বাংলারজমিন

মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি

মৌলভীবাজারে নতুন করে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা

ইমাদ উদ দীন, মৌলভীবাজার থেকে

২০ জানুয়ারি ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৯:১২ অপরাহ্ন

 একদিনে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৮ জন। আর গেল ৪ দিনে জেলায় ৪০২ জনের মধ্যে ১১১ জনের শরীরে করোনা পজেটিভ হয়েছে। প্রবাসী ও পর্যটন অধ্যুষিত ভারত সীমান্তবর্তী মৌলভীবাজার জেলায় নতুন করে আবারো বেড়েই চলেছে করোনা আক্রান্তের পরিসংখ্যান। হঠাৎ করে করোনা আক্রান্তের পরিসংখ্যান বাড়ায় স্থানীয়দের উদ্বেগ উৎকণ্ঠা বাড়লেও নেই স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই। হাট-বাজারসহ জনসমাগমের স্থানগুলোতে ঠিক আগের মতোই দৃশ্য। সবস্থানেই স্বাস্থ্যবিধি উধাও। কোথাও নেই স্বাস্থ্য সুরক্ষার উপকরণ ও তা মানার দৃশ্য। গেল মাস থেকে চলছে শীতের প্রকোপ। ঠাণ্ডাজনিত রোগবালাইয়ে কাবু শিশু ও বয়স্করা। স্থানীয় আবহাওয়া কার্যালয় সূত্রে জানা যায় গেল মাস থেকে ৯ হতে ১৫ ডিগ্রির ভেতরে তাপমাত্রা ওঠানামা করছে। এরইসঙ্গে গেল কয়দিন থেকে হঠাৎ করে বেড়ে চলেছে কোভিড-১৯ আক্রান্তের পরিসংখ্যানও। বেশ কয়েক মাস পর জেলায় গতকাল একদিনে নতুন করে ৪৮ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায় গেল ৪ দিনে ৪০২ জনের মধ্যে ১১১ জনের শরীরে করোনা পজেটিভ হয়েছে। জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের দেয়া দৈনন্দিন প্রতিবেদনে জানা যায় ১৬ই জানুয়ারি ৭০ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৮ জনের শরীরে করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে। ওই দিনের আক্রান্তের হার ছিল ১১.৪ শতাংশ। ১৭ই জানুয়ারি ১০৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২৬ জনের শরীরে করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে। ওই দিনের আক্রান্তের হার ছিল ২৫.২ শতাংশ। ১৮ই জানুয়ারি ৯৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২৯ জনের শরীরে করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে। ওই দিনের আক্রান্তের হার ছিল ২৯.৯ শতাংশ। গতকাল ১৩২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৪৮ জনের শরীরে করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে। ওই দিনের আক্রান্তের হার ছিল ৩৬.৪ শতাংশ। গতকাল নতুন শনাক্ত ৪৮ জনের মধ্যে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নমুনা প্রদানকারীদের মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছে ২১ জনের। এর বাইরে কুলাউড়ায় ২৩ জন, রাজনগরে ২ জন, শ্রীমঙ্গলে ১ জন এবং জুড়ীতে ১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। গেল ২৪ ঘণ্টায় মৌলভীবাজার জেলায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৫ জন করোনা রোগী। নতুন ৪৮ জন নিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৮ হাজার ৩৪৫ জন। সুস্থ হয়েছেন ৭ হাজার ৪৮৭ জন। সরকারি হিসেবে মারা গেছেন ৭২ জন। তবে বেসরকারি হিসেবে নিহতের সংখ্যা শতাধিক। এদিকে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন রোধে জেলা প্রশাসন, জেলা পরিষদ, পৌরসভা, জেলা পুলিশ ও জেলার সবক’টি উপজেলা প্রশাসন গেল সপ্তাহে সচেতনতামূলক প্রচারণা ও জনগণের মাঝে মাস্ক এবং বিভিন্ন স্বাস্থ্য সুরক্ষাসামগ্রী বিতরণ করে। তবে চলতি সপ্তাহে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন আরও কঠোর হওয়ার কথা ঘোষণা দিলেও মাঠ পর্যায়ে তা দেখা যাচ্ছে না। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জরিপ অনুযায়ী করোনা আক্রান্তের ঝুঁকি বিবেচনায় ইয়ালো জোনে থাকা মৌলভীবাজার জেলায় এখন থেকে অধিক সচেতন না হলে সরকার ঘোষিত স্বাস্থ্যবিধির ১১ দফা না মানলে প্রবাসী পর্যটন ও সীমান্তবর্তী এ জেলা করোনার চরম ঝুঁকিতে পড়বে। জেলা সিভিল সার্জন ডা. চৌধুরী মো. জালাল উদ্দিন মুর্শেদ বলেন যেভাবে ক্রমান্বয়ে আক্রান্তের হার বাড়ছে স্বাস্থ্যবিধি না মানলে চরম ঝুঁকিতে পড়তে হবে। তিনি স্বাস্থ্যবিধি মানতে জেলাবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com