মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করলেন ডা. মুরাদ

অনলাইন ডেস্ক

অনলাইন (১ মাস আগে) ডিসেম্বর ৭, ২০২১, মঙ্গলবার, ১২:৪৫ অপরাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ৯:০৭ অপরাহ্ন

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ পেয়ে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করলেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান। পদত্যাগপত্রে তিনি ব্যক্তিগত কারণ উল্লেখ করেছেন। আজ দুপুরে মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তার মাধ্যমে পদত্যাগপত্র জমা দেন তিনি।
এর আগে নারীদের নিয়ে অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দেয়ায় মুরাদকে মঙ্গলবারের মধ্যে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করতে নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার রাতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের তার বাসভবনে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে জানান, আজ সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ডা. মুরাদের বিষয়ে কথা হয়েছে এবং আমি রাত ৮টায় প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানকে বার্তাটি পৌঁছে দিই।

সম্প্রতি ডা. মুরাদ হাসানের একের পর এক বিতর্কিত মন্তব্য সামাজিক যোগাযোগ ভাইরাল হয়ে পড়ে।
গত ২রা ডিসেম্বর সোশাল মিডিয়ায় এক সাক্ষাৎকারে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কন্যা জাইমা রহমানকে নিয়ে বর্ণবিদ্বেষী এবং নারীর প্রতি অবমাননাকর বক্তব্য করেন ডা. মুরাদ। এরপর চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহির সঙ্গে মুরাদের অশ্লীল কথোপকথন সোশাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। একই সময় সোশ্যাল মিডিয়াতে আসা আরেকটি ভিডিওতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া ও শামসুন্নাহার হলের ছাত্রলীগ নেত্রীদের নিয়েও অবমাননাকর কথা বলতে দেখা যায় মুরাদকে । এরপর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনা ঝড় উঠে।।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

হেলাল

২০২১-১২-০৭ ০৯:০১:০৩

নিজের ডাক্তারিই সে করতে পারল না তো কিসের ডাক্তার?

masum billah

২০২১-১২-০৭ ১৯:১৭:৩৫

he is a bad man

আবুল কাসেম

২০২১-১২-০৭ ০৫:৫৭:২৮

নৈতিক স্খলনের দায়ে প্রতিমন্ত্রী ডাক্তার মুরাদ হাসানকে পদত্যাগ করানো হয়েছে। সভ্যতা ভব্যতা, শিষ্টাচার ও আদব কায়দা পরিপন্থি কাজে জড়িয়ে পড়লে মন্ত্রী থাকার নৈতিক অধিকার যে কেউ হারাতে পারেন। কিন্তু, প্রশ্ন হচ্ছে নৈতিক স্খলন ঘটলে কেউ সংসদ সদস্য থাকতে পারেন কিনা। সংসদ সদস্য তো আর যেনতেন প্রকারে হওয়া যায় না। একজন সাংসদ হলেন জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধি। জনগণ যদি আগে থেকেই জানতে পারেন নৈতিক মানদন্ড বজায় নেই এমন একজন ব্যক্তিকে জনগণ কি সাংসদ নির্বাচিত করবেন? না করারই কথা। ডাক্তার মুরাদ হাসান শুধু মন্ত্রী ছিলেন না তিনি সাংসদও। নৈতিক স্খলন হওয়ায় তাঁর মন্ত্রীত্ব চলে গেছে, কিন্তু তাঁর সংসদ সদস্য পদ বহাল আছে। জানা গেছে তাঁর এলাকার মানুষ তাঁর মন্ত্রীত্ব চলে যাওয়ার খবর জানার পরে মিষ্টি বিতরণ করেছেন। তাতে বুঝা যাচ্ছে তাঁর এলাকার মানুষ নৈতিক স্খলনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন। এই অবস্থায় নির্বাচন হলে সেই নির্বাচনে ডাক্তার মুরাদ হাসান অংশ নিলে তাঁর জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়ার সম্ভাবনা প্রকট। সুতরাং জনগণের সেন্টিমেন্টের প্রতিফলন ডাক্তার মুরাদ হাসানের সংসদ সদস্য পদ বাতিল হবে কিনা তা বুঝতে হবে। জনগণের মর্যাদার সঙ্গে তাঁর নৈতিক স্খলন যায় কিছুই তাও চিন্তা করতে হবে। তিনি শুধু শুধু হেনস্তা হবেন তা কারো কাম্য নয়। তবে প্রথিতযশা নারী নেত্রীরা যখন তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন তা নিশ্চয়ই গুরুতর।

md. mahafuzur rahman

২০২১-১২-০৭ ১৫:৪৩:৫৮

কোন এক চা শ্রমিক বলেছিল “ চামড়ার মাঝে চামড়া ------------- লাগি ’’ বাঙাল মরছে।

খোকন

২০২১-১২-০৭ ০২:২১:১১

সঠিক পদক্ষেপ এর জন্য প্রধান মন্ত্রীকে ধন্যবাদ। কিন্তু এভাবে তো হাজার মুরাদ হোসেন আছে, যাদের কার্য কলাপ গুলো আস্তে আস্তে প্রকাশ পাচ্ছে এবং এক একজন এক একরূপের, এদের বিরুদ্ধে যদি পদক্ষেপ না নেওয়া হয় তাহলে এই আগাছা গুলো দেশটাকে ধ্বংস করে দিবে ? কেন এসব ব্যাক্তিকে উচ্চ পর্যায় নিয়োগের আগে মানসিক হসপিটালে পরীক্ষা করা হয় না ? Secondly, মুরাদ হোসেন পেশা গত ভাবে যে রোগী দেখেছেন, তাদেরকে জিজ্ঞাসা করা উচিত যে, কেউ তার দ্বারা ধর্ষিত হয়েছেন কিনা বা শারীরিক ভাবে লাঞ্ছিত হয়েছেন কিনা ? তাদের এখন সারা দেওয়া উচিত ?

md Ibrahim

২০২১-১২-০৭ ০১:১২:০৫

আইনের আওতায় আনা উচিত।

মুহা: ওয়াহিদুর রহমান

২০২১-১২-০৭ ০০:৩৯:৪৯

আপদ বিদায়!!

Prof Dr MM Rahman

২০২১-১২-০৭ ০০:১৭:২৬

Govt took a very good step. Beside, an investigation should be carried out to find out the similar activities if any to punish him to improve the image of the Govt.

JESMIN AKTER

২০২১-১২-০৭ ১২:৫৮:৪৮

শুধু মন্ত্রীসভা থেকে বহিস্কার নয়। তাকে দল থেকে বহিস্কারসহ সংসদ সদস্য পদ হতে অব্যাহতি দিয়ে মামলা করে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্বিত করতে হবে।

salim khan

২০২১-১২-০৭ ১২:৫৩:৩৩

আপনি বহুত খেলেছেন। জনগণ আপনার অনেক খেলা দেখেছে। জনগণ সন্তুষ্ট। আপনার এক খেলায় বলেছিলেন যে দাড়ি, টুপি এদেশে চলবে না। ৭২ এর সংবিধানে ফিরে যাবেন। আরো কত কথা। তো এখন দেখলেন কোনটা চলবে আর কোনটা চলবে না? তা ও সেটা আপনাদের শাসনালমলেই। বেশি দূর যাওয়ার দরকার হয় নাই। সব কিছুর একটা সীমা আছে, থাকা চাই। এদেশের জনগণ সিদ্ধান্ত নিবেন কোনটা চলবে আর কোনটা চলবে না। আপনি তো একজন প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী। জোনটোনের তাকে আপনার বেতন ভাতা চলে। রাষ্ট্রের মালিক তো জনগণ। তাই না? সেটা ভুলে গেছেন? আর আপনার মতো এতো নোংরা, অসভ্য, বেয়াদব, ইতর কি করে সংসদে গেলেন?

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

নায়িকা শিমুর লাশ উদ্ধার

১৮ জানুয়ারি ২০২২

শনাক্তের হার ২০.৮৮

নতুন শনাক্ত ৬৬৭৬, আরও ১০ জনের মৃত্যু

১৭ জানুয়ারি ২০২২



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



ফেনী আইনজীবী সমিতির নির্বাচন

বিএনপি-জামায়াত ১০টি, আওয়ামী লীগ ৪টিতে জয়ী

DMCA.com Protection Status