ঢাকা, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, সোমবার, ১১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯ সফর ১৪৪৪ হিঃ

শরীর ও মন

নারীর গোপনাঙ্গে ছত্রাক সংক্রমণ কিছু প্রয়োজনীয় তথ্য

অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আবদুল হাই
৮ আগস্ট ২০২২, সোমবার

নারীর গোপনাঙ্গ বা ভ্যাজাইনাতে ইস্ট ইনফেকশন (ছত্রাক সংক্রমণ) একটা খুব সাধারণ সমস্যা। ৯০ ভাগ ক্ষেত্রে ক্যানডিডা আলবিক্যান্স নামের একটি বিশেষ ধরনের ছত্রাকের কারণে এ রোগের সৃষ্টি হয়। যেকোনো বয়সে যে কারোরই হতে পারে। ২০ থেকে ৩০% পূর্ণবয়স্ক নারীর গোপনাঙ্গে এই ছত্রাক কোনো উপসর্গ ছাড়া এমনি এমনিই থাকতে পারে। তবে যখন সংক্রমণ ঘটে, তখন বেশ কিছু উপসর্গের উদ্ভব হয়। এ সমস্যাগুলো যেগুলো নারীর জন্য খুবই বিব্রতকর। 

ক্যানডিডা বা ছত্রাক সংক্রমণজনিত উপসর্গ:

* দুধ ফেটে গেলে যেরকম ছানাছানা হয়ে যায়, ভ্যাজাইনার ছত্রাক সংক্রমণ দেখতে তেমনই। এই স্রাব শুকালে পাউরুটির ঘ্রাণের মতো গন্ধ থাকতে পারে। 
তবে মাসিক চক্রের শুরু ও শেষে এক চা চামচ পরিমাণ পুরু, সাদা স্রাব নিঃসরণ স্বাভাবিক। 

** এ জাতীয় সাদা স্রাব ছাড়াও ছত্রাক সংক্রমণের অন্যান্য উপসর্গ হলো- ভ্যাজাইনাতে র‌্যাশ ওঠা বা লাল হয়ে যাওয়া, যৌনমিলন বা প্রস্রাবের সময় জ্বালাপোড়া, ভ্যাজাইনাতে ব্যথা, ভালভা লাল হওয়া ও ফুলে যাওয়া এবং ভ্যাজাইনা ও ভালভাতে চুলকানি।

প্রথমেই উল্লেখ করা হয়েছে, এ রোগ যে কারও হতে পারে। এটা কোনো যৌনবাহিত রোগ নয়, তবে ছত্রাক আক্রান্ত মহিলাদের সঙ্গে যৌন সঙ্গমের ফলে পুরুষদের লিঙ্গও ক্যানডিডা দ্বারা আক্রান্ত হতে পারে। আবার কোনো কোনো পুরুষের যৌনাঙ্গের খাঁজে এমনিতেই ক্যানডিডা জীবাণুর বসতি থাকে।
সাধারণত খুব সহজ চিকিৎসায়ই এ রোগের আরোগ্য হয়ে থাকে। তবে যাদের চিকিৎসার পরও এ রোগ সারছে না অথবা খুব ঘনঘন এ রোগের প্রাদুর্ভাব হচ্ছে, তাদেরকে অবশ্যই চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া উচিত।

বিজ্ঞাপন
কিছু ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ যেমন ব্যাকটেরিয়াল ভ্যাজাইনসিস অথবা প্রটোজোয়াল ইনফেকশন যেমন, ট্রাইকোমোনাস ভেজাইনালিস ইত্যাদি রোগের কারণেও এ রোগের মতো কিছু উপসর্গ থাকতে পারে। আবার কিছু যৌন রোগ যেমন নাইশেরিয়া বা ক্ল্যামাইডিয়াতেও এ ধরনের উপসর্গ মাঝে মাঝে দেখা যায়। তাই কিছু কিছু ক্ষেত্রে কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন হয় এবং বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শে ওষুধ সেবন করতে হয়। 

ছত্রাক সংক্রমণের চিকিৎসা

সহজেই ভ্যাজাইনার ছত্রাক সংক্রমণের চিকিৎসা করা যায়। এটা সারিয়ে তুলতে সর্বোচ্চ এক সপ্তাহ লাগতে পারে। প্রথমত ওটিসি ওষুধ মাইকোনাজোল ক্রিম বা ক্লোট্রিমাজলে ক্রিম ব্যবহার করে দেখতে পারেন। মুখে খাওয়ার ওষুধ যেমন ট্যাবলেট ফ্লুকোনাজল ১৫০ মিলিগ্রাম বেশ ভালো কাজ করে। এতে কাজ না হলে চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে।

লেখক: (চর্ম, যৌন ও এলার্জি রোগ বিশেষজ্ঞ)
জালালাবাদ রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।
চেম্বার-১২, স্টেডিয়াম মার্কেট, সিলেট। ফোন- ০১৭১২২৯১৮৮৭

 

শরীর ও মন থেকে আরও পড়ুন

শরীর ও মন থেকে সর্বাধিক পঠিত

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং স্কাইব্রীজ প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, ৭/এ/১ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status