ভারত

দিল্লি হাইকোর্টের পর্যবেক্ষণ- যৌনতায় না করার স্বাধীনতা আছে যৌন কর্মীদের, স্ত্রীদের কেন থাকবে না!

বিশেষ সংবাদদাতা, কলকাতা

১৪ জানুয়ারি ২০২২, শুক্রবার, ৯:৫৪ পূর্বাহ্ন

একজন যৌনকর্মী যৌনতায় না করতে পারেন তার ইচ্ছা হলেই। তাহলে একজন স্ত্রী কেন তা করতে পারবেন না? দিল্লি হাইকোর্ট বিবাহ পরবর্তী ধর্ষণ নিয়ে একগুচ্ছ মামলা শোনার সময় এই মন্তব্য করেন। বিচারকরা বলেন, এই উপমহাদেশে বিবাহিত স্ত্রীকে যৌনতার দাসী বলে ধরে নেয়া হয়। স্ত্রী’র ইচ্ছার বিরুদ্ধে যৌন সংসর্গ করাটা ধর্ষণের থেকেও খারাপ বলে মনে করে দিল্লি আদালত। বিচারপতি রাজীব শাকধের এবং সি হরিশঙ্করকে নিয়ে গড়া একটি ডিভিশন বেঞ্চ এই মন্তব্য করে। বিচারপতি শাকধের জানান, ধর্ষণ ধর্ষণই। যে কোনো মহিলার সঙ্গে, তিনি বিবাহিত স্ত্রী হলেও তাঁর ইচ্ছার বিরুদ্ধে যৌন সংসর্গ করা রেপ-এরই নামান্তর। ভারতের সলিসিটার জেনারেল তুষার মেহতা ও সরকারি আইনজীবী মনিকা রাও আদালতকে জানায় সরকার ধর্ষণ সংক্রান্ত ৩৭৫ ধারা সংশোধন করে ধর্ষণের সংজ্ঞা পরিবর্তন করছে।
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2022
All rights reserved www.mzamin.com