ঢাকা, ২৫ জুন ২০২৪, মঙ্গলবার, ১১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৮ জিলহজ্জ ১৪৪৫ হিঃ

বাংলারজমিন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কেন্দ্রের ভেতরে অন্য খেলা

জাবেদ রহিম বিজন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে
২২ মে ২০২৪, বুধবার

ভোটের শুরু থেকেই কেন্দ্র ফাঁকা। সুনসান নীরবতা কেন্দ্রের সামনের মাঠে। ভোটারদের দাঁড়ানোর জন্য বাঁশ দিয়ে করা সারিতে কেউ নেই। কিন্তু ভেতরে চলতে থাকে অন্য খেলা। সক্রিয় জাল ভোটার। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ে জালভোটের প্রয়োগ। গতকাল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার নির্বাচনে কর্তব্যরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা ২০ জন জাল ভোটারকে সাজা দিয়েছেন। নির্বাচন প্রহসনমূলক হয়েছে বলে অভিযোগ করেন প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান প্রার্থী আনারস প্রতীকের রাশেদুল কাওসার ভূইয়া জীবন। তিনি ২০টি কেন্দ্র থেকে তার এজেন্টদের মারধর করে বের করে দেয়ার অভিযোগ করেন। এসব বিষয়ে অভিযোগ করে কোন প্রতিকার পাননি বলেও জানান।

বিজ্ঞাপন
অন্যদিকে আখাউড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটার আনতে একটি কেন্দ্রের পাশের মসজিদ থেকে মাইকিং করা হয়। এই উপজেলাতেও ছিলো জাল ভোটারদের দৌরাত্ম্য। 

কুটির অটল বিহারী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে সকাল সোয়া ৯টায় একজন নারী ভোটারকে প্রিজাইডিং কর্মকর্তার টেবিলেই প্রকাশ্যে ব্যালটে সিল মারতে দেখা যায়। প্রিজাইডিং কর্মকর্তা ব্যালট ছিঁড়ে তার হাতে দেয়ার আগেই প্রকাশ্যে চেয়ারম্যান প্রার্থী ছাইদুর রহমান স্বপনের কাপপিরিচ প্রতীকে এবং ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. শফিকুল ইসলামের চশমা প্রতীকে সিল মারা হয়। কেন্দ্রটি এ অবস্থা চলার সময় প্রিজাইডিং অফিসার আমজাদ হোসেন দোতলায় বসে ছিলেন। কেন্দ্রটিতে ভোটের পুরো সময়ে এই চিত্রই ছিলো। খাড়েরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার জুয়েল মিয়া দরজা বন্ধ করে ভেতরে চুপচাপ বসে ছিলেন। কেন্দ্রটির বুথে বুথে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী শফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে সক্রিয় দেখা যায় জাল ভোটারের একটি দলকে। খাড়েরা সোনারগাঁও মাদ্রাসা কেন্দ্রেও ছিলো জাল ভোটারের দৌরাত্ম্য। প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান প্রার্থী রাশেদুল কাওসার ভূইয়া জীবন অভিযোগ করেন ২০টি কেন্দ্র থেকে তার এজেন্টদের বের করে দেয়া হয়েছে। মান্দারপুর, কুটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, অটল বিহারী উচ্চ বিদ্যালয়, লেশিয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শিমরাইল সাতপাড়া, মধ্যপাড়া, উত্তরপাড়া, মেহারী, খেওড়া, ধ্বজনগরসহ ২০টি কেন্দ্রে গিয়ে তিনি ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ পাননি। এসব কেন্দ্র থেকে তার এজেন্টদের বের করে দেয়া হয়েছে। কিন্তু নির্বাচন প্রশাসনের কারো কাছেই অভিযোগ করে প্রতিকার পাননি। নির্বাচন প্রহসনমূলক হয়েছে অভিযোগ করে নির্বাচন স্থগিতের দাবি করেন তিনি। রাশেদুল কাওসার ভূইয়া জীবন আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হকের সাবেক এপিএস এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তার প্রতিদ্বন্দ্বী ছাইদুর রহমান স্বপন মন্ত্রীর আপন ফুফাতো ভাই। মন্ত্রী ভোটের শুরু থেকে নিরপেক্ষ থাকার কথা বললেও তার দুজন ব্যক্তিগত সহকারী এবং দলের অধিকাংশ নেতাকর্মী, জনপ্রতিনিধি তার ফুফাতো ভাই স্বপনের পক্ষে সক্রিয় ছিলেন। 

ওদিকে আখাউড়ার একটি কেন্দ্রে ভোটের জন্য মাইকিং করা হয়েছে। মোগড়া দক্ষিণ জামে মসজিদ থেকে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কেন্দ্রে এসে ভোট দেয়ার জন্যে মাইকিং করা হয়। ওই সময়ে কেন্দ্রটিতে ভোট পড়ে প্রায় ৩০০। ভোটার না থাকার সুযোগে উপজেলার অনেক কেন্দ্রে জাল ভোট দেয়ার অভিযোগ রয়েছে। আখাউড়ার নূরপুর-রুটি আবদুল হক উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে সকাল সাড়ে ৯টায় ফাঁকা ভোটের সারি চোখে পড়ে। ২/১ জন করে ভোটার আসছেন। তবে মহিলা ভোটার উপস্থিতি ছিলো প্রায় শূন্য। ৪৮৬১ ভোটের এই কেন্দ্রে সকাল সাড়ে ৯ টা পর্যন্ত ভোট পড়ে ২৭৬ টি। এরমধ্য মহিলাদের ৬টি বুথে ভোট পড়ে ৪৮টি। সবচেয়ে কম ভোট পড়েছে ৪ নম্বর বুথে ৩টি। ৩ নম্বর বুথে ৫টি। ওদিকে পুরুষ ভোট কেন্দ্রে জাল ভোট দেয়ার অভিযোগ নূরপুর গ্রামের হাসেম। ৭ নম্বর বুথে ভোট দিতে এলে জানানো হয় তার ভোট দেয়া গেছে। বুথের পুলিং অফিসার সাবিকুন্নাহারের দাবি, হাসেম ভোট দিয়েছেন। কিন্তু হাসেমের হাতে ভোটের কোন চিহ্ন নেই। সাবিকুন্নাহারের সাথে সুর মিলান আনারসের এজেন্ট সালমান হোসেন ভূইয়া। তবে এর প্রতিবাদ করেন ঘোড়া প্রতীকের এজেন্ট আনোয়ার।  কেন্দ্রে দেখা মিলে চেয়ারম্যান প্রার্থী মুরাদ হোসেন ভূইয়ার। তিনি জানান, ভালোই চলছে ভোট। তবে কেন্দ্রে ঢোকার প্রধান গেটে মানুষের জটলা। কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার সালেহ আহমেদ জানান, ভোটার কেন আসছে না তাতো বলতে পারবো না। দেবগ্রাম পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে ভোট গ্রহণের কিছু সময় পর ব্যালট বাক্স ছিনতাই হয়। পরে পুলিশ অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করে। 

এদিকে ২ উপজেলায় মোট ২২ জনকে জাল ভোট দেয়ার জন্যে সাজা দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা। এরমধ্যে ২০ জন কসবার। আকছিনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে জাল ভোট দিতে এসে ধরা পড়ে আকছিনা গ্রামের কচুয়াপাড়ার ময়নাল হকের ছেলে মো. সজিব (২২)। সে জাল ভোট দেয়ার কথা স্বীকার করলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজী তাহমিনা শারমীন তাকে ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন। কেন্দ্রটিতে জাল ভোট দেয়ার অভিযোগ পেয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে বিজিবি ও পুলিশের একটি টিম সেখানে গেলে হাতনাতে ধরা পড়ে সজিব। বাদৈর ইউনিয়নের হাতুড়াবাড়ি কেন্দ্রে ৮ জনকে সাজা দেয়া হয়। কসবা ও আখাউড়া উপজেলা নির্বাচনের রিটানিং কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম জানান, নির্বাচন ভালো হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা মতোই নির্বাচন হয়েছে।

 

পাঠকের মতামত

Same like Jaintapur Upozila, Sylhet

Baasit
২২ মে ২০২৪, বুধবার, ৯:৪০ অপরাহ্ন

বাংলারজমিন থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

বাংলারজমিন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status