ভরা মৌসুমেও সুন্দরবনে পর্যটক নেই

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা থেকে

বাংলারজমিন ২৯ নভেম্বর ২০২১, সোমবার

 বিশ্বের দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে অন্যতম প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি সুন্দরবন। শীত মৌসুম এলে সৌন্দর্য্য দেখতে প্রতি বছর লাখো পর্যটক সুন্দরবনে ঘুরতে যান। কিন্তু এ বছরের চিত্র ভিন্ন। পর্যটনের ভরা মৌসুমেও সুন্দরবনের দর্শনীয় স্থানগুলো এখন প্রায় পর্যটকশূন্য। এতে লোকসানের মুখে পড়েছেন পর্যটন শিল্প সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। পাশাপাশি এবার পর্যটন খাত থেকে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।
পর্যটন শিল্প সংশ্লিষ্টরা জানান, অক্টোবর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পর্যটনের ভরা মৌসুম। এ সময়ে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পর্যটকরা সুন্দরবনে ঘুরতে আসেন।
কিন্তু গত দুই মাসে তেমন পর্যটকের দেখা মেলেনি সুন্দরবনে। জানা যায়, করোনার সংক্রমণরোধে কয়েক মাস বন্ধ থাকার পর পর্যটন কেন্দ্রেগুলো খোলা হয়। এরই মধ্যে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি, পরিবহন ধর্মঘট ডাকা হয়। ট্যুর ব্যবসায়ী গোলাম রহমান বিটু ও জাহিদ মোল্লা জানান, পর্যটনশিল্প আগের চেয়ে বিকাশিত হয়েছে। গত দুই বছর করোনাকালীন ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে এই খাতে। তবে বর্তমানে তেল-গ্যাসের দাম বৃদ্ধি হওয়ায় মানুষের আয়ের তুলনায় খরচ বেড়েছে। তাই পর্যটনশিল্প কিছুটা হুমকির মুখে। এ জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এই খাতে নজর দিলে ঘুরে দাঁড়ানো সম্ভব বলেও জানান তারা। তেল-গ্যাসের দাম বৃদ্ধির ফলে পরিবহন ভাড়া বেড়েছে। পর্যটকরা আগে লঞ্চ ও বোট বুকিং দিলেও এখন বাতিল করেছেন। ব্যবসায়ীরা ক্ষতির মুখে পড়েছেন। সুন্দরবন দেখতে রাজশাহী থেকে আসা সাজ্জাদুর রহমান নামে এক ব্যবসায়ী বলেন, প্রতি বছর পরিবার নিয়ে সুন্দরবনে ঘুরতে আসি। করোনার কারণে গত দুই বছরে আসা হয়নি। এ বছর তিনগুণ বাস এবং বোট ভাড়া দিয়ে এসেছি। করোনা মহামারির আগে শীত মৌসুমে পূর্ব সুন্দরবনের করমজল পর্যটন কেন্দ্র থেকে ৩৫-৪০ লাখ টাকা রাজস্ব আয় হয়েছে। কিন্তু এ বছর গত দুই মাসে রাজস্ব আদায় হয়েছে ৬৫ হাজার টাকা।
পূর্ব সুন্দরবনের বন কর্মকর্তা হাওলাদার আজাদ কবির বলেন, সম্প্রতি পরিবহন ধর্মঘটের পর তেল-গ্যাসের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় পরিবহন ভাড়া বেড়েছে। খরচ বেশি হওয়ায় দূর-দূরান্ত থেকে সুন্দরবনের সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে আসছেন না দর্শনার্থীরা। এ ব্যাপারে পূর্ব সুন্দরবনের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন বলেন, একদিকে করোনা অন্যদিকে তেলের দাম বৃদ্ধি। এই দুটির প্রভাব পড়েছে পর্যটক খাতে। এ বছর রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হবে বলে মনে হয় না। সুন্দরবনে প্রতি বছর গড়ে প্রায় এক থেকে দেড় লাখ পর্যটক ভ্রমণ করেন। এর সংখ্যা বৃদ্ধি করতে নানারকম উদ্যোগ নিতে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। আমরা সেভাবেই কাজ করছি।

আপনার মতামত দিন

বাংলারজমিন অন্যান্য খবর

বন্ধ তামাবিল স্থলবন্দর

ক্ষতি ৮ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে

২২ জানুয়ারি ২০২২

শিরোমণিতে দুস্থ ও শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ

২২ জানুয়ারি ২০২২

নগরীর খানজাহান আলী থানার ঐতিহ্যবাহী সামাজিক সংগঠন ও আটরা গিলাতলা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের হতদরিদ্র শীতার্ত ...

৯১ শিক্ষার্থীর করোনা শনাক্ত

নোয়াখালী নার্সিং কলেজ বন্ধ ঘোষণা

২২ জানুয়ারি ২০২২

বিয়ানীবাজারে ড্রেজার শ্রমিকের ইটের আঘাতে জেলে নিহত, আটক ৮

২২ জানুয়ারি ২০২২

সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার কুশিয়ারা নদীতে মাছ ধরার সময় ড্রেজার শ্রমিকের ইটের আঘাতে নদীতে পড়ে গিয়ে ...

লাউকাঠি নদীর অবৈধ স্থাপনা অপসারণ শুরু, বিপাকে বস্তিবাসী

২২ জানুয়ারি ২০২২

পটুয়াখালী জেলা শহরের উত্তর পাশ ঘেঁষে লাউকাঠী নদী রক্ষায় লঞ্চঘাট থেকে নিউমার্কেট পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার ...

প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হালিমের স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত

২২ জানুয়ারি ২০২২

বর্ণাঢ্য রাজনীতিবিদ, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক বীর মুক্তিযোদ্ধা, সরাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল হালিমের প্রথম ...



বাংলারজমিন সর্বাধিক পঠিত



নোয়াখালী পৌরসভা নির্বাচন

নৌকার প্রার্থী সহিদ উল্যাহ বিজয়ী

DMCA.com Protection Status