ঢাকা, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, শুক্রবার, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১২ শাবান ১৪৪৫ হিঃ

দেশ বিদেশ

বইমেলায় সৃষ্টিশীল লেখকদের খোঁজে পাঠকরা

হাসনাত মাহমুদ
১২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, সোমবার
mzamin

একটা সময় ছিল যখন বইমেলা মানেই সবার কাছে ছিল হুমায়ূন আহমেদের নতুন বই। প্রায় দুই দশকেরও বেশি সময় বইমেলায় সব বয়সী পাঠকদের বুঁদ করে রেখেছিলেন প্রখ্যাত এই কথা সাহিত্যিক। বইমেলাকে একসময় ‘হুমায়ূন মেলা’ বলেও ডাকতো অনেকে। সে যুগ গত হয়েছে অনেক আগেই। রবীন্দ্র, নজরুল, হুমায়ূন আহমেদসহ বড় বড় লেখকদের বইয়ে মগ্ন থাকা পাঠকরা এখন খোঁজ করছেন নতুন লেখকদের, যাদের লেখায় মিলবে সেই পুরোনো মোহময়তা, যারা পাঠকদের হৃদয়ে জায়গা করে নিতে পারেন নিজস্ব স্বকীয়তায়। আর সেই প্রতিভাবান নতুন লেখকদের সন্ধান পাঠকদের সহজ করে দিয়েছে মিডিয়া, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কিংবা পরিচিত বন্ধু-বান্ধবের ভালো প্রতিক্রিয়া। তরুণ পাঠকরা মেলায় আসছেন তার চারপাশ থেকে ভালো শোনা লেখকদের বইয়ের খোঁজ নিতে। নতুনদের মধ্যে কারা পাঠকদের মন কেড়েছেন? বেশ কয়েকজনের নাম ঘুরেফিরে শোনা যায় মেলায় কান পাতলে। যার মধ্যে রয়েছেন সায়েম সাদাত, মৌরি মরিয়ম, আসিফ এন্তাজ রবিসহ আরও অনেকে। এই বছরই পড়াশোনা শেষ করেছেন ফাহমিদা মির্জা।

বিজ্ঞাপন
সময়টা এখন অখণ্ড অবসরের। 

গতকাল বিকালে ধানমণ্ডি থেকে মেলায় এসেছিলেন এই তরুণী। মেলায় ঘোরার ফাঁকে কথা হলো তার সঙ্গে। জানালেন আপাতত চাকরি শুরু করার আগে নিজেকে কিছুটা সময় দেবেন। তার হাতে দেখা গেল দুইটি বই। কার বই কিনেছেন জিজ্ঞেস করতে জানালেন, গত দুই/তিন বছর ধরে মেলায় আসছি সাদাত হোসেনের বই কিনতে। পাঠককে ধরে রাখার এক ধরনের অসাধারণ শক্তি আছে সাদাতের, আমার খুব পছন্দের লেখক।  এই লেখকের বইয়ে তরুণরা যে মজেছেন সেটি বোঝা গেল অন্যধারা প্রকাশনীর সামনে যেতেই। এই প্রকাশনীই মূলত সাদাত হোসেনের নতুন বইগুলো বইমেলায় আসে। সেখানে দেখা গেল ক্রেতা দর্শনার্থীদের জটলা। প্রায় সবার উদ্দেশ্যই অভিন্ন। লেখক হিসেবে গত কয়েক বছরে সুনাম কুড়িয়েছেন মৌরি মরিয়মও। শহুরে উঠতি বয়সী পাঠকরা তার লেখায় নিজেদের জীবনেরই গল্প খুঁজে পান। প্রথম উপন্যাস পড়ে ভালো লাগায় অনেকে এসেছিলেন লেখিকার অন্যান্য বই কিনতে।  আসিফ এন্তাজ রবি ও জোনায়েদ ইভান নিজেদের জগতে আগে থেকেই জনপ্রিয় ছিলেন। বইয়ের অক্ষরে সৃষ্টিশীলতার প্রমাণ দিয়ে তারাও লেখক হিসেবে তরুণদের হৃদয়ে জায়গা করে নিচ্ছেন। 

 গতকাল ছিল মেলার ১১তম দিন। সাপ্তাহিক ব্যস্ততার দিন বিবেচনায় গতকাল মেলায় ভিড় ছিল বেশি। বিকাল থেকে ক্রেতা দর্শনার্থীদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। স্টল-প্যাভিলিয়নে ঘুরে বেড়ানোর  পাশাপাশি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের লেক, মুক্তমঞ্চে, বর্ণিল সাজের খাবারের দোকানে বসেও আনন্দঘন সময় কাটাচ্ছেন মেলায় আগতরা। বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে মেলাকেন্দ্রিক একাডেমির বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কার্যক্রমগুলো গতকালও সুন্দরভাবেই সম্পন্ন হয়েছে। লেখক বলছি মঞ্চে নতুন লেখকদের নিজেদের বই নিয়ে আলোচনা কিংবা মূলমঞ্চে আলোচনা সবক’টি আয়োজনই ছিল প্রাণবন্ত। এদিন মেলায় নতুন বই এসেছে ৯২টি। মেলার প্রথম দিনে সর্বমোট বইয়ের সংখ্যা  ৯১৫টি। এখন পর্যন্ত মেলায় আসা বইগুলোর মধ্যে কবিতার বইয়ের সংখ্যায় বেশি। সামনের দিনগুলোতে প্রতিদিন মেলায় আসা নতুন বইয়ের সংখ্যা আরও বাড়বে বলে প্রত্যাশা আয়োজক সংশ্লিষ্টদের।

দেশ বিদেশ থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status