খেলা

সাবেক গুরুকে পেয়ে আপ্লুত মাশরাফিরা

সাবেক গুরুকে পেয়ে আপ্লুত মাশরাফিরা

১৮ জানুয়ারি ২০২২, মঙ্গলবার, ৯:০৫ অপরাহ্ন

xমিরপুর শেরেবাংলার একাডেমি মাঠ এখন ক্রিকেটারদের পদচারণায় ভারি। শুরু হয়েছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের দলগুলোর অনুশীলন। যা ধীরে ধীরে পরিণত হয়েছে  কোচ-ক্রিকেটারদের মিলন মেলায়। করোনা মহামারির কারণে এক বছর মাঠে গড়ায়নি বিপিএল। এরই মধ্যে অনেক ক্রিকেটারই ছিলেন মাঠের বাইরে। খেলা হলেও সবার সঙ্গে দেখা বা আড্ডা দেয়ারও সুযোগ তেমন ছিল না। তবে সেই সুযোগ করে দিয়েছে ঘরোয়া ক্রিকেটের এই সীমিত ফরম্যাটের জাঁকজমকপূর্ণ এই আসর। গতকাল দেশের ক্রিকেটাররা পান  সৌজন্য ও সৌহার্দ প্রকাশের দারুণ উপলক্ষ। এদিন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের অনুশীলনে দলটির পরামর্শক হিসেবে হাজির হন টাইগারদের সাবেক সফল কোচ স্টিভ রোডস। তাকে  দেখে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন সেই সময় কোচের অন্যতম সৈনিক মাশরাফি বিন মুর্তজা।  দেশের সাবেক ওয়ানডে অধিনায়ক সাবেক গুরুকে কাছে পেয়ে মেতে ওঠেন দারুণ আড্ডায়। তার সঙ্গে সেখানে যোগ দেন মাহমদুল্লাহ রিয়াদ, মোস্তাফিজুর রহমানরা। কোচও তার শিষ্যদের সঙ্গে মেতে ওঠেন প্রাণবন্ত আড্ডায়। কুমিল্লা দলের প্রধান কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন। তাই রোডসের ভূমিকা কি হবে তা নিয়ে শুরু হয় জল্পনা-কল্পনা। তবে দলটির প্রধান কোচই জানিয়ে দেন রোডসের ভূমিকা। সালাউদ্দিন বলেন, ‘(রোর্ডস) উনি একজন অভিজ্ঞ কোচ, বাংলাদেশের হেড কোচ ছিলেন এবং অন্যতম সফল কোচ ছিলেন। তার মাথা থেকে অনেক কিছু আসতে পারে। সে আমাদের পরামর্শক হিসেবে আশা করি অনেক ভালো কিছু দিতে পারবে। স্পেশালি আমি মনে করি, অনেক কিছু শিখতে পারবো।’

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সে রোডস যোগ দেয়ার পর থেকেই শুরু হয়ে গুঞ্জন। কেউ কেউ বলছেন প্রধান কোচ সালাউদ্দিনের সঙ্গে তৈরি হতে পারে দ্বন্দ্ব। তবে রোডসকে পেয়ে আপ্লুত সালাউদ্দিনও। তিনি বলেন, ‘সে একজন জেন্টেলম্যান, খুবই ভালো মানুষ। সে কিন্তু প্রথমে এসেই নিজের কাজটা বুঝে নিয়েছে। সে আমাকে অনেক ভালো পরামর্শ দিয়েছে। ভালো কিছু যদি হয়, তাহলে সেটা ভালোভাবেই নেয়া উচিত।’ বিপিএলে দেশি কোচ থেকে শুরু করে ক্রিকেটার- সবার সঙ্গেই বিদেশিদের বেশ অর্থ বৈষম্য। বিশেষ করে দেশি কোচদেরকে অনেক স্বল্প সম্মানিই দেয় দলগুলো। এ নিয়ে সামালোচনার শেষ নেই। এমন বেতন বৈষম্য নিয়ে সোচ্চার  কোচ সলাউদ্দিন। তবে এবার কুমিল্লার দেয়া সম্মানি নিয়ে তিনি সন্তুষ্ট। তিনি বলেন, ‘আমারটা ভালো ক্যাটাগরিতেই আছে। চেষ্টা করবো আমার সঙ্গে থাকা অন্যদের ভালো স্যালারি দিতে। বিসিবি থেকে একটা গাইড লাইন দেয়া আছে। তার থেকেও হয়তো ভালো কিছু হবে।’

সিনিয়র ক্রিকেটারের অভাব ভাবাচ্ছে সালাউদ্দিনকে
অন্যদিকে বিপিএলের দুইবারের চ্যাম্পিয়ান দল কুমিল্লা। তবে এবার দলটির নেই দেশের সিনিয়র ক্রিকেটারদের কেউই। বিশেষ করে পঞ্চপান্ডব বলে খ্যাত মাশরাফি, তামিম, সাকিব, মাহমদুল্লাহ ও মুশফিক কেউ এই দলে খেলছেন না। তাদের অভাবকে বড় করেই দেখছেন দলটির প্রধান কোচ।  সিনিয়র ক্রিকেটারদের না থাকা নিয়ে সালাউদ্দিন বলেন, ‘আমি মনে করি যে সিনিয়র ক্রিকেটার থাকলে দলের জন্য অনেক ভালো হয়। ফরেন ক্রিকেটাদের সঙ্গে কমিউনিকেশনটা অনেক ভালো হয়। যেহেতু তারা ইন্টারন্যাশন্যাল ক্রিকেট অনেক বেশি খেলে। তারা অনেক টুর্নামেন্ট খেলে, জানাশুনা টা ভালো হয়। যেহেতু এবার আমাদের দলে নাই, তাই আমি চিন্তাও করছি না। কমিউনিকেশনের জায়গাটা কিভাবে বেটার করতে পারি তা নিয়ে কাজ করছি। অন্যান্য ফ্র্যাঞ্চাইজির মতো ফরেন প্লেয়ারদের আগে আনতে পারি নাই। এতে কমিউনিকেশন গ্যাপ থেকে যায়। সিনিয়র ক্রিকেটাররা থাকলে এ সমস্যা তাড়াতাড়ি সমাধান করতে পারে। এই জায়গাটায় একটু ল্যাকিংস থাকতে পারে, সেই জায়গাটা তাড়াতাড়ি ক্লিয়ার করে ফেলবো।’

বিপিএলের শুরু হতে মাত্র ৩ দিন বাকি। এখনো পুরো দল নিয়ে আনুষ্ঠানিক অনুশীলন শুরু করতে পারেনি কোন দলই। কুমিল্লার ক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম নয়। দল নিয়ে প্রধান কোচ বলেন, ‘আমাদের দলের ক্রিকেটাররা প্রচুর ম্যাচ খেলছে। তাদের ইনজুরিটাও দেখতে হবে। নিউজিল্যান্ডে যারা ছিল, তারাও বায়ো-বাবলে থাকতে থাকতে মানসিক অবস্থা খারাপ। তাদেরও রেস্ট দরকার।  অফিসিয়ালি হয়তো কালকে কাউকে পেতে পারি অথবা পরশু থেকে সবাইকে পেতে পারি।’

গুঞ্জন রয়েছে দলের অন্যতম ব্যাটিং ভরসা লিটন দাস ছুটিতে রয়েছে। তাকে পাওয়া যাবে না প্রথম দুই ম্যাচে। তবে এ বিষয়ে কোচ জানালেন এমন কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। তিনি বলেন, ‘লিটনের সঙ্গে এখনো আমার কথা হয়নি। ও ছুটিতে থাকবে কিনা সেটি এখনো নিশ্চিত নয়। আমরা আলোচনা করে ঠিক করবো।’ এছাড়া বিদেশি ক্রিকেটারদের দলে পাওয় নিয়ে সালাউদ্দিন বলেন, ‘ডু প্লেসি চলে আসছে। কালকে থেকে হয়তো মাঠে আসবে। সুনীল নারাইন আজ চলে আসবে। আর একজনের ফ্লাইট ক্যান্সেল হয়েছে। হয়তো ১৯ তারিখের মধ্যেই সবাই চলে আসবে।

২০১৮ সালে চন্ডিকা হাথুরুসিংহের বিদায়ের পর দুই বছরের জন্য বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব পান রোডস। তার অধীনে বাংলাদেশ প্রথম কোনো বহুজাতিক টুর্নামেন্টের শিরোপা জিতেছিল। আয়ারল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে সেবার তিন জাতির টুর্নামেন্টের শিরোপাটা এসেছিল বাংলাদেশের ঘরে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয়ও রোডসের বড় অর্জন। কিন্তু সাকিব-তামিমদের ২০১৯ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে তুলতে না পারার কারণে চাকরি যায় রোডসের। দক্ষিণ আফ্রিকা আর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুই জয়ে সেমিফাইনালের আশা জেগে উঠলেও পরে একের পর এক পরাজয় সে স্বপ্নভঙ্গ হয় টাইগারদের। শুধু আফগানিস্তানকেই হারাতে পারে বাংলাদেশ। অষ্টম স্থানে থেকে টুর্নামেন্ট শেষ করেন সাকিব-তামিমরা।
১৯৮১ সালে তিনি যখন ইয়র্কশায়ারে খেলোয়াড়ি জীবন শুরু করেন রোডস। তখন তিনি কাউন্টি ক্রিকেটে ইতিহাসের সবচেয়ে কম বয়সী উইকেটরক্ষক ছিলেন।

ইংল্যান্ডের হয়ে ১১ টেস্ট, নয়টি ওয়ানডে খেলেছেন রোডস। নব্বই দশকের মাঝামাঝি সময়ে তিনি ইংল্যান্ডের অন্যতম সেরা উইকেটরক্ষক ছিলেন। কিন্তু ব্যাটার হিসেবে নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি জাতীয় দলে। যে কারণে ইংল্যান্ড দলে তার ক্যারিয়ারটা লম্বা হয়নি।

জাতীয় দলে নিয়মিত না থাকলেও প্রায় ২০ বছর ইংলিশ কাউন্টিতে খেলেছেন রোডস। ১৯৯৪ সালে উইজডেন বর্ষসেরা ক্রিকেটারও হয়েছিলেন। ২০০৬ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত উরস্টারশায়ারের কোচ ও ডিরেক্টরের দায়িত্ব পালন করেছেন। বাংলাদেশকে কোচিং করানোর মধ্য দিয়েই জাতীয় দলের কোচ হিসেবে অভিষেক হয় রোডসের।
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com