর মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার
mzamin

চট্টগ্রাম নগরের চান্দগাঁওয়ের একটি কোচিং সেন্টারে শিক্ষকের ধর্ষণের ফলে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েছিল এক ছাত্রী। এই বিষয়টি পরিবারের লোকজন জেনে ফেলায় লজ্জায় ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায় মেয়েটি। অবশেষে হাসপাতালে ১০ দিন  চিকিৎসাধীন থাকার পর মারা গেছেন মেয়েটি। এই ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষক হামিদ মোস্তফা জিসান কারাগারে আছেন।

রোববার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের  আইসিইউতে ওই ছাত্রী মারা যায়। ধর্ষক কোচিং শিক্ষক হামিদ মোস্তফা জিসান (২১) কক্সবাজারের মহেশখালীর পশ্চিম পাড়ার বাবুল মিয়ার পুত্র। তিনি  ইসলামী ছাত্রসেনা নামে একটি তরীকত ভিত্তিক সংগঠনের মহেশখালীর কুতুবজোন ইউনিয়ন সভাপতি। জানা যায়, কয়েক দফায় শারীরিক সম্পর্কের ফলে মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হলে বিষয়টি জানাজানি হয়ে যায়। এতে ভয়ে গত ১৫ই ফেব্রুয়ারি ঘুমের ওষুধ খায় সে। এরপর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। একই দিন  মেয়েটির বাবা চান্দগাঁও থানায়  নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন।

বিজ্ঞাপন
মামলায় শিক্ষক জিসানকে আসামি করা হয়। মামলার একদিনের মাথায় গত ১৭ই ফেব্রুয়ারি ওই শিক্ষককে গ্রেপ্তার করে চান্দগাঁও থানা পুলিশ। এরপর একদিনের রিমান্ড শেষে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

ছাত্রীর বাবার করা মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, ওই শিক্ষার্থী কয়েক মাস ধরে চান্দগাঁও আবাসিক এলাকার ১১ নম্বর রোডের শিক্ষাশালা কোচিং সেন্টারে প্রাইভেট পড়ে আসছে। এই সুযোগে কোচিং সেন্টারের শিক্ষক ও মামলার আসামি জিসান তাকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে গত বছরের ১৭ই ডিসেম্বর কোচিং সেন্টারের ভেতরে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এসময় আপত্তিকর অবস্থায় ছবিও ধারণ করা হয়। পরবর্তীতে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে তার সঙ্গে কয়েক দফায় শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করা হয়। এক পর্যায়ে ওই শিক্ষার্থী অসুস্থবোধ করলে তাকে চমেক হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা অন্তঃসত্ত্বা বলে জানান। এই বিষয়ে চান্দগাঁও থানার তদন্ত কর্মকর্তা  মো. জসিম উদ্দিন মানবজমিনকে  বলেন, ধর্ষণের ফলে এই ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে বিষয়টি তার পরিবারের সদস্যরা জেনে যায়। একপর্যায়ে মেয়েটি ভয় ও লজ্জায় ঘুমের ওষুধ খেয়ে ফেলে। এরপর তাকে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছিল। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় থাকার পর রোববার তার মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তাকে রিমান্ডেও নেয়া হয়েছিল।

পাঠকের মতামত

আমি মনে করি এই শিক্ষকের কঠোর বিচার হওয়া দরকার না হয় অভিভাবকরা কোচিং সেন্টারে ছাত্রীদের পড়ানোর আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে, অদুর ভবিষ্যতে শিক্ষকের উপর অভিভাবক ও ছাত্রীরা আস্তা হারিয়ে ফেলবে।

Kazi Mizan
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৪:৫৭ পূর্বাহ্ন

তিনি ইসলামী ছাত্রসেনা নামে একটি তরীকত ভিত্তিক সংগঠনের মহেশখালীর কুতুবজোন ইউনিয়ন সভাপতি।

Kakon
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, মঙ্গলবার, ৩:৩০ পূর্বাহ্ন

ধর্ষনকারীর রাজনৈতিক পরিচয় প্রকাশ করা হউক।

বোদাই
২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, সোমবার, ৬:৪২ অপরাহ্ন

মরে বেচে গেলো, মেয়েটি ও তার পরিবার।

Riaz
২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, সোমবার, ১:৫৪ অপরাহ্ন

প্রথম পাতা থেকে আরও পড়ুন

   

প্রথম পাতা সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status