অনলাইন

সামরিক সিস্টেমে ভারত-পাকিস্তানের অবস্থান যেমন

মানবজমিন ডিজিটাল

১৭ জানুয়ারি ২০২২, সোমবার, ৪:২২ অপরাহ্ন

ভারতের ভাঁড়ারে এসেছে নতুন  S-400 এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম।  যা ভারতের আত্মবিশ্বাস অনেকটা বাড়িয়ে দেবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।  তবে চিরশত্রু পাকিস্তানের সামরিক সম্ভারকে দুর্বল ভাবলে ভারত কিন্তু ভুল করবে সে বিষয়েও সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞরা। পাকিস্তান ভিত্তিক থিঙ্ক ট্যাঙ্ক সেন্টার ফর ইন্টারন্যাশনাল স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজের একজন সিনিয়র ফেলো মনসুর আহমেদ, যিনি দেশের পারমাণবিক কর্মসূচিরও একজন অন্যতম সদস্য বলেছেন , "ভারতীয়দের বিবৃতি থেকে একটি বিষয় জানা যায় যে S-400 কার্যকরভাবে তার আকাশসীমাকে দুর্ভেদ্য এবং তার বাহিনীকে অভেদ্য করে তোলে। যা পাকিস্তানের অনুপ্রবেশকে আটকাতে তাদের নিশ্চিত সাফল্য এনে দেবে বলে মনে করছে ভারত।  ''

S-400 এর বিশেষ বৈশিষ্ট্য

ভারতের পাঁচটি S-400 রেজিমেন্টের ডেলিভারি ২০২১ সালের ডিসেম্বরে ভারত-পাকিস্তান সীমান্তে প্রাথমিক স্থাপনার মাধ্যমে শুরু হয়েছিল।কাগজে-কলমে, S-400-এর প্রতিরক্ষামূলক — এবং সম্ভাব্য আক্রমণাত্মক —  ক্ষমতা ভয়ঙ্কর বলে মনে করা হয়। সিস্টেমটি বিমান, ইউএভি ,ব্যালিস্টিক এবং ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের বিরুদ্ধে কার্যকর বলে জানা গেছে। সম্ভাব্যভাবে পাকিস্তানের পারমাণবিক প্রতিরোধকেও প্রতিহত  করার ক্ষমতা রাখে। এটি  ৪০-কিলোমিটার-পাল্লার 9M96E, ১২০-কিলোমিটার-পাল্লার  9M96E2, ২৫০-কিলোমিটার-পাল্লার  48N6 এবং ৪00-কিলোমিটার-পাল্লার 40N6E ক্ষেপণাস্ত্রের সংমিশ্রণ দ্বারা নির্মিত , যা এটিকে বৃহৎ এলাকা রক্ষা করার ক্ষমতা প্রদান করে । এটি লক্ষ্যবস্তুকে নিজে থেকেই আক্রমণ করার ক্ষমতাসম্পন্ন। একটি নতুন অবস্থানে পৌঁছানোর ৫ মিনিট পরেই এটিকে  কার্যকর করা যেতে পারে এবং তাই শনাক্তকরণ এড়াতে নিয়মিতভাবে স্থানান্তর করা যেতে পারেS-400 কে। যাইহোক, ইন্টারন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ থিঙ্ক ট্যাঙ্কের মহাকাশ বিশেষজ্ঞ ডগলাস ব্যারি, ডিফেন্স নিউজকে বলেছেন ' S-400 কে যেমন অবমূল্যায়ন করা উচিত নয়, তেমনি এটিকে নিয়ে অতিরিক্ত অনুমান করাও উচিত নয়।"S-400 এর একটি উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য হল এর সম্ভাব্য আক্রমণাত্মক ক্ষমতা প্রতিপক্ষের আকাশসীমার ব্যবহার সীমিত করবে। ভারত -পাক সীমান্তের বেশিরভাগ অংশ কভার করতে পারবে এই নতুন ডিফেন্স সিস্টেম।  তবে  ডগলাস ব্যারি মনে করেন , S-400 ক্ষেপণাস্ত্রের কার্যকারিতা নির্ভর করবে  অপারেশনাল এলাকায় সংশ্লিষ্ট রাডারগুলির অধিগ্রহণের রেঞ্জ, সিস্টেমটিকে কার্যকরভাবে কাজে লাগাতে কর্মীদের ক্ষমতা এবং পদক্ষেপের উপর ।  সেইসঙ্গে প্রতিপক্ষ পাল্টা কি স্ট্র্যাটিজি নিচ্ছে তার ওপর। ভারত তার বিদ্যমান বিমান প্রতিরক্ষা নেটওয়ার্কে S-400 সম্পৃক্ত করার পরিকল্পনা করছে, যা ইন্দো-ইসরায়েল মস্তিস্ক প্রসূত। পাকিস্তানি এয়ার ফোর্সকে সরাসরি সামনে থেকে এই সিস্টেম দ্বারা আক্রমণ করা হলে তা বড়সড় ঝুঁকির মুখে পড়তে পারে , তাই উচ্চ- লক্ষ্যবস্তুর ওপর আঘাত হানতে আকাশপথে S-400 কে ব্যবহার করা যেতে পারে বলে মনে করছেন ব্যারি। সেই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন ,  S-400 অধিগ্রহণ পাকিস্তানি [পারমাণবিক] প্রতিরোধের সামগ্রিক বিশ্বাসযোগ্যতার উপর সামান্য বা কোন প্রভাব ফেলবে না। একইভাবে, আহমেদ-ও  বিশ্বাস করেন "ব্যালিস্টিক বা ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের বিরুদ্ধে এর কার্যকারিতা নির্ভর করবে একাধিক কারণের ওপর।  যার মধ্যে কার্যকরি পরিসর একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।  যার অর্থ পৃথিবীর ভূখণ্ডের প্রকৃতি এবং সিস্টেমটি যে স্থান থেকে স্থাপন করা হয়েছিল তা বিবেচনা করা দরকার। এখানে বলে রাখা ভাল, ২০১৯  সালের ফেব্রুয়ারীতে  অগ্নিসংযোগের মাধ্যমে ভারত-নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে প্রতিশোধমূলক হামলা চালানোর পর পাকিস্তানকে নিজেদের বিমান হামলার স্বরূপ দেখিয়েছে ভারত । পাকিস্তানের কৌশলগত পরিকল্পনা বিভাগ, বা SPD, দেশের পারমাণবিক প্রতিরোধের সমস্ত দিকের কথা মাথায় রেখে আপাতত S-400 দ্বারা সৃষ্ট হুমকি নিয়ে পর্যালোচনা চালাচ্ছে। ডিফেন্স নিউজ সেনাবাহিনীর ইন্টার সার্ভিস পাবলিক রিলেশনস মিডিয়া শাখার মাধ্যমে এসপিডির সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছিল, কিন্তু কোনও প্রতিক্রিয়া পায়নি। তবে , আহমেদ পারমাণবিক প্রতিরোধ বজায় রাখার জন্য পাকিস্তানে বিদ্যমান অস্ত্রাগারের  উন্নতির দিকে ইঙ্গিত করেছেন।

 

সামরিক সিস্টেমের উন্নয়ন করছে পাকিস্তান

পাকিস্তানের অস্ত্রাগারে এমন কিছু রয়েছে যা S-400 এর বিরুদ্ধে ব্যবহার করা যেতে পারে। গোপন যুদ্ধ ব্যবহারকারী ড্রোন ZF1 বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছিল, যা  প্রবলভাবে লক্ষ্যবস্তুতে আক্রমণ হানতে পারে । ২০১৮ সালে পাকিস্তানের দ্বিবার্ষিক অস্ত্র প্রদর্শনী IDEAS-এ এই ড্রোন নিয়ে প্রচার করা হয়েছিল, সেই সময়ে UAS GLOBAL এর সিইও রাফায় শাইক ডিফেন্স নিউজকে বলেছিলেন যে বিমানটিকে  শীগগিরই প্রথম উড়ানের জন্য ব্যবহার করা হবে । ভারতেরও নিজস্ব গোপন UCAV প্রোগ্রাম রয়েছে, যা DRDO দ্বারা পরিচালিত। ইউএএস গ্লোবালকে  তথ্যের জন্য অনুরোধ করা সত্ত্বেও, ২০১৯  সালের শুরু থেকে ZF1 ড্রোনের বিকাশের বিষয়ে কোনও খবর পাওয়া যায়নি এবং ZF1 টি কার্যকর আছে কিনা তাও স্পষ্ট নয়। চীন ও তুরস্কের মতো S-400 পরিচালনাকারী দেশগুলোর সঙ্গে সামরিক মহড়ার মাধ্যমে পাকিস্তানও উপকৃত হতে পারে। যারা অন্ততপক্ষে ভারতীয় S-400 সিস্টেমকে দমন ও পরাজিত করার সুযোগ অন্বেষণের জন্য এর শক্তি এবং দুর্বলতা চিহ্নিত করতে সাহায্য করতে পারে। মনে করেন আহমেদ।   ভার্জিনিয়ার আলেকজান্দ্রিয়ার ইন্টারন্যাশনাল অ্যাসেসমেন্ট অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজি সেন্টারের সিনিয়র ফেলো রিচার্ড ফিশারের মতে, চীনের কাছে পাকিস্তানের জন্য একাধিক বিকল্প উপলব্ধ রয়েছে। চীন উত্তর কোরিয়ার নতুন হাইপারসনিক গ্লাইড ভেহিকেল (HGV) ক্ষেপণাস্ত্র ওয়ারহেডকে সহায়তা করেছে, এটি একইভাবে পাকিস্তানি HGV কে সহায়তা করেছে, অথবা পাকিস্তানকে DF-17 বিক্রি করে তার অস্ত্রসম্ভার বাড়াতে সহায়ক ভূমিকা নিতে পারে চীন। শুধু তাই নয় , চীন পাকিস্তানকে S- 400 এর অনুরূপ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার মাধ্যমে ভারসাম্য মোকাবেলায় সহায়তা করতে পারে। ১৯৯০-এর দশকে S-300 এবং S-400 নির্মাতা আলমাজ-আন্তে চীনকে তাদের নিজস্ব চতুর্থ-প্রজন্মের SAM [সারফেস-টু-' তৈরির উপায় বিক্রি করতে সম্মত হয়েছিল। ফিশার উল্লেখ করেছেন যে পাকিস্তান সম্প্রতি  চীনের  তৈরি HQ-9B ক্ষেপণাস্ত্র  অর্জন করেছে।  যা আলমাজ-আন্তে প্রযুক্তির উপর ভিত্তি করে তৈরি এবং যার  ২৪০-কিলোমিটার রেঞ্জ রয়েছে। উন্নত রাশিয়ান প্রযুক্তির এই হস্তান্তর চীনকে প্রাথমিক স্থল-ভিত্তিক HQ-9 এবং জাহাজ-ভিত্তিক HHQ-9 সিস্টেম তৈরি করতে সক্ষম করেছে, যার পরিসর ১২৫ কিলোমিটার। ফিশার যোগ করেছেন, এই চীনা সিস্টেমগুলি বেশ উন্নত। দীর্ঘ পরিসরের HQ-9B-তে একটি ডুয়াল সেমি-অ্যাকটিভ রাডার হোমিং/প্যাসিভ ইনফ্রারেড সিকার রয়েছে বলে জানা গেছে। এর পাশাপাশি HQ-9C বানাতেও পরীক্ষা নিরীক্ষা চালাচ্ছে চীন। আহমেদ উল্লেখ করেছেন যে ক্রমবর্ধমানভাবে আরও শক্তিশালী এবং পরিশীলিত বায়ু প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাগুলি যেমন স্ট্যান্ডঅফ অস্ত্র, অ্যান্টি-রেডিয়েশন মিসাইল, ইলেকট্রনিক কাউন্টারমেজার, UCAV এবং ড্রোন পাকিস্তানের আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর পক্ষে সহায়ক। 

সূত্র : www.defensenews.com/

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: news@emanabzamin.com
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com