ঢাকা, ৩০ জুন ২০২২, বৃহস্পতিবার, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯ জিলক্বদ ১৪৪৩ হিঃ

খেলা

১৯৯৮ সালের পর এমন ব্যাটিং ধস দেখলো অস্ট্রেলিয়া

স্পোর্টস ডেস্ক

(১ সপ্তাহ আগে) ১৭ জুন ২০২২, শুক্রবার, ১১:৪১ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ৫:১৪ অপরাহ্ন

৯৬ বলে দরকার ৫৬ রান। হাতে রয়েছে ৫ উইকেট। এই সহজ লক্ষ্য তাড়া করতে পারেনি অস্ট্রেলিয়া। মাত্র ১৯ রানে বাকি উইকেট হারিয়ে জেতা ম্যাচ হেরে গেছে অজিরা। বৃহস্পতিবার ৫ ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ২৬ রানের জয়ে সিরিজে সমতা টানলো শ্রীলঙ্কা। 

১৯৯৮ সালের ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ১৪ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে মাত্র ৭ রানের জন্য শিরোপা হাতছাড়া হয় অস্ট্রেলিয়ার। ম্যাচটিতে ২৪২ রান তাড়ায় ৫ উইকেটে ২২১ থেকে অস্ট্রেলিয়া অলআউট হয়েছিল ২৩৫ রানে। ২৪ বছর পর ওয়ানডেতে রান তাড়ায় অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে কম রানে শেষ ৫ উইকেট হারানোর ঘটনা এটি।

পাল্লাকেলেতে বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যা টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৪৭.৪ ওভারে ৯ উইকেটে ২২০ রান তোলে শ্রীলঙ্কা। ফলে ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে অস্ট্রেলিয়ার সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ৪৩ ওভারে ২১৬ রান। এই লক্ষ্য তাড়ায় ৩৭.১ ওভারে ১৮৯ রানে গুটিয়ে যায় অ্যারন ফিঞ্চদের ইনিংস।
লক্ষ্য নিয়ে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৩৯ রানে প্রথম উইকেট হারায় অস্ট্রেলিয়া। ১৫ বলে ১৪ রান করে সাজঘরে ফেরেন অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ।

বিজ্ঞাপন
৫১ বলে ৩৭ করে সাজঘরে ফেরেন আরেক ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার। দুটি উইকেটই নেন ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। 

৯৩ রানে তৃতীয় উইকেট হিসেবে স্টিভেন স্মিথকে হারায় অস্ট্রেলিয়া। ৩৫ বলে ২৮ রান করে চামিকা করুনারত্নের বলে আউট হন তিনি। ১৩২ রানের মধ্যে আরো দুই উইকেট হারায় সফরকারীরা। ট্রাভিস হেড ২৩ এবং মার্নাস ল্যাবুশেন ১৮ রান করে ফেরেন সাজঘরে। এরপর দলীয় সর্বোচ্চ জুটি গড়েন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল এবং অ্যালেক্স ক্যারি। দুই ব্যাটার মিলে স্কোরবোর্ডে তোলেন ৩৮ রান। তবে ম্যাক্সওয়েল ৩০ রানে চামিকার শিকার হলে আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি অস্ট্রেলিয়া। ৩৫তম ওভারে ম্যাক্সওয়েলকে ফেরানোর পর ক্যারিকেও (১৫) সাজঘরের পথ দেখান চামিকা। পরের ওভারে আরেক পেসার দুশমন্থ চামিরা আউট করেন প্যাট কামিন্সকে (৪)।

৩৭তম ওভারে করুণারত্মে আবার দলকে সাফল্যে ভাসান। এবার তার শিকার সোয়েপসন (২)। ম্যাথিউ কুহম্যানকে ১ রানে ফিরিয়ে অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসে দাড়ি টানেন চামিরা।

১৭০ রানে ৫ উইকেট হারানো অস্ট্রেলিয়া ১৮৯ রানে হারায় ১০ উইকেট।
চামিকা করুনারত্নে ৭ ওভারে ৪৭ রান খরচ করে ৩ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হন। দুটি করে উইকেট নেন দুনিথ, চামিরা ও ধনঞ্জয়া। বোলিংয়ে আলো ছড়ানোর আগে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা বাজে করে শ্রীলঙ্কা। ষষ্ঠ ওভারেই ১৪ রান সংগ্রহ করা ওপেনার পাথুম নিশাঙ্কা ফেরেন সাজঘরে। আরেক ওপেনার দানুশকা গুনাথিলাকাও টেকেননি বেশিক্ষণ। ১৮ রানে উইকেট হারান তিনি। এরপর ৬১ রানের দারুণ জুটিতে প্রতিরোধ গড়েন কুশল মেন্ডিস ও ধনঞ্জয়া ডি সিলভা।  

কামিন্সের বলে ক্যাচ বিহাইন্ড হয়ে ধনঞ্জয়া ফিরলে ভাঙে এই জুটি। ৪১ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় ৩৪ রান করে ফেরেন তিনি। কিছুক্ষণ পর বিদায় নেন মেন্ডিসও। ৪১ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় ইনিংস সর্বোচ্চ ৩৬ রান করেন তিনি। বিপর্যয়ে পড়া দলকে রক্ষা করতে পারেননি চারিথ আসালাঙ্কা ও চামিকা করুনারত্নেও।  

শেষদিকে অবশ্য থিতু হয়ে ৩৬ বলে ৩৪ রানের লড়াকু ইনিংস খেলেন দাসুন শানাকা। সোয়েপসনের শিকার হন তিনি। এরপর চামিরা ও মাহিশ থিকশানা শেষ জুটিতে ২১ রান যোগ করার পর শুরু হয় বৃষ্টি।
 

খেলা থেকে আরও পড়ুন

খেলা থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com