দেশ বিদেশ

ছিনতাইয়ের মামলা তুলে নিতে ব্যবসায়ীকে র‌্যাব পরিচয়ে অস্ত্র মামলা ও প্রাণনাশের হুমকি

স্টাফ রিপোর্টার

১৮ জানুয়ারি ২০২২, মঙ্গলবার, ৯:১০ অপরাহ্ন

রাজধানীর কেরানীগঞ্জের এক কাপড় ব্যবসায়ী ছিনতাই এবং মারধরের শিকার হয়েছেন। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ব্যক্তি কোতোয়ালি থানায় ছিনতাইয়ের মামলা করলে তা তুলে নিতে র‌্যাব সদস্য পরিচয়ে ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে অস্ত্র মামলা এবং তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হয়। বর্তমানে ওই ব্যবসায়ী জীবন শঙ্কায় ভুগছেন। এ ঘটনায় ব্যবসায়ী একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। এরপরও তাকে নিয়মিত হুমকি দেয়া হচ্ছে। ভুক্তভোগী কাপড় ব্যবসায়ী মেহেদী হাসান সোহেবের মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, পরিবারের সদস্যদের নিয়ে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের নাজিরাবাদ এলাকায় মনির মিয়ার বাড়ির ভাড়া বাসায় থাকেন। গত ৯ই জানুয়ারি সকাল ৮টায় ব্যবসার কাজে কোতোয়ালি থানাধীন সদরঘাটের ওয়াইজঘাটের সামনে পৌঁছালে জসিম, আমিন, নাজমুল এবং মনিরসহ আরও দুই থেকে তিনজন মিলে তার গতিরোধ করে।
এ সময় তাদের সঙ্গে থাকা একটি ধারালো চাকু দিয়ে প্রথমে সোহেবের গলায় আঘাত করে। তিনি সরে গেলে পুনরায় তারা এলপাতারি ছুরিকাঘাত ও মারধর করে। এতে সোহেবের গলার নিচে কেটে যায়। মারামারির একপর্যায়ে ছিনতাইকারীরা ব্যবসায়ীর সঙ্গে থাকা একটি স্বর্ণের আংটি, ব্রেসলেট এবং নগদ ৫ হাজার টাকা নিয়ে যায়। স্থানীয় মানুষের সহায়তায় সোহেব স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। পরবর্তীতে স্থানীয়দের মাধ্যমে ছিনতাইকারীদের বিস্তারিত পরিচয় জেনে তাদের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় গত ১০ই জানুয়ারি মামলা করেন। মামলা নং ১৩।  
মেহেদী সোহেব বলেন, গত ১২ই জানুয়ারি দুপুর ২:৩০ মিনিটে সুবজ নামে এক ব্যক্তি নিজেকে র‌্যাব-১০ এর সদস্য পরিচয় দিয়ে মামলা তুলে নিতে বিভিন্ন ধরনের হুমকি দেয়। পরবর্তীতে ছিনতাইয়ের মামলার এজাহার নামীয় প্রধান আসামি জসিমসহ অন্য আসামিদের নামে হওয়া মামলা তুলে নিতে চাপ সৃষ্টি করে। মামলা তুলে না নিলে ব্যবসায়ী সোহেবকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হয়। পরবর্তীতে তাকে বাসা থেকে তুলে নিয়ে তার নামে অস্ত্র মামলা দেয়া হবে বলে হুমকি দেয়। এ ঘটনার পর সোহেব তার জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে গত রোববার কোতোয়ালি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ব্যবসায়ী সোহেব বলেন, বর্তমানে আমি কেরানীগঞ্জের বাসায় একপ্রকার গৃহবন্দি জীবনযাপন করছি। কখন আমাকে তুলে নিয়ে যায় এই ভয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেও যেতে পারছি না। তিনিই পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি।
এ ঘটনায় অভিযুক্ত র‌্যাব সদস্য পরিচয় প্রদানকারী সবুজ মানবজমিনকে বলেন, মামলার প্রধান আসামি জসিম তার ব্যক্তিগত সোর্স। জসিমের কাছে মামলার বিষয়টি জেনে বাদী সোহেবকে আমার সঙ্গে দেখা করতে বলেছি। আমাদের মধ্যে সামান্য একটি ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। সেটা সমাধান করতে আমি তাকে দেখা করতে বলেছি। তাকে কোনো হুমকি প্রদান করা হয়নি। এ বিষয়ে জানতে কথা হয় র‌্যাব-১০ এর কর্মকর্তা মেজর শাহরিয়ারের সঙ্গে। তিনি বলেন, ব্যবসায়ীর অভিযোগের বিষয়ে এখনো আমরা নিশ্চিত নই। ঘটনাটি আমরা খতিয়ে দেখছি। হুমকি প্রদানকারী ব্যক্তি র‌্যাব সদস্য না কি ভুয়া র‌্যাবের পরিচয়ে তাকে হুমকি প্রদান করছে কি না সেটাও দেখা হচ্ছে। এ বিষয়ে ওই ব্যবসায়ী যদি অভিযোগ করেন এবং প্রয়োজনীয় সাক্ষ্য প্রমাণ থাকে তাহলে অপরাধীকে খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানান তিনি। ছিনতাই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক রাজিব মিয়া বলেন, এ বিষয়ে একটি সাধারণ ডায়েরি হয়েছে। তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানা যাবে।
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com