ঢাকা, ২২ মে ২০২৪, বুধবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ জিলক্বদ ১৪৪৫ হিঃ

বাংলারজমিন

গোয়াইনঘাটের স্পটগুলোতে পর্যটক দর্শনার্থীদের ঢল

মিনহাজ উদ্দিন, গোয়াইনঘাট (সিলেট) থেকে

(১ মাস আগে) ১৩ এপ্রিল ২০২৪, শনিবার, ১:২৭ অপরাহ্ন

mzamin

সিলেটের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে পর্যটকদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ করা যাচ্ছে। ঈদের ছুটিতে বরাবরের মতো এবারও পর্যটক, দর্শনার্থীদের ঢল নেমেছে সিলেটের গোয়াইনঘাটের পর্যটনকেন্দ্রগুলোতে। ঈদের দিন বৃহস্পতিবার থেকেই উপজেলার বিভিন্ন পর্যটন স্পটে ভিড় করেন ভ্রমণপ্রেয়সীরা,তবে এই দিন সিলেটসহ স্থানীয় পর্যটকের সংখ্যাই বেশি ছিলো।
গতকাল শুক্রবার ঈদের ২য় দিন সকাল থেকেই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা পর্যটক দর্শনার্থীমুখর হয় উঠে জাফলং,বিছনাকান্দি, রাতারগুল। তবে বিছনাকান্দি রাতুলগুলের তুলনায় পর্যটক উপস্থিতি বেশি ছিলো জাফলংয়ে। 
সবুজের আস্তরণে মেঘালয়ের বিস্তৃত চোখ জুড়ানো সবুজ টিলা,পাহাড়,বয়ে চলা স্বচ্ছ জলরাশি,নুড়িপাথরের কলতানের সৌন্দর্য অবলোকনের জন্য ভ্রমণে জাফলং ছুটে আসেন দর্শনার্থীরা। গ্রীষ্মের তাপদাহেও প্রকৃতি প্রেমিরা ছুটে এসেছেন প্রকৃতির কাছাকাছি। বরাবরের মতো  এবারও এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে তারা বিমুগ্ধ। পাহাড়, টিলার সাথে সাদা মেঘের লুকোচুরী। বর্ষা মৌসুমের শুরুতেই প্রকৃতি যেন সেজেছে তার আপন মহিমায়। আগন্তুকদের মধ্যে পরিবার-পরিজন আর বন্ধুবান্ধব নিয়ে ভ্রমণপিয়সীরা স্থানগুলো দর্শন করছেন। প্রতিটি স্পষ্টই লোকে লোকারণ্য।

বিজ্ঞাপন
প্রকৃতির এমন কাছাকাছি আসতে পেরে তারা খুশি। শুক্রবার দিনব্যাপী গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলং, বিছনাকান্দি, সোয়াম ফরেস্ট রাতারগুল ছাড়াও পানতুমাই ঝর্ণা, দেশের একমাত্র সমতল জাফলং চা বাগান ও মায়াবী ঝর্ণাতেও পর্যটকদের পদচারণা ছিলো চোখে পড়ার মতো।
তবে সব চাইতে বেশি পর্যটকের ভিড় ছিল জাফলং জিরো পয়েন্ট। যাদের বেশিরভাগ দর্শণার্থীই ছিলেন  উঠতি তরুণ-তরুণী। নদী, স্বচ্ছ জল, আর ভারতের মেঘালয়ের ওমঘট নদীর উপর ঝুলন্ত ব্রিজ, টিলা পাহাড়ের পাশাপাশি এখানকার খাসিয়া পল্লী, মায়াবী ঝরণাও মন কাঁড়ে ভ্রমণপ্রেয়সীদের। পর্যটক সমাগম বৃদ্ধি পাওয়ায় এখানকার হোটেল মোটেল রিসোর্টে কোন রুম খালি নেই আগামী ৪ দিন পর্যন্ত। অগণিত পর্যটকরা আগেই ফোন ও অনলাইনে বুকিং দিয়ে রেখেছেন সবকটি হোটেল মোটেল রিসোর্টের রুমগুলোতে। জাফলং জিরো পয়েন্টের আশপাশের সবকটি খাবার হোটেল রেস্টুরেন্টের জমজমাট বিকিকিনি চোখে পড়ে। এখানকার হোটেল রেস্টুরেন্টের মালিকরা জানিয়েছেন পর্যটক, দর্শনার্থীদের সমাগম বৃদ্ধি পাওয়ায় তাদের হোটেল রেস্টুরেন্টের বিকিকিনি বেড়েছে। পর্যটকদের কথা বিবেচনা করে সূলভ মূল্যে সব ধরনের খাবারের আয়োজন করা হয়েছে।  পর্যটকরাও তাদের রুচি অনুসারে পছন্দ সহকারে খাবার খাচ্ছেন।
রাজশাহী মোহনপুর থেকে ঘুরতে আসা পর্যটক জুলকারনাইন, ময়মনসিংহের ফুলপুর থেকে আসা পর্যটক সালাহ উদ্দিন, শরীয়তপুর নড়িয়া থেকে আসা পর্যটক মোঃ আনোয়ারুল করিম বলেন, প্রতিবারই ঈদের ছুটিতে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কোথাও না কোথাও ঘুরে বেড়াই। এবারও সবাই মিলে জাফলং ঘুরতে এসেছি। জাফলং আসলেই খুব সুন্দর জায়গা। টিলা,পাহাড়,স্বচ্ছ জলরাশী আর পাথরের সৌন্দর্য মুগ্ধ করেছে। তবে প্রখর রোদ আর গরমে একটু ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের বাসিন্দা  সিলেট সুনামগঞ্জ সড়কে চলা বাস দিগন্ত পরিবহনের পরিচালক সাইদুর রহমান  বলেন, জাফলংসহ গোয়াইনঘাটের সবকটি পর্যটন স্পটে ঈদে ভ্রমন পিপাসুদের ঢল নামে। এবারও ঠিক একই চিত্র। প্রায় ঈদেই পর্যটক নিয়ে আসি। জাফলং ও আশপাশের দর্শনীয় স্থান ঘুরে দেখাতে এবারও নিজ এলাকার ৫২জন শিক্ষার্থী নিয়ে এসেছি।  
জাফলং বল্লাঘাট পর্যটনকেন্দ্র ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সভাপতি হোসেন মিয়া জানান, ঈদ উপলক্ষে প্রচুর পর্যটক জাফলংসহ আশপাশের পিকনিক স্পটে বেড়াতে এসেছেন। আমাদের ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে সাথে সর্বোচ্চ সৌজন্যতা প্রদর্শন করে পর্যটন কেন্দ্রিক ব্যবসা চালিয়ে নেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।  
ঈদুল ফিতর উপলক্ষে উপজেলার সবক'টি পিকনিক স্পটে পর্যটক,দর্শনার্থীদের উপস্থিতি বৃদ্ধি পাওয়ায় পর্যটকদের নিরাপত্তায় উপজেলা প্রশাসন তরফে সার্বিক নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। 
টুরিস্ট পুলিশ,গোয়াইনঘাট থানা পুলিশ সদস্যরা কাজ করে যাচ্ছেন।
এ ব্যাপারে জাফলং টুরিস্ট পুলিশের ইনচার্জ মো. রতন শেখ জানান, ঈদুল ফিতরের ছুটিতে গতকাল থেকেই পর্যটকে মুখরিত জাফলং। আগত পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তায় ট্যুরিস্ট পুলিশের সদস্যরা কাজ করছে। গোয়াইনঘাট থানা অফিসার ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম বলেন, বেড়াতে আসা পর্যটকরা যাতে কোনভাবেই চুরি ডাকাতি ছিনতাই, মাদকসহ ভোগান্তিতে না পড়েন সেদিকে আমাদের নজর রয়েছে। পর্যটক দর্শনার্থীদের সার্বিক নিরাপত্তা বিবেচনা করে ইউনিফর্ম ও সাদা পোষাকের একাধিক টিম নিয়োজিত রয়েছে।  গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুল ইসলাম বলেন, জাফলং বিছনাকান্দি, রাতারগুলসহ গোয়াইনঘাটের পর্যটন স্পটে বেড়াতে আসা পর্যটক উপস্থিতি বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলা প্রশাসন তরফে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে প্রশাসন, পুলিশ বিভাগ আগত পর্যটকদের দোরগোড়ায় গিয়ে সেবা দিচ্ছে।

বাংলারজমিন থেকে আরও পড়ুন

   

বাংলারজমিন সর্বাধিক পঠিত

Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2024
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status