রেলযোগে প্রথম ডাক

শামীমুল হক

ইতিহাস থেকে ১০ নভেম্বর ২০২১, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ৫:৩৫ অপরাহ্ন

উইলিয়াম পিট বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর ডাক ব্যবস্থার সংস্কারক জন পালমার পোস্টমাস্টার জেনারেল ও পোস্ট অফিসের প্রধান কর্মকর্তাদের নিয়ে একটি সভা করেন। সবার আপত্তি উপেক্ষা করে বৃটেনের প্রধানমন্ত্রী ১৭৮৪ সালের ১লা আগস্ট পালমারের মেইল কোচ সার্ভিস পরীক্ষামূলকভাবে চালুর নির্দেশ দিলেন। ৪ জন যাত্রী নিয়ে মেইল কোচ ১৭৮৪ সালের ২রা আগস্ট বাথ থেকে ছেড়ে গেল। পরের দিন সকাল ৮টায় লন্ডনের পোস্ট অফিসে কোচ পৌঁছে গেল। সময় লাগলো ১৬ ঘণ্টা। পালমার তখন অন্যান্য রাস্তায় এ ব্যবস্থা চালুর কথা চিন্তা করেন এবং পোস্ট অফিসের দায়িত্বে তাকে স্থায়ীভাবে নিয়োগ প্রদানের অনুরোধ করলেন। তিনি পোস্টমাস্টার জেনারেলের অধীনে কন্ট্রোলার অব দি মেইল পদ পেলেন। ১৭৯৮ সালের মধ্যে বৃটিশ সাম্রাজ্যের সর্বত্র পালমারের বাথ মেইল কোচ সম্প্রসারিত হলো। ডাকের নিরাপত্তা, সময়ানুবর্তিতার নতুন মানদ- চালু হয়। সে সময়ে লন্ডন থেকে এডিনবরাতে ডাক পৌঁছে দিতে পোস্টবয়দের সময় লাগতো ৮৫ ঘণ্টা। কিন্তু পালমার কর্তৃক প্রবর্তিত ব্যবস্থায় কোচযোগে সময় লাগতো ৬০ ঘণ্টা। মহারাণী ভিক্টোরিয়ার সিংহাসনে আরোহণের সময় লন্ডনের বাইরে বিভিন্ন রাস্তায় মেইল কোচ প্রতি ঘণ্টায় ১০ মাইল পথ অতিক্রম করতো। পরে মেইল কোচের পরিবর্তে প্রবর্তিত হলো স্টেচ কোচ। এ কোচ দ্রুতগামী, আরামদায়ক ও দিবাকালীন সেবা নিয়ে হাজির হলো জনগণের সামনে। এদিকে রেলওয়ে ব্যবস্থার উন্নতি হলে মেইল কোচ যুগের পরিসমাপ্তি হয়। ১৮৩০ সালের ১১ই নভেম্বর লিভারপুল ও ম্যানচেস্টারের মধ্যে রেলযোগে প্রথম ডাক পরিবাহিত হয়। অন্যান্য অঞ্চলে রেল ব্যবস্থা সম্প্রসারিত হলে মেইল কোচে আর ডাক বহন করা হয়নি। ১৮৪০ সালে লন্ডনভিত্তিক মেইল কোচ প্রত্যাহার করা হয়। আর ১৯২২ সালে প্রথম যে বিমান আমেরিকা থেকে ইংল্যান্ড পৌঁছে, সে বিমানে ১১ বস্তা মেইল ছিল। অর্থাৎ ডাক বিভাগ সবসময়ই সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে চলেছে।

আপনার মতামত দিন



ইতিহাস থেকে সর্বাধিক পঠিত

DMCA.com Protection Status