মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডি ঠেকাবে করোনা, তিন বাঙালির গবেষণাপত্র আন্তর্জাতিক জার্নালে

অনলাইন (১ সপ্তাহ আগে) জানুয়ারি ১৩, ২০২২, বৃহস্পতিবার, ৬:২৮ অপরাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ৩:০০ অপরাহ্ন

কোভিড রোগীদের সারিয়ে তুলতে ‘মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডি’ তৈরি করার লক্ষ্যে ইতিমধ্যেই সক্রিয় হয়েছে দেশের বিভিন্ন ওষুধ নির্মাতা সংস্থা। এই পরিস্থিতিতে ‘মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডি’ সংক্রান্ত গবেষণায় নয়া দিশা দেখালেন, রাজ্যের কাজি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন গবেষক। প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক তথা বিভাগীয় প্রধান, বিজ্ঞানী সুপ্রভাত মুখোপাধ্যায়ের তত্ত্বাবধানে গবেষক নবারুণচন্দ্র দাস এবং পৃথা চক্রবর্তী তাঁদের সাম্প্রতিক গবেষণায় করোনাভাইরাসের আলফা, ডেল্টা, ডেল্টা প্লাস এবং ওমিক্রনের বিরুদ্ধে মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডির কার্যকারিতার প্রমাণ দিয়েছেন।
শুধু তাই নয়, ওই গবেষণায় সক্রিয় অ্যান্টিবডিগুলির ভাইরাসের প্রতি আসক্তি-যুক্ত পেপটাইড শৃঙ্খল (সিডিআর)-গুলি যুক্ত করে একটি কাইমেরিক অ্যান্টিবডি (দু’টি মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডির সংযুক্তি) প্রস্তুত করা হয়েছে। যা কোভিড-১৯ সংক্রমণের চিকিৎসায় কার্যকরী ভূমিকা নিতে পারে বলে তিন বিজ্ঞানীর দাবি। তাঁদের ওই গবেষণাপত্র ইউরোপের ‘ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন অফ ইমিউনোলজিক্যাল সোসাইটি’-র জার্নাল ‘ফ্রন্টিয়ার্স অফ ইমিউনোলজি’-র সাম্প্রতিক সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছে।
বিজ্ঞানী সুপ্রভাত জানিয়েছেন, তাঁদের ওই গবেষণায় আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বিজ্ঞানী এবং ইন্দো-ফরাসি যুগ্ম গবেষণাদলের সদস্য, পালাক্কড় আইআইটি-র অধ্যাপক জগদীশ ব্যারি একটি গুরুত্পূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। এই গবেষণায় ‘বায়ো ইনফরমেটিক্স’ এবং ‘কম্পিউটেশনাল বায়োলজি’-র সাহায্যে আমেরিকার ওষুধ নিয়ামক সংস্থা এফডিএ (ফুড এন্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন) অনুমোদিত আট ধরনের মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডির কার্যকারিতা যাচাই করা হয়েছে। করোনা ভাইরাসের মূল সংক্রামক প্রোটিনের (স্পাইক প্রোটিন) উপর ওই আট ধরনের মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডির সক্রিয়তা পরীক্ষা করেছিলেন তাঁরা। তাতে দেখা গিয়েছেন টিকসাজেভিমাব, সিলজাভিমাব, রেজদানিভিমাব, বামলানিভিমাব এবং সত্রভিমাব মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডিগুলি করোনাভাইরাসের নয়া রূপগুলির উপরেও সক্রিয় ভাবে কার্যকর।

সূত্রঃ আনন্দবাজার।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোহাম্মদ

২০২২-০১-১৩ ১১:৩২:৩১

আত্মা, বিবেক যখন বিক্রি ও বিসর্জন দেওয়া হয় তখন আর স্বাভাবিক বুদ্ধিবৃত্তি সক্রিয় থাকে না । এটাই হয়েছে আমাদের সমাজের কথিত বুদ্ধিবৃত্তিক অংশের আত্মার মহামারীর কারণ ।

Dashiboy

২০২২-০১-১৩ ০৭:২০:১৫

ভারত প্রীতি আমাদেরকে ভুলিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ এবং ইন্ডিয়া দুটি আলাদা রাষ্ট্র। তাইতো বলি সাংবাদিকরা কেন পালিত হয়।

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

ভারতের কাছে বড় লজ্জা !

২০ জানুয়ারি ২০২২

শনাক্তের হার ২৬.৩৭

নতুন শনাক্ত ১০৮৮৮, আরও ৪ জনের মৃত্যু

২০ জানুয়ারি ২০২২



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



ফেনী আইনজীবী সমিতির নির্বাচন

বিএনপি-জামায়াত ১০টি, আওয়ামী লীগ ৪টিতে জয়ী

DMCA.com Protection Status