ঢাকা, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, বুধবার, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিঃ

অর্থ-বাণিজ্য

১২ বছরে বিদেশি ঋণ পরিশোধ ১ লাখ ২১ হাজার কোটি টাকা

স্টাফ রিপোর্টার
৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, মঙ্গলবার

সম্প্রতি জাতীয় সংসদে এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, সরকার গত ১২ বছরে সুদসহ প্রায় ১ লাখ ২১ হাজার কোটি টাকার বিদেশি ঋণ পরিশোধ করেছে। অর্থমন্ত্রী জানান, সরকার বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগী দেশ ও সংস্থাকে ১ লাখ ২০ হাজার ৯৮২ কোটি ৫৭ লাখ টাকা ঋণ পরিশোধ করেছে। এর মধ্যে আসল বাবদ ৯৪ হাজার ৬৮০ কোটি ৯৫ লাখ টাকা এবং সুদ বাবদ ২৬ হাজার ৩০১ কোটি ৬২ লাখ টাকা পরিশোধ করা হয়।

উল্লেখ্য, বাজেট ঘাটতি মেটাতে প্রতিবছর অভ্যন্তরীণ এবং বৈদেশিক উৎস থেকে ঋণ নিয়ে থাকে সরকার। অভ্যন্তরীণভাবে প্রধানত ব্যাংক ও সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নেয়া হয়। আর বৈদেশিক উৎস থেকে বহুপক্ষীয় ও দ্বিপক্ষীয় উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে ঋণ নেয় সরকার। বিদেশি সংস্থা ও দেশগুলো কিছু অনুদানও দেয়।

অর্থ মন্ত্রণালয় প্রকাশিত মধ্যমেয়াদি সামষ্টিক অর্থনৈতিক নীতি বিৃবতিতে দেয়া তথ্য অনুসারে, ঘাটতি অর্থায়নের গড়ে ২৬ শতাংশ আসে বৈদেশিক উৎস থেকে। বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প ও কর্মসূচির জন্য এবং বাজেট সহায়তা হিসাবে এই অর্থ দিয়ে থাকে উন্নয়ন সহযোগীরা।

এদিকে ৩৬টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ জুলাইয়ে বৈদেশিক ঋণের একটাকাও খরচ করতে পারেনি। জুলাইয়ে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়ন গত ৪ বছরের মধ্যে সবচেয়ে কম। চলতি অর্থবছরের (২০২২-২৩) প্রথম মাসে জুলাইতে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের হার মাত্র ০.৯৬। ৫৬টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মধ্যে ৩৬টি বিদেশি অর্থ খরচের খাতা খুলতেই পারেনি বলে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

আইএমইডি’র সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী, চলতি অর্থবছরের প্রথম মাসে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির ১ শতাংশের কম বাস্তবায়ন হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
আড়াই লাখ কোটি টাকার এডিপি’র মধ্যে খরচ হয়েছে আড়াই হাজার কোটির টাকার কম। টাকার অঙ্কে এবং বাস্তবায়ন হার, দুই দিক থেকেই প্রথম মাসের এডিপি আগের ৩ বছরের চেয়ে কম। ব্যয় হয়েছে মাত্র ২ হাজার ৪৫৫ কোটি টাকা। আগের অর্থবছরের (২০২১-২২) একই সময় যা ছিল ১.১৪ শতাংশ এবং ব্যয় ছিল ২ হাজার ৬৯৩ কোটি টাকা। ২০২০-২১ অর্থবছরের জুলাইয়ে খরচ ছিল ৩ হাজার ২৫৩ কোটি ৬৯ লাখ টাকা বা ১.৫২ শতাংশ। এমনকি করোনার ২০১৯-২০ অর্থবছরেরও ব্যয় ছিল ৩ হাজার ৯৫০ কোটি ৬৫ লাখ টাকা বা ১.৮৪ শতাংশ। আর এখন স্বাভাবিক সময়েও ১ শতাংশ অর্জিত হয়নি। চলতি বছর এডিপি’র আকার ২ লাখ ৫৬ হাজার ৩ কোটি টাকা।

প্রথম মাসের খরচের মধ্যে সরকারের নিজস্ব তহবিলের এক হাজার ৩২২ কোটি টাকা, প্রকল্প সাহায্য থেকে ৯৭৬ কোটি টাকা এবং বাস্তবায়নকারী সংস্থাগুলোর নিজস্ব কোষাগার থেকে খরচ হয়েছে ১৫৭ কোটি টাকা। মোট ব্যয়ের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৯৮৪ কোটি টাকা খরচ করেছে স্থানীয় সরকার বিভাগ। বেশ কয়েকটি মন্ত্রণালয় খরচের খাতাই খুলতে পারেনি। ১৮টি মন্ত্রণালয় জিওবি অর্থে টাকা ব্যয় করতে পারেনি।
 

পাঠকের মতামত

কোন কোন ৩৬ মন্ত্রণালয় তালিকা প্রকাশ করল দেশের জনগণ জানতে পারত। এরা অযোগ্য মন্ত্রীর কারণে উন্নয়ন প্রকল্প ও পরিকল্পনা গ্রহণ করতে পারে নি ।

Kazi
৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, সোমবার, ৭:৩৪ অপরাহ্ন

অর্থ-বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

অর্থ-বাণিজ্য থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং স্কাইব্রীজ প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, ৭/এ/১ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status