ট্রাফিক পুলিশের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে মোটরসাইকেলে আগুন দিলেন পাঠাও চালক

অনলাইন ডেস্ক

অনলাইন (৩ সপ্তাহ আগে) সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২১, সোমবার, ১:৪৯ অপরাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ১০:৪৩ পূর্বাহ্ন

ট্রাফিক পুলিশের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে নিজের মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দিয়েছেন রাইড শেয়ারিং অ্যাপস পাঠাওয়ের এক চালক। আজ সকালের দিকে এমন একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়ে।

জানা গেছে, ছোট্ট একটি দোকান দিয়ে ব্যবসা করতেন শওকত আলী। তা দিয়েই চলতো তার সংসার। কিন্তু করোনার কারণে লকডাউনে তার ব্যবসাটিও বন্ধ হয়ে যায়। এতে বিপাকে পড়েন শওকত। কয়েক মাস ধরে বাধ্য হয়ে রাইড শেয়ারিংয়ের মোটরসাইকেল চালিয়ে সংসারের হাল ধরেন। আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মোটরসাইকেল নিয়ে বাড্ডা লিংক রোডে যাত্রীর জন্য দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। এ সময় ট্রাফিক সার্জেন্ট এসে তার কাগজপত্র নিয়ে যায়।
মামলা না দিতে অনুরোধ করে পুলিশের কাছে গাড়ির কাগজপত্র ফেরত চান তিনি। কাগজপত্র ফেরত না পেয়ে হতাশ হয়ে মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেন তিনি।

এ বিষয়ে বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ বলেন, ওই ব্যক্তি রাজধানীর লিংক রোড এলাকায় ট্রাফিক আইন অমান্য করায় দায়িত্বরত একজন ট্রাফিক সার্জেন্ট তার কাগজপত্র দেখতে চান। এর পরিপ্রেক্ষিতে সে ক্ষুব্ধ হয়ে নিজের মোটরসাইকেল আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে পুলিশ তাকে থামিয়ে মোটরসাইকেলটির আগুন নিভায়।

তিনি বলেন, মোটরসাইকেলটি এবং ওই বিক্ষুব্ধ চালককে আমরা থানায় নিয়ে এসেছি। তাকে আমরা জিজ্ঞাসাবাদ করছি। তার ক্ষুব্ধ হওয়ার কারণটি বুঝার চেষ্টা করছি।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

নুরুল আমিন

২০২১-০৯-২৭ ০৬:২৮:৫৫

শওকত ভাই আমার চেনা লোক,করুনায় লকডাউনে উনার বেবসা বন্ধ হয়ে যায়, আমি নিজে দেখেছি।সকলের কাছে অনুরোধ উনাকে একটি বাইক কেনার সহযোগিতা করবেন।

Emon

২০২১-০৯-২৭ ০৫:০০:৫৯

পুলিশ কেন তাদের ক্ষমতা সাধারন বাইকারদের উপর নিষ্ঠুরভাবে প্রয়োগ করে জানি না। অনেক সময় সমান্য কারণে মামলা দিতে দেখা যায়. যখন রাজনৈতিক নামধারী তথাকথিত ব্যক্তি মোটর আইন তোয়াককা না করে ৩ জন এক বাইকে বিনা হেলম্যাটে ওলটা দিক দিয়ে চলে তখন তো কোন মামলা দিতে দেখি না।এমন বৈষম্য কেন জানতে চাই?

শাহনেওয়াজ বাবলু

২০২১-০৯-২৭ ১৭:২৩:০০

ওই লোককে থানা থেকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। শওকত ভাইয়ের মোবাইল নম্বর হচ্ছে ০১৮২৩৭৪১০৪৬

Md.Forhad

২০২১-০৯-২৭ ১৭:০৬:৫০

Bangladesh e jonmo nico etai tomar oporad..........Kaj kore kaccho churi dakati korco na eta R o boro Oporad .........Ey Trafiq Police Bangladesh ta k moger mulluk banai pelce Mon caile Rastay giya darabe jake pabe tar kac thekey Tk dabi korbe na dite parle Mamla debe hok sey CNG ,Privet car,Haice bechara tik moto kete parce kina seta o dekar somoy ney......Ami nije er boro sakki Feni theke Haice niya Chitagong airport e gelam 4000 tk bara kore but jaite aste 3 jaigay 4500 tk Jorimana dite hoyeace driver k.............Sadhinota tumi boro e Odvut

salam

২০২১-০৯-২৭ ১৭:০৬:২৩

মটর সাইকেল হারাল, এখন জীবনের সস্থিটাও হারাবে। পুলিশ বিষয়ে আমি ব্যক্তিগত ভাবে জানি, পুলিশের চেয়ে ভাসমান পতিতা অনেক বিস্বস্থ সেটার প্রমান দেখেছি।

আহমেদ

২০২১-০৯-২৭ ০৩:২৯:৩৯

একটা মানুষ কতটুকু অতিষ্ঠ হলে নিজের রিজিকের উপর আঘাত করতে পারে!!! বাংলাদেশ টা কে দংশ করে দিল এই পুলিশবাহিনি। আইনশৃংখলা বাহিনি যত দিন দূর্নীতি মুক্ত হতে পারবে না ততদিন ওদের কাছ থেকে ভাল কিছু আশা করা যায় না।।

anwar hossain

২০২১-০৯-২৭ ১৬:২২:১১

এই করোনা ভাইরাস কতো মানুষকে পথে বসিয়েছে। বেচারা সব হারিয়ে রাইড চালিয়ে সংসারের হাল ধরার চেষ্টা করছে। পুলিশের নির্দয়তা কাম্য ছিলনা। অবশ্য অবিরাম লকডাউনে পুলিশেরও আয় উপার্জন কমে গেছে। তাই মাথা নষ্ট। ডাইড চালককে থানায় নিয়ে গেছে। ভূয়া মামলা দেয় কিনা দেখার বিষয়।

আবুল কাসেম

২০২১-০৯-২৭ ০২:৫৮:২৯

Mr. Chowdhury মতামত দিতে গিয়ে লিখেছেন, ভুক্তভোগীকে একটা নতুন মটর সাইকেল কিনে দেবেন। সেইজন্য তিনি রাইডার ভাইয়ের ফোন নম্বর চেয়েছেন। প্রতিবেদক মহোদয় দয়া করে আপনি থানায় গিয়ে চেষ্টা করুন তার ফোন নম্বর নিতে পারেন কিনা। পরোপকারী মানুষই শ্রেষ্ঠ মানুষ। হা-হা-হা Mr. Chowdhury নিজের যোগাযোগের ফোন নম্বর নিতে ভুলে গেছেন।

আবুল কাসেম

২০২১-০৯-২৭ ০২:৫০:১৫

এই করোনা ভাইরাস কতো মানুষকে পথে বসিয়েছে। বেচারা সব হারিয়ে রাইড চালিয়ে সংসারের হাল ধরার চেষ্টা করছে। পুলিশের নির্দয়তা কাম্য ছিলনা। অবশ্য অবিরাম লকডাউনে পুলিশেরও আয় উপার্জন কমে গেছে। তাই মাথা নষ্ট। ডাইড চালককে থানায় নিয়ে গেছে। ভূয়া মামলা দেয় কিনা দেখার বিষয়।

Khokon

২০২১-০৯-২৭ ০২:৪৭:১৯

অসহায় মানবের আত্মহননের নির্মম চিত্র।

আবুল কাসেম

২০২১-০৯-২৭ ০২:৪৩:৩১

আকাশের যত তারা পুলিশের তত ধারা। মামলা আবিষ্কার করা না হলেও পুলিশ কিন্তু সকলের বন্ধু। বন্ধুর উপর বন্ধু রাগ করেছে, তা তো করতেই পারে। নিজের গাড়িতে আগুন দিয়েছে, গায়ে তো আর দেয়নি। ট্রাফিক পুলিশ রাস্তায় যানবাহনে মানুষকে কি পরিমাণ যে হয়রানি করে তা ভুক্তভোগীরাই বলতে পারবেন। আমি কোনো এক সময় আমার ছেলেকে নিয়ে রিকশায় করে স্কুলে যাচ্ছিলাম। কোনো এক চৌরাস্তার সিগনালে ট্রাফিক সার্জেন্ট আমাকে আটকে দিয়ে যেতে দেবেনা। রিকশা থামিয়ে রাখলো। অথচ অন্যান্য গাড়ি চলে যাচ্ছে। এক কথা দু কথায় সে উত্তেজিত হয়ে আমাকে এমন একটা গালি দিলো যে, ছেলের সামনে লজ্জিত হয়ে গেলাম। আমি বুঝে নিলাম কড়া রোদে অথবা অন্য কোনো কারণে সে চটে আছে। রাস্তার অপর প্রান্ত থেকে একজন ট্রাফিক এসে আমাকে সাহায্য করে পার করে দিলো। আমি ছেলেকে স্কুলে দিয়ে আমার এক বন্ধুকে ফোনে ঘটনা জানালাম। সে আমাকে পরামর্শ দেয়, ঐ এলাকার পুলিশের উপ কমিশনারের কাছে জানাতে। আমি তাই করলাম। তিনি আমার সামনে সেই সার্জেন্টকে ডাকলেন ও জিজ্ঞেসাবাদ করলেন এবং ঘটনার সত্যতা বুঝতে পেরে তাকে শাসালেন। এরপর কোথায় যেন বদলি করে দিলেন জানিনা। সম্প্রতি পুলিশের মধ্যে যথেষ্ট অপরাধ প্রবনতা দেখা যাচ্ছে। তবে উত্তম চরিত্রের পরোপকারী পুলিশও আছেন। কিন্তু, পুলিশ বিভাগের সবাই তো পরোপকারী হওয়ার কথা। কেউ কেউ অপরাধ করে বাহিনীর সুনাম নষ্ট করছে। এদেরকে চাকরি থেকে বহিষ্কার ও কঠোর শাস্তি দিলে অন্যরা ঠিক হয়ে যেতো।

মুহাম্মদ আবুল কালাম

২০২১-০৯-২৭ ০২:২৩:১৪

মগের মুল্লুকের বাসিন্দা মোরা, জয় বাংলা

mohammad zahir uddin

২০২১-০৯-২৭ ১৫:১৬:২৩

Police /Traffic birombonae manush utishto

emdadul

২০২১-০৯-২৭ ১৫:০১:১৪

Manush koto osoher modde bas kore. jeno dhekhar kew nai. kew durniti kore takar pahar gorche.kew na khaye morche. ai amader sadhin Bangladesh. Aj je ghotona manus koto tikto hoye nijer koster takar somboltuku ses korche. Amader desher prosason ato bepora ta bolar ses rakhe na. tader kache amra jimmi. tader kache kono manobota nai.

Mr Choudhury

২০২১-০৯-২৭ ০২:০০:২১

Is there any chance the medics could help to arrange his number as I would like to help him by buying a new motorcycle for him. I understand his emotion and it’s heartbreaking

Mahbub

২০২১-০৯-২৭ ০১:৩৮:৩২

প্রতিবেদকের কাছে বিনীত অনুরোধ ট্রাফিক ব্যবস্থাপনার উপর একটি পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন প্রচারের ব্যবস্থা করা, শেয়ার রাইডারদের কাছ থেকে জানা যায় ট্রাফিক সার্জেন্টদের উপর নাকি নির্দেশনা রয়েছে প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট সংখ্যক গাড়ীর উপর জরিমানা আদায় করতে হবে ফলে অহেতুক তারা হয়রানির শিকার হোন।

জাফর আহম্মদ

২০২১-০৯-২৭ ০১:১৮:১০

বর্তমান বাংলাদেশের করুণ চিত্র এটি। শওকত আলী'র মোটরসাইকেল তো শেষ হলোই, এখন তাকে থানায় ধরে নিয়ে আরও কতরকম হয়রানি করে, সেটাই এখন দেখার বিষয়। পুরো ব্যাপারটা ভীষণ অমানবিক ও দু:খজনক।

আতংকিত আমি

২০২১-০৯-২৭ ১৪:১২:০৭

মানুষ কতটা অতিষ্ঠ হলে নিজের উপার্জনের বাহনটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়? এটা মানুষ বুঝবে, জানোয়াররা বুঝবে না। ট্রাফিক আইনের নামে কত উল্টা-পাল্টা হয়রানির শিকার হতে হয়, শুধুমাত্র ট্রাফিক পুলিশ নামধারী কিছু অর্থলোভীর অনৈতিক লালশা মিটাতে-- তা ভুক্তভোগীরাই জানে।

Bashir

২০২১-০৯-২৭ ১৪:০৮:১৬

r k korar asy tader, onk kosty e ai kaj ta korcy...

Razzak (From, KSA)

২০২১-০৯-২৭ ১৪:০২:১০

KARON EKTAI GUSH DITAY HOBAY. SORKARER PAA CHATA KUTTADER.

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শনে সালমান এফ রহমান

ইলেকট্রনিক্স শিল্প গার্মেন্টসকে ওভারটেক করবে

২৩ অক্টোবর ২০২১

শনাক্তের হার ১.৮৫

করোনায় আরও ৯ জনের মৃত্যু

২৩ অক্টোবর ২০২১



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



বাইডেন মনোনীত বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন রাষ্ট্রদূত

২০২৩ সালের নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্পূর্ণ গণতান্ত্রিক অংশগ্রহণে কাজ করবো

DMCA.com Protection Status