ঢাকা, ২৩ মে ২০২৪, বৃহস্পতিবার, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

শেষের পাতা

জীবন-স্বপনের লড়াইয়ে নীরব মন্ত্রী, তবে-

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি
১৫ মে ২০২৪, বুধবার
mzamin

একদিকে আপন ফুপুর ছেলে, অন্যদিকে ঘনিষ্ঠ সহচর। এই গ্যাঁড়াকলের মুখে কুলুপ এঁটেছেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক এমপি। নিজের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নীরব দর্শক হিসেবেই আছেন তিনি এখন পর্যন্ত। তবে তার ব্যক্তিগত দুই স্টাফ নির্বাচনে মাথা ঢুকিয়েছেন বলে অভিযোগ করছেন প্রতিদ্বন্দ্বী এক প্রার্থীর সমর্থকরা।

কী হবে কসবা উপজেলা নির্বাচনে, মন্ত্রী কাকে বেছে নেবেন এমন আলোচনা ভোটের লড়াইয়ের শুরু থেকে। প্রকাশ্যে নীরব ভূমিকায় থাকলেও আখেরে তিনি কোনো ইশারা দেন কিনা তা নিয়েও আলোচনা থেমে নেই। দ্বিতীয় ধাপে ২১শে মে ভোট আলোচিত এই উপজেলায়। প্রচার-প্রচারণা, প্রতিদ্বন্দ্বিতার হিসাবনিকাশ, হুমকি-ধমকি, আর নানা আলোচনাতে সরব উপজেলার চারদিক।

নির্বাচনে কাগজপত্রে ৩ প্রার্থী হলেও প্রতীক বরাদ্দের পর সরে দাঁড়িয়েছেন এক প্রার্থী। লড়াই সীমাবদ্ধ এখন দু’জনে। তারা হচ্ছেন বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মো. রাশেদুল কাউসার ভূঁইয়া জীবন (আনারস) আর ছাইদুর রহমান স্বপন (কাপ-পিরিচ)। এরমধ্যে ছাইদুর রহমান স্বপন মন্ত্রীর আপন ফুপুর ছেলে।

বিজ্ঞাপন
আর জীবন মন্ত্রীর ২৫ বছরের সঙ্গী। অবশ্য তাদের লড়াইয়ে বিভক্ত দলের নেতাকর্মী, ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যরা। পৌরসভার বর্তমান ও সাবেক মেয়র আছেন দু’দিকে। হুমকি-ধমকিতে আছে উত্তাপ-উত্তেজনাও।

নির্বাচনের শুরু থেকে রাশেদুল কাউসার ভূঁইয়া জীবনের সমর্থকরা অভিযোগ করছেন, জীবনের পক্ষের লোকজনকে নানাভাবে হুমকি-ধমকি দেয়া হচ্ছে। কোথাও কোথাও প্রচারণা চালাতে বাধা দেয়া হচ্ছে। মাইক কেড়ে নেয়া হচ্ছে। গত ৩রা মে বিনাউটি ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মো. কবির হোসেন তার এলাকার পশ্চিম পাড়ার এক সভায় ভোটের দিন কেন্দ্রে ব্যাগে ভরে অস্ত্র নিয়ে যাওয়ার এবং ছাইদুর রহমানকে ৫০০ ভোটে জয়ী করার আহ্বান জানান। জীবন ও তার সমর্থকরা অভিযোগ করেন, পৌরসভার মেয়র এমজি হাক্কানী, বিনাউটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বেদন, বায়েক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিল্লাল, মেহারী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শিমরাইল গ্রামের আলম, কাইয়ুমপুরের রনি, শাহপুরে জেলা পরিষদ সদস্য আবদুল আজিজ, গোপীনাথপুর গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক আমজাদ, কসবা পশ্চিমের মানিক চেয়ারম্যান নানা হুমকি-ধমকিতে ভোটারদের তটস্থ করছেন। বলছেন, ১৪ তারিখের পর অপারেশন শুরু হবে। ১০টার পর কেন্দ্র দখল করে সব ভোট কেটে নেয়া হবে। শিমরাইলের আলম মিয়া, মো. নেছার মিয়া, মো. বাবুল মিয়াসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে কসবা থানায় একটি অভিযোগও দেয়া হয়েছে। গত ৪ঠা মে ওই গ্রামে প্রচারণা চালাতে গিয়ে হামলার শিকার হন জীবনের সমর্থক মো. আরিফ মিয়া (২৮) ও মো. তানভীর (২০)। প্রচারণায় তাদের ব্যবহৃত পিকআপ ভ্যান ভাঙচুর করে ২ লাখ টাকার এবং প্রচারযন্ত্র ভেঙে ২৬ হাজার টাকার ক্ষতি করা হয়। এসব কারণে সুষ্ঠু ভোট নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেন তারা।

মন্ত্রীর ব্যক্তিগত স্টাফ বাবু ও সোহাগ প্রতিদ্বন্দ্বী এক প্রার্থীর পক্ষে নানাভাবে সহযোগিতা করছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। তবে মন্ত্রী আনিসুল হক নিরপেক্ষ অবস্থানে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন দুই প্রার্থী। রাশেদুল কাউসার ভূঁইয়া জীবন বলেন, মন্ত্রী মহোদয় বলেছেন নির্বাচন সুষ্ঠু হবে। যারাই তার সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করেন তাদেরও তিনি জানাচ্ছেন কারও পক্ষে নন তিনি। তবে রাতের আঁধারে ব্যক্তিগত দুই স্টাফ সোহাগ ও বাবু মন্ত্রীর নাম ভাঙিয়ে লোকজনকে প্রেসার দিচ্ছে বলে অভিযোগ তার। বলেন, আমার পক্ষে যারা কাজ করে বা যারা আমার সমর্থক তাদের নানাভাবে হুমকি দেয়া হচ্ছে। মামলা দেয়ার ভয় দেখানো হচ্ছে। এ ছাড়া সোহাগ বিএনপি নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদেরকে স্বপনের পক্ষে কাজ করার জন্য বলছেন। উপজেলা বিএনপি’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইকলিল আজম ওপেন ছায়েদুর রহমান স্বপনের নির্বাচন করছেন। তিনি স্বপনের আপন ভগ্নিপতি। আমি চাই নির্বাচন সুষ্ঠু ও অবাধ হবে। ছায়েদুর রহমান স্বপন বলেন, মন্ত্রী তার মামাতো ভাই। তবে উনি নিরপেক্ষ। পরিষ্কার করেই সেটা বলে গেছেন। বলেছেন জনগণ যাকে ভালোবাসে তাকেই ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবে। আমরা দু’জনেই মন্ত্রীর কাছের লোক। আমি ভাই। আর ‘ও’ (জীবন) মন্ত্রীর এপিএস ছিল। ফলে প্রভাব খাটানোর কোনো সুযোগ নেই। বরং ‘ও’ মন্ত্রীকে ব্যবহার করে প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করে। হুমকি-ধমকি দেয়ার অভিযোগ মিথ্যা। এ জাতীয় কথাবার্তা সেই বলে। আমি জনগণে বিশ্বাসী। জনগণের কাছেই যাচ্ছি ভোটের জন্য।

তবে গত ৫ই এপ্রিল কসবা মসজিদে মন্ত্রী মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে যে বক্তব্য রাখেন তাও আলোচনায় রয়েছে। সেখানে তিনি সবাইকে যাকে ইচ্ছা ভোট দেয়ার আহ্বান জানান। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের নিশ্চয়তা দেন। বলেন, তিনি কারও পক্ষে নন।
 

শেষের পাতা থেকে আরও পড়ুন

আরও খবর

   

শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status