ঢাকা, ১৩ জুলাই ২০২৪, শনিবার, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৬ মহরম ১৪৪৬ হিঃ

শরীর ও মন

কেন রক্ত দিবেন?

কাজী ইফতেখারুল আলম তারেক

(১ মাস আগে) ১২ জুন ২০২৪, বুধবার, ৯:০৮ অপরাহ্ন

মানব দেহের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান রক্ত। মানুষকে ভালোবেসে যত কাজ করা যায়, তার অন্যতম হলো রক্তদান। নেলসন ম্যান্ডেলা বলেন, রক্তদান আমাদের সমাজের একটি মহান জীবন্ত সংস্থা গঠন করে, এটি একটি আদর্শ মানবিক অবদান।  স্বেচ্ছা রক্তদাতারা রক্তবীর। জাতীয় বীর তারাই যারা নিজেদের রক্ত অন্যদের জন্য দান করেন। রক্তের প্রয়োজনে মানুষের পাশে দাঁড়াতে হয় মানুষকেই। রক্তদান নিঃসন্দেহে মহৎ ও মানবিক। তবে এর সাথে নানান জটিল দুরারোগ্য ব্যাধী থেকে বাঁচার উপায়ও হলো নিয়মিত রক্তদান।

আগামী ১৪ জুন বিশ্ব রক্তদাতা দিবস। ডব্লিউএইচও এ বছরের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করেছে, 20 years of celebrating giving: thank you blood donors! সহজ বাংলা করলে দাঁড়ায়- ‘দিবস উদযাপনের ২০ বছর: ধন্যবাদ হে রক্তদাতা!’।

যারা স্বেচ্ছায় ও বিনামূল্যে রক্তদান করে লাখ লাখ মানুষের প্রাণ বাঁচাচ্ছেন তাদেরসহ সাধারণ জনগণকে রক্তদানে উৎসাহিত করাই এই দিবসের উদ্দেশ্য। ১৯৯৫ সাল থেকে আন্তর্জাতিক রক্তদান দিবস পালন এবং ২০০০ সালে ‘নিরাপদ রক্ত’-এই থিম নিয়ে পালিত বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবসের অভিজ্ঞতা নিয়ে ২০০৪ সালে প্রথম পালিত হয়েছিল বিশ্ব রক্তদান দিবস। ২০০৫ সালে বিশ্ব স্বাস্থ্য অধিবেশনের পর থেকে প্রতিবছর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও এই দিবস পালনের জন্য তাগিদ দিয়ে আসছে। 

প্রতিবছর ৮ কোটি ইউনিট রক্ত স্বেচ্ছায় দান হয়, অথচ এর মাত্র ৩৮ শতাংশ সংগ্রহ হয় উন্নয়নশীল দেশগুলো থেকে, যেখানে বাস করে বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ৮২ শতাংশ মানুষ।

বিজ্ঞাপন
এ ছাড়া এখনো বিশ্বের অনেক দেশে মানুষের রক্তের চাহিদা হলে নির্ভর করতে হয় নিজের পরিবারের সদস্য বা নিজের বন্ধুদের রক্তদানের ওপর, আর অনেক দেশে পেশাদারি রক্তদাতা অর্থের বিনিময়ে রক্ত দান করে আসছে রোগীদের। 

বিশ্বের নানা দেশ থেকে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে জানা যায়, ‘নিরাপদ রক্ত সরবরাহের’ মূল ভিত্তি হলো স্বেচ্ছায় ও বিনামূল্যে দান করা রক্ত। কারণ তাদের রক্ত তুলনামূলকভাবে নিরাপদ এবং এসব রক্তের মধ্য দিয়ে গ্রহীতার মধ্যে জীবনসংশয়ী সংক্রমণ, যেমন এইচআইভি ও হেপাটাইটিস সংক্রমণের আশঙ্কা খুবই কম।

স্বেচ্ছায় ও বিনামূল্যে রক্তদানকারী আড়ালে থাকা সেসব মানুষের উদ্দেশে, এসব অজানা বীরের উদ্দেশে, উৎসর্গীকৃত ১৪ জুনের বিশ্ব রক্তদান দিবস। ১৪ জুন দিবসটি পালনের আরও একটি তাৎপর্য রয়েছে। এদিন জন্ম হয়েছিল বিজ্ঞানী কার্ল লান্ডষ্টাইনারের। এই নোবেলজয়ী বিজ্ঞানী আবিষ্কার করেছিলেন রক্তের গ্রুপ ‘এ, বি, ও,এবি’। রক্তদান মহৎ দান। রক্তদান করলে শরীরের কোন ক্ষতি হয় না। এমনিতেই রক্ত কণিকা নির্দিষ্ট সময় পর নষ্ট হয়ে যায়। তাই রক্ত দান করুন, রোগীর প্রাণ বাঁচান। এটাই মূলত প্রকৃত সেবা।

দাতা বা রক্তগ্রহীতাকে কোনো রকম ক্ষতির আশঙ্কায় না ফেলে রক্ত সংগ্রহ ও বিতরণসহ ৫টি রক্তবাহিত ঘাতক রোগের জীবাণু বাধ্যতামূলকভাবে স্ক্রিনিং করাই নিরাপদ রক্ত পরিসঞ্চালনার প্রথম ধাপ। ডব্লিউএইচওর নিয়মানুযায়ী শতভাগ স্বেচ্ছারক্তদাতাদের রক্ত আহরণ, সংগৃহীত সব রক্তের বাধ্যতামূলক টিটিআই স্ক্রিনিং ও রক্তের যৌক্তিক ব্যবহার নিশ্চিতকরণই নিরাপদ রক্ত পরিসঞ্চালনের মূল উদ্দেশ্য। কম ঝুঁকিপূর্ণ রক্তদাতা থেকে রক্ত সংগ্রহ করে স্ক্রিনিং পরীক্ষা বা কম্পোনেন্টে বিযুক্তকরণের মাধ্যমে রক্ত বা উপাদান পরিসঞ্চালন করাকে নিরাপদ রক্ত পরিসঞ্চালন বলা হয়। নিরাপদ রক্তদানে রক্তদাতার কোনো ক্ষতি হয় না। রক্ত গ্রহণ করে রক্তগ্রহীতার দেহে তাৎক্ষণিক বা দেরিতে পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া দেখা দেবে না বা গ্রহীতা ক্ষতিগ্রস্ত হবে না সেটাই নিরাপদ রক্ত বা রক্ত উপাদান।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিসিটি ইউনিটের মতে, নিরাপদ রক্ত পরিসঞ্চালন কর্মসূচির ৪টি লক্ষ্য রয়েছে। ১. নিরাপদ রক্ত সংস্থান ২. নিরাপদ রক্ত সহজলভ্য, ৩. নিরাপদ রক্ত সংস্থায় পাওয়া এবং ৪. সমন্বিত ও যৌক্তিক ব্যবহার নিশ্চিত করা। নিরাপদ রক্ত পরিসঞ্চালন কর্মসূচির ৩টি কৌশলের মধ্যে রয়েছে ১. শতভাগ স্বেচ্ছা রক্তদানে রক্ত সংগ্রহ করা, ২. সংগৃহীত রক্তের সব স্ক্রিনিং নিশ্চিতভাবে করা এবং ৩. উপাদানভিত্তিক যৌক্তিক ব্যবহার নিশ্চিত করা।

রক্তদানের নানামুখী উপকারিতা:

রক্তদানের প্রথম এবং প্রধান কারণ হলো একজনের দানকৃত রক্ত আরেকজন মানুষের জীবন বাঁচাবে।

রক্তদান স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী দিক। রক্তদান করার সঙ্গে সঙ্গে শরীরের মধ্যে অবস্থিত ‘বোন ম্যারো’ নতুন কণিকা তৈরির জন্য উদ্দীপ্ত হয় এবং রক্তদানের ২ সপ্তাহের মধ্যে নতুন রক্তকণিকার জন্ম হয়ে ঘাটতি পূরণ হয়ে যায়। বছরে ৩ বার রক্তদান আপনার শরীরে লোহিত কণিকাগুলোর প্রাণবন্ততা বাড়িয়ে তোলার সাথে সাথে নতুন কণিকা তৈরির হার বাড়িয়ে দেয়। উল্লেখ্য রক্তদান করার মাত্র ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই দেহে রক্তের পরিমাণ স্বাভাবিক হয়ে যায়।

আরেক গবেষণায় দেখা যায়, যারা বছরে দুই বার রক্ত দেয়, অন্যদের তুলনায় তাদের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কম থাকে। বিশেষ করে ফুসফুস, লিভার, কোলন, পাকস্থলী ও গলার ক্যান্সারের ঝুঁকি নিয়মিত রক্তদাতাদের ক্ষেত্রে অনেক কম পরিলক্ষিত হয়েছে। চার বছর ধরে ১২০০ লোকের ওপর এ গবেষণা চালানো হয়েছিলো।

নিয়মিত স্বেচ্ছায় রক্তদানের মাধ্যমে নিজের শরীরে বড় কোনো রোগ আছে কিনা তা বিনা খরচে জানা যায়। যেমন : হেপাটাইটিস-বি, হেপাটাইটিস-সি, সিফিলিস, এইচআইভি (এইডস) ইত্যাদি। প্রতি পাইন্ট (এক গ্যালনের আট ভাগের এক ভাগ) রক্ত দিলে ৬৫০ ক্যালরি করে শক্তি খরচ হয়। অর্থাৎ ওজন কমানোর ক্ষেত্রেও এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।রক্তদান উচ্চরক্তচাপ কমায়,মানুষ এবং সমাজের উপকারের স্বার্থে রক্তদান অন্যতম কর্তব্য। রক্তদানের মাধ্যমে নিজের শরীর ঠিক থাকে এবং অন্যের জীবন বাঁচে।

রক্তদানে নানারকম শারীরিক লাভ হয়। মেরুমজ্জার রিজুভিনেশন বা স্টিমুলেশন, হৃদরোগ বা স্ট্রোকের ঝুঁকি কমবে। ক্ষতিকর কোলেস্টেরল কমা, বয়স বৃদ্ধির প্রক্রিয়া থমকে যাওয়া।

রক্তদানের সাথে হৃদরোগ ঝুঁকি কমানো নিয়ে পরীক্ষা চালাচ্ছিলেন একদল গবেষক। তারা ২০ বছর ধরে নির্দিষ্ট রক্তদাতাদের অবজার্ভ করেন।

এই পরীক্ষায় হৃদরোগের চেয়েও ক্যান্সারের ফলাফল দেখে তারা বেশি বিস্মিত হন। গবেষণায় দেখা যায়, রক্তদাতাদের ক্যান্সারের ঝুঁকি ৩৭% পর্যন্ত নেমে গেছে।

আর যাদের ক্যান্সার হয়েছে, তাদের মৃত্যুর হার তুলনামূলকভাবে কম। এই ফলাফলে বিস্ময় প্রকাশ করে ন্যাশনাল ক্যান্সার ইন্সটিটিউট জার্নাল (Journal of the National Cancer Institute)।

এক রিপোর্টে তারা বলেন, “results almost seem to be too good to be true.”. এ থেকে তারা উপসংহার টানেন যে, ৬ মাসের মধ্যে শুধু একবার রক্ত দান করলেই ক্যান্সারের ঝুঁকি কমে আসে।

স্বেচ্ছায় রক্তদানের  পেশাদার রক্ত বিক্রেতাদের নির্ভরশীলতা ও রক্ত নিয়ে ব্যবসা কমানো, ঘাতক রোগের বিস্তার কমানোসহ, সামাজিক বন্ধন বাড়েস্বর্গীয় আনন্দের অনুভূতি উপভোগ করা যায় রক্তদানের মাধ্যমে। রক্তদানের  অর্থনৈতিক লাভও রয়েছে রক্তদানে। নিচখরচায় চেকআপ, পরামর্শ বা চিকিৎসা প্রাপ্তির সুযোগ, নিয়মিত রক্তদান ওষুধ ছাড়া চিকিৎসা পদ্ধতি ।

আর এই পুরো প্রক্রিয়া আসলে শরীরের সার্বিক সুস্থতা, প্রাণবন্ততা আর কর্মক্ষমতাকেই বাড়িয়ে দেয়। তবে রক্তদানের এ উপকারগুলো আসলে তারাই পাবেন যারা নিয়মিত রক্তদান করেন।

রক্ত দেয়া কেন প্রয়োজন?

দুর্ঘটনায় আহত, ক্যান্সার বা অন্য কোন জটিল রোগে আক্রান্তদের জন্য, অস্ত্রোপচার কিংবা সন্তান প্রসব অথবা থ্যালাসেমিয়ার মতো বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় রক্ত সঞ্চালনের প্রয়োজন হয়।

দেশে বছরে আট থেকে নয় লাখ ব্যাগ রক্তের চাহিদা থাকলেও রক্ত সংগ্রহ হয় ছয় থেকে সাড়ে ছয় লাখ ব্যাগ।

তবে বাংলাদেশে জনসংখ্যার তুলনায় রক্তদাতার সংখ্যা এখনো নগণ্য।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী দেশে বছরে আট থেকে নয় লাখ ব্যাগ রক্তের চাহিদা থাকলেও রক্ত সংগ্রহ হয় ছয় থেকে সাড়ে ছয় লাখ ব্যাগ। ঘাটতি থাকে তিন লাখ ব্যাগের বেশি।

এছাড়া সংগ্রহকৃত রক্তের মাত্র ৩০ শতাংশ আসে স্বেচ্ছায় রক্তদাতাদের থেকে। নিজের পরিবারের সদস্য বা পরিচিতজন না হলে এখনো বেশিরভাগ মানুষ রক্তের জন্য নির্ভর করেন পেশাদার রক্তদাতার ওপর।

রক্তের অভাবের কারণে প্রতিবছর বহু রোগীর প্রাণ সংকটের মুখ পড়ে। এক ব্যাগ রক্ত দিতে সময় লাগে মাত্র ১০ থেকে ১২ মিনিট। এই অল্প সময়ে চাইলেই একজনের প্রাণ বাঁচানো সম্ভব।

থ্যালাসেমিয়া রোগীদের ভোগান্তি বেশি

থ্যালাসেমিয়া একটি জন্মগত রক্তের রোগ। মা-বাবার মধ্যে কেউ বা দুজনেই থ্যালাসেমিয়া রোগী বা এ রোগের বাহক হলে সন্তান এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে।  স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে প্রতি বছর প্রায় ৫ হাজার শিশু থ্যালাসেমিয়া নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। 

এর মানে প্রতিদিন ২০টিরও বেশি শিশু এই রোগ নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। এই শিশুদের কেবলমাত্র বেঁচে থাকার জন্যই তাদের শরীর থেকে অতিরিক্ত আয়রন অপসারণ করতে মাসিক রক্ত সঞ্চালন এবং চিলেশন থেরাপির প্রয়োজন হয়।

নিরাপদ রক্ত সঞ্চালন একটি বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়ানোয় বর্তমানে বাংলাদেশের বেশিরভাগ থ্যালাসেমিয়া রোগী পর্যাপ্ত চিকিৎসা পান না।

থ্যালাসেমিয়ার চিকিৎসা কী?

মেজর থ্যালাসেমিয়ার রোগীকে নিয়মিত বিরতিতে রক্ত দিতে হয়। তা না হলে তাকে বাঁচানো মুশকিল। এর সঙ্গে বারবার লোহিত কণিকা ভেঙে যাওয়ার কারণে এবং বারবার রক্ত দেওয়ার জন্য এদের শরীরে অতিরিক্ত আয়রন বা লৌহ জমে যায়। অতিরিক্ত আয়রন বিভিন্ন অঙ্গে বিশেষ করে গ্রন্থিগুলোতে জমে গেলে সেই গ্রন্থির কার্যকারিতা নষ্ট হয়। এজন্য আয়রনযুক্ত খাবার বা আয়রন বড়ি এড়িয়ে চলা দরকার। প্রয়োজনে নিয়মিত রক্ত থেকে আয়রন নিষ্কাশন করার দরকার পড়ে। অনেক সময় প্লীহা কেটে ফেলে দিতে হয়। তবে অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপন বা বোন ম্যারো ট্রান্সপ্লান্ট হলো এর নিরাময়ে একমাত্র চিকিৎসা।

থ্যালাসেমিয়া প্রতিরোধ সম্ভব

মাইনর থ্যালাসেমিয়া বাহকদের অনেকেই এই সমস্যার উপস্থিতি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল নন। ফলে দুজন আক্রান্ত জিনের অধিকারী বা দুজন বাহকের মধ্যে বিয়ে হলে তাঁদের সন্তান মারাত্মক থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত হতে পারে। মৃদু মাত্রার রক্তস্বল্পতা হলেও অকারণে আয়রন বড়ি না খেয়ে রক্তস্বল্পতার কারণ খুঁজে দেখা দরকার। দম্পতির কেউ বাহক হলে গর্ভধারণের আগেই কিছু ব্যবস্থা নেওয়া যায়। দুজনেই বাহক হলে যথাযথ কাউন্সেলিংয়ের দরকার।

শরীর ও মন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

শরীর ও মন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status