ঢাকা, ২৫ জুন ২০২২, শনিবার, ১১ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৪ জিলক্বদ ১৪৪৩ হিঃ

দেশ বিদেশ

সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থাপনা আইনের খসড়া অনুমোদন

স্টাফ রিপোর্টার
২১ জুন ২০২২, মঙ্গলবার

‘সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থাপনা আইন-২০২২’-এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়।  বৈঠক শেষে সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, অর্থমন্ত্রীকে চেয়ারম্যান করে ১৫ সদস্যের একটি পরিচালনা পর্ষদ এবং জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ তহবিল নামে একটি আলাদা তহবিল থাকবে। জাতীয় পরিচয়পত্রকে ভিত্তি ধরে এ পেনশনের আওতায় ১৮ বছর থেকে ৫০ বছর বয়সী সব বাংলাদেশি নাগরিক অংশগ্রহণ করবেন। পাশাপাশি বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশি কর্মীরা এখানে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। তারা যদি নিজেদের নাম রেজিস্ট্রেশন করেন এবং প্রিমিয়াম দেন, তাহলে তারাও এটাতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন।  মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বিশেষ বিবেচনায় ৫০ বছরের অধিক বয়সীদের পৃথক একটা বিধি অনুযায়ী পেনশন স্কিমে আনা যাবে। তবে কমপক্ষে ১০ বছর চাঁদা দিতে হবে। চাঁদা দেয়ার বয়স ৬০ বছর পূর্তিতে পেনশন তহবিলের অর্থ মুনাফাসহ জমার বিপরীতে পেনশন দেয়া হবে।  বিষয়টির ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ১৮ বছর থেকে শুরু হবে ৬০ বছরে কাটডাউন হয়ে যাবে, তারপর ৬০ বছর থেকে সে যতদিন জীবিত থাকবে, পেনশন পেতে থাকবে।

বিজ্ঞাপন
 প্রিমিয়াম বা জমার টাকার পরিমাণ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এগুলো সব বিধির মাধ্যমে নির্ধারণ করা হবে। আজকে ধরুন দুই হাজার টাকা করে। তো ২০ বছর পরে তো এই দুই হাজার টাকার ভ্যালু এক থাকবে না। সেজন্য প্রিমিয়ামটা বিধি দিয়ে নির্ধারণ করে দেয়া হবে। প্রিমিয়ামের একাধিক স্কেল থাকবে বলেও জানান খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি বলেন, পেনশনাররা আজীবন অর্থাৎ মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এ পেনশন পাবেন। ১৮ থেকে ৬০ বছর পর্যন্ত যারা দেবেন, মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত পাবেন। আর যদি পেনশনে থাকাকালীন, ধরুন পেনশন নিচ্ছেন কেউ ৬২ বছর বয়সে মারা গেলেন, তখন তার ওয়ারিশ যারা থাকবেন নমিনি, তারা উনার আরও ৭৫ বছর হওয়ার যে কয় দিন বাকি থাকবে ততদিন পর্যন্ত এ সুবিধা পাবেন।  মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, যদি পেনশনার কেউ জীবিত থাকেন তাহলে সারাজীবন পেনশন পাবেন। ৬০ বছর বয়সে তো পেনশন শুরু হবে। কোনো কারণে ৬২ বছরে মারা গেল, তখন উনার বয়স ৭৫ ধরলে উনার নমিনিরা সেটা পাবেন। পেনশনার যদি মারা যান ৭৫ বছরের আগে তাহলে ৭৫ বছর হলে উনি যে পেনশন পেতেন তা তার নমিনি পাবেন। এটাকে বিশেষ বেনিফিট হিসেবে রাখা হয়েছে।  কেউ ধরুন ১৮ বছর বয়সে পেনশন দেয়া শুরু করলো এবং ২৬ বছর বয়সে মারা গেল। তাহলে সে ৮ বছর দিলো। তখন তার যে নমিনি থাকবে, তাকে অরিজিনাল কন্ট্রিবিউশন প্লাস প্রফিট, দুটোই দিয়ে দেয়া হবে। সে পেনশন পাবে না, তাকে এককালীন দিয়ে দেয়া হবে। এ স্কিমে সরকারি চাকরিজীবীরা থাকবেন না। কারণ তারা তো রেগুলার পেনশনেই আছেন।

 

দেশ বিদেশ থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

দেশ বিদেশ থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com