ঢাকা, ১৭ মে ২০২২, মঙ্গলবার, ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩ হিঃ

মত-মতান্তর

'ধনী-দরিদ্র, শিক্ষিত-অশিক্ষিত কারোই আইন ও বিচার ব্যবস্থার ওপরে আস্থা নেই'

আলী রীয়াজ

(৩ সপ্তাহ আগে) ২১ এপ্রিল ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৩:০০ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ৭:৫১ অপরাহ্ন

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার প্রায় কেন্দ্রস্থলে নিউমার্কেটে ‘ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী’ এবং ‘স্থানীয় দোকান কর্মচারীদের’ মধ্যে মঙ্গলবারের সংঘর্ষের সময় হত্যাকাণ্ডের শিকার নাহিদ হাসানের বাবা নাদিম হোসেন তাঁর সন্তানের অপমৃত্যুর পরে বলেছিলেন, ‘কারও কাছে বিচার চাই না। বিচার চেয়ে কী হবে। কার কাছে বিচার চাইব। মামলাও করতে চাই না’। ২৪ মার্চ রাজধানীর শাহজাহানপুরে দুর্বৃত্তদের গুলিতে শিক্ষার্থী সামিয়া আফরীন প্রীতির বাবা জামাল উদ্দিন বলেছিলেন, ‘মেয়ের হত্যার বিচার চাই না। মামলা চালানোর মতো অবস্থাও নেই। আমরা নিরীহ মানুষ। বিচার চাইলে আল্লাহর কাছে চাই।

তিনিই বিচার করবেন।’ এই দুই হত্যাকাণ্ডের জন্যে যারা দায়ী– প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে– সরকার, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবং রাষ্ট্র তাঁদের আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে পারবেন কীনা জানিনা; কিন্তু সন্তান হারানো এই দুই পিতা যে দেশের শাসন ব্যবস্থা, সরকার আর বিচার বিভাগকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে দিয়েছেন সেটা কী বুঝতে পারছি?

পরিবেশ পরিস্থিতির কারণে নাদিম হোসেন মামলা করেছেন, কিন্তু অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে করা এই মামলার ভবিষ্যৎ সম্ভবত আমরা জানি। তাঁদের প্রিয়জন হারানোর পরে তাঁদের প্রথম প্রতিক্রিয়াগুলো তাঁদের যে অবস্থার কথা বলে তা কি তাঁদের একার কথা? ২০১৫ সালে নিহত ফয়সাল আরেফীন দীপনের পিতা অধ্যাপক আবুল কাসেম ফজলুল হক একই কথা বলেছিলেন, ২০১৫ সালে নিহত হয়েছিলেন লেখক অভিজিৎ রায়, এক সময় তাঁর স্ত্রী রাফিদা খাতুনও বলেছিলেন ‘আমিও বিচার চাইনা’। কেননা চাইলেও বিচার পাওয়া যাবে এমন নয়

বিজ্ঞাপন
অনেক হত্যাকাণ্ডের বিচার চেয়ে পাওয়া যায়নি।

এই যে বিচার না চাওয়া সেটা হচ্ছে দেশে যে বিচারহীনতার সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে তার প্রমাণ। ধনী-দরিদ্র, শিক্ষিত-অশিক্ষিত কারোই এখন আর আইন ও বিচার ব্যবস্থার ওপরে আস্থা নেই। প্রতিষ্ঠানের ওপরে আস্থা নেই, কেননা প্রতিষ্ঠানগুলো ভেঙ্গে পড়েছে। সেগুলো নিজে নিজে পড়েছে তা নয়, যে শাসন ব্যবস্থা গড়ে উঠেছে সেখানে প্রতিষ্ঠানের চেয়েও ব্যক্তি বড় হয়ে উঠেছে। ভিক্টিম যারা তাঁরাই এখন ভীত সন্ত্রস্ত থাকেন। ভয়ের সংস্কৃতি আর বিচারহীনতার সংস্কৃতি মিলে মিশে একাকার হয়ে গেছে।

[লেখকঃ যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির রাজনীতি ও সরকার বিভাগের ডিস্টিংগুইশড প্রফেসর, আটলান্টিক কাউন্সিলের অনাবাসিক সিনিয়র ফেলো এবং আমেরিকান ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ স্টাডিজের প্রেসিডেন্ট। লেখাটি ফেসবুক থেকে নেয়া]

পাঠকের মতামত

মতামত দিতে সাহস শক্তি লাগে। আমার তা নেই। কিছুদিন আগে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রামানা প্রধানমন্ত্রী মোদির সামনেই বলেছেন বিচারের ক্ষেতে সরকারকে "লক্ষন রেখা" মেনে চলা উচিত।

মো হেদায়েত উল্লাহ
২ মে ২০২২, সোমবার, ১০:২৩ অপরাহ্ন

মন্তব্য করে কি কোন লাভ হবে?

হেলাল
৩০ এপ্রিল ২০২২, শনিবার, ১০:১০ পূর্বাহ্ন

দিনে দিনে রাষ্ট্রীয় সেবাদান কর্তৃত্ব এমন একশ্রেণির হাতে গেছে যারা নিজেদেরকে স্বাধীন ইজারাদার ভাবছে।

আকবর আলী
২৭ এপ্রিল ২০২২, বুধবার, ৮:০৫ অপরাহ্ন

মত-মতান্তর থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com