দিল্লি হাইকোর্টের পর্যবেক্ষণ- যৌনতায় না করার স্বাধীনতা আছে যৌন কর্মীদের, স্ত্রীদের কেন থাকবে না!

বিশেষ সংবাদদাতা, কলকাতা

ভারত (৬ দিন আগে) জানুয়ারি ১৪, ২০২২, শুক্রবার, ৯:৫৪ পূর্বাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ১০:০৯ পূর্বাহ্ন

একজন যৌনকর্মী যৌনতায় না করতে পারেন তার ইচ্ছা হলেই। তাহলে একজন স্ত্রী কেন তা করতে পারবেন না? দিল্লি হাইকোর্ট বিবাহ পরবর্তী ধর্ষণ নিয়ে একগুচ্ছ মামলা শোনার সময় এই মন্তব্য করেন। বিচারকরা বলেন, এই উপমহাদেশে বিবাহিত স্ত্রীকে যৌনতার দাসী বলে ধরে নেয়া হয়। স্ত্রী’র ইচ্ছার বিরুদ্ধে যৌন সংসর্গ করাটা ধর্ষণের থেকেও খারাপ বলে মনে করে দিল্লি আদালত। বিচারপতি রাজীব শাকধের এবং সি হরিশঙ্করকে নিয়ে গড়া একটি ডিভিশন বেঞ্চ এই মন্তব্য করে। বিচারপতি শাকধের জানান, ধর্ষণ ধর্ষণই। যে কোনো মহিলার সঙ্গে, তিনি বিবাহিত স্ত্রী হলেও তাঁর ইচ্ছার বিরুদ্ধে যৌন সংসর্গ করা রেপ-এরই নামান্তর। ভারতের সলিসিটার জেনারেল তুষার মেহতা ও সরকারি আইনজীবী মনিকা রাও আদালতকে জানায় সরকার ধর্ষণ সংক্রান্ত ৩৭৫ ধারা সংশোধন করে ধর্ষণের সংজ্ঞা পরিবর্তন করছে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

আবুল কাসেম

২০২২-০১-১৩ ২২:৪৬:২৩

স্ত্রীদের স্বাধীন মতামত থাকতে পারে তবে বেশ্যাদের সঙ্গে তুলনা করে গৃহিণদের সম্মান হানি করা হয়েছে। বিচারকের শালীনতা বোধ নিয়ে সন্দেহ আছে।

amir

২০২২-০১-১৪ ১০:১৭:১৬

যৌনতায় না করার স্বাধীনতা আছে যৌন কর্মীদের, স্ত্রীদের কেন থাকবে না! ------কারণ স্ত্রীরা যৌন কর্মী নন! (Sex workers have the freedom not to have sex, why not wives!----Because wives are not sex workers)!

আপনার মতামত দিন

ভারত অন্যান্য খবর

কলকাতা কথকতা           

করোনায় আক্রান্ত প্রসেনজিৎ

১৩ জানুয়ারি ২০২২



ভারত সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status