ঢাকা, ৪ মার্চ ২০২৪, সোমবার, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২২ শাবান ১৪৪৫ হিঃ

অর্থ-বাণিজ্য

ব্যাংকিং খাতের কেলেঙ্কারি নিয়ে সিপিডির প্রতিবেদনে মন্ত্রীদের বক্তব্য দুঃখজনক: সিপিডি ফেলো মোস্তাফিজুর

অর্থনৈতিক রিপোর্টার

(২ মাস আগে) ২৬ ডিসেম্বর ২০২৩, মঙ্গলবার, ৬:৫৫ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ১:০৮ অপরাহ্ন

ব্যাংকিং খাতে অনিয়ম ও আর্থিক কেলেঙ্কারি নিয়ে সিডিপির প্রতিবেদনে সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ও তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদের মন্তব্য অত্যন্ত দুঃখজনক বলে জানিয়েছেন সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) বিশেষ ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান।

মঙ্গলবার রাজধানীর পল্টনে ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম (ইআরএফ) আয়োজিত দেশের সমসাময়িক অর্থনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে মতবিনিময়কালে এ মন্তব্য করেন। ইআরএফ সভাপতি মোহাম্মদ রেফায়েত উল্লাহ মীরধার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম।

তিনি বলেন, যেভাবে প্রতিক্রিয়া দেখানো হচ্ছে তা খুবই হতাশাজনক। আর্থিক কেলেঙ্কারির প্রকৃত বিষয়বস্তুর পরিবর্তে কে এবং কারা বিষয়টি উত্থাপন করেছে তার উপর বেশি মনোযোগ দেয়া হয়েছে বলে মনে হচ্ছে।

২৪শে ডিসেম্বর প্রকাশিত সিপিডি মূল্যায়ন প্রতিবেদনে বলেছে, ২০০৮-০৯ অর্থবছর থেকে এ পর্যন্ত বড় ২৪টি বড় কেলেঙ্কারির মাধ্যমে ব্যাংকিং খাত থেকে যে টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়েছে, তার পরিমাণ ৯২ হাজার ২৬১ কোটি টাকা।

সিপিডির প্রতিবেদনের বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সোমবার বলেছেন, দেশের ব্যাংকিং খাতে অনিয়ম নিয়ে যে অভিযোগ উঠেছে তা সিপিডিকেই জানাতে হবে। ওদিকে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ অভিযোগ করেছেন, প্রতিবেদন তৈরিতে সিপিডি প্রকৃত গবেষণা করেনি। নির্জলা মিথ্যা। 

মন্ত্রীদের বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, যখন কোনো সমস্যা দেখা দেয়, তখন সেটাকে সরকারের বিরুদ্ধে প্রচারণা না ভেবে সমস্যা হিসেবে বিবেচনা করা উচিত। সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করা উচিত।  তিনি অস্বীকারের সংস্কৃতি দূর করে এবং সমস্যাটি সম্পূর্ণভাবে সমাধানের জন্য সক্রিয় উদ্যোগের পক্ষে কথা বলেন। সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে সিপিডি এই প্রতিবেদন তৈরি করেছে বলেও উল্লেখ করেন মুস্তাফিজুর রহমান। (আর্থিক কেলেঙ্কারি সংক্রান্ত) সংবাদপত্রের প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে কোন আপত্তি উত্থাপিত হয়নি, তিনি যোগ করেছেন।

অধ্যাপক ড. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ব্যাংক খাতে অব্যবস্থাপনা অনিয়ম চলছে, খেলাপি ঋণ বাড়ছে, কিছু ব্যাংক বিপর্যয়ের মধ্যেও পড়েছে। এখন আর্থিকভাবে দুর্বল ব্যাংকগুলোকে একীভূত বা মার্জার করার বিষয় আগেই অনেকবার বলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
এজন্য আইনি দুর্বলতা ও নিয়মনীতিগুলো ঠিক করতে হবে। কারণ ব্যাংক খাত হচ্ছে অর্থনীতির প্রাণ। এ খাতের সমস্যা পুরো অর্থনীতির উপরে পড়ে।

ব্যাংকিং সেক্টরের এ অবস্থা একটি ‘দুষ্টুচক্র’ সৃষ্টি করছে জানিয়ে মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এ খাতের অব্যবস্থাপনা, অনিয়ম, দুর্নীতি ও অর্থ পাচার সবকিছুই এক জায়গায় নিয়ে এসেছে। এটা নিয়ন্ত্রণের মূল দায়িত্ব কেন্দ্রীয় ব্যাংকের। তাদেরকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দিতে হবে। এখানে হস্তক্ষেপ করা যাবে না। আগামীতে এ খাতের শৃঙ্খলা ফেরাতে এ উদ্যোগ নিতে হবে।

পাঠকের মতামত

এসব তথাকথিত মন্ত্রীদের বক্তব্যে দুঃখ না পেয়ে, আরও বেশি বেশি তথ্য দিয়ে জাতিকে সহযোগিতা করুন! ১৮ কোটি মানুষ আপনাদের কাছে চির কৃতজ্ঞ থাকবে!!

RUHUL AMIN (RABBI)
২৬ ডিসেম্বর ২০২৩, মঙ্গলবার, ৬:৪২ পূর্বাহ্ন

অর্থ-বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

অর্থ-বাণিজ্য সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status