সৌদি আরবে ভিক্ষা বন্ধে জেল, জরিমানাসহ কঠোর আইন

মানবজমিন ডেস্ক

বিশ্বজমিন (৩ সপ্তাহ আগে) সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১, রোববার, ১১:২৩ পূর্বাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ১১:১৩ পূর্বাহ্ন

ভিক্ষাবৃত্তির বিরুদ্ধে নতুন করে কঠোর আইন অনুমোদন দিয়েছে সৌদি আরব। এ জন্য সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে এক বছরের জেল এবং এক লাখ রিয়াল জরিমানার কথা বলা হয়েছে। অনলাইন গালফ নিউজে প্রকাশিত এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, নতুন এই আইনের নাম দেয়া হয়েছে এন্টি-বেগিং ল’ বা ভিক্ষাবৃত্তির বিরুদ্ধে আইন। মন্ত্রীপরিষদ এই আইন অনুমোদন দিয়েছে। যেকোনো ব্যক্তিকে ভিক্ষাবৃত্তিতে জড়িত দেখলে, ভিক্ষুকদের ম্যানেজের সঙ্গে জড়িত থাকলে অথবা ভিক্ষুকদের গ্রুপের সংগঠনকে সহায়তা করলে, তাদের বিরুদ্ধে এই আইনের অধীনে শাস্তি প্রয়োগ করা যাবে। যদি কাউকে দেখা যায় ভিক্ষাবৃত্তিকে উৎসাহিত করছেন অথবা যেকাউকে ভিক্ষায় উৎসাহিত করছেন, তাহলে তাকে সর্বোচ্চ ৬ মাসের জেল দেয়া হতে পারে অথবা অনধিক ৫০ হাজার রিয়াল জরিমানা অথবা উভয় দ-ে দ-িত করা যেতে পারে।
এই আইনের অধীনে সৌদি আরবের নাগরিক নন এমন ভিক্ষুকদেরকে জেলের মেয়াদ শেষে এবং জরিমানার অর্থ পরিশোধের পর নিজের দেশে ফেরত পাঠানো হবে। তাদেরকে কাজের জন্য আর কখনো সৌদি আরবে ফিরতে অনুমোদন দেয়া হবে না।
তবে সৌদি আরবের ভিক্ষুক নন এমন ব্যক্তি যদি কোন সৌদি নারীর স্বামী বা সন্তান হন, তাহলে তাদেরকে দেশ থেকে বের করে দেয়া হবে না। আইন অনুযায়ী, যদি কোনো ব্যক্তিকে ভিক্ষাবৃত্তির জন্য একাধিকবার গ্রেপ্তার করা হয় তাহলে তাকে শাস্তি দেয়া হবে। আইনটি প্রয়োগের যথাযথ কর্তৃপক্ষ হিসেবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে নির্ধারণ করা হয়েছে।
এই আইনের চতুর্থ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট এজেন্সিগুলোর সঙ্গে সহযোগিতার মাধ্যমে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উচিত সৌদি আরবের ভিক্ষুকদের সামাজিক, স্বাস্থ্য, মানসিক এবং অর্থনৈতিক অবস্থা পর্যালোচনা করা এবং এসব সমস্যা সমাধানে সমর্থন দেয়া। ২০১৮ সালে সৌদি আরবে মোট ২৭১০ জন ভিক্ষুককে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। এ তথ্য মানব সম্পদ ও সামাজিক উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রকাশিত একটি রিপোর্টের। এসব ভিক্ষুকের শতকরা প্রায় ৭৯ ভাগ অর্থাৎ ২১৪০ জনই নারী। আর পুরুষ শতকরা প্রায় ২১ ভাগ। তাদের মোট সংখ্যা ৫৭০।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

henry

২০২১-০৯-২৮ ১৪:৪০:৫০

সবচেয়ে বড় ভিক্ষুক হইল আমগো ছদকা খাওয়া হুজুররা, এগো হেদায়াৎ করা আশু প্রয়োজন !

Professor Dr, Mohamm

২০২১-০৯-২৬ ২২:৪৮:০৭

সৌদি আরবে ভিক্ষা বন্ধে জেল, জরিমানাসহ কঠোর আইন করা কোন ব্যাপার না কারন, রাজা বাদে আর সবাই ওখানে প্রজা । সেখানে, ভিক্ষা বন্ধে কঠোর আইনের প্রয়োজন নেই; শুধু বলে দিলেই হল । ইসলামে ভিক্ষা করাকে অপামান জনক কাজ বলে বিবেচনা করা হয় এবং উপরের হাত নীচের হাতের থেকে উৎকৃষ্ট, এটাও ইসলামের বিধানের একটি অংশ । আমাদের দেশে একটা ব্যাপার লক্ষণীয়; ভিক্ষুকদের একটই বিরাট অংশ ঢাকা মহানগরীর বাসিন্দা। এরা নাগরিক সকল সুযোগ সুবিধা নিচ্ছে কিন্তু, কোন উপকারে তো আসেনা বরং, এক ধরনের মহা উপদ্রব । তবে, এদের ভাল-মন্দের দায় দায়িত্ব থেকে আমরা পাশ কাটাতে পারিনা । এদের পুনর্বাসনের জন্য কর্ম সংস্থান করার জন্য সরকারি কর দাতার মত যাকাত আদায়ের জন্য সরকারী বাবস্থাপনা থাকা প্রয়োজন। ৯০% মুসলমানদের এই দেশে অনেকে জাকাত দিতে চান, কিন্তু সঠিক জায়গা খুজে পান না । এমতবস্থায়, সরকারি পৃষ্ঠ পোষকতায় যাকাত নেয়ার বাবস্থা করলে, ভিক্ষুকদের পুনর্বাসনের জন্য নতুন তহবিল সৃষ্টি করা সম্ভব হবে ।

Amir sultan

২০২১-০৯-২৬ ২০:৩৩:৩৩

@ Mahmud বাংলাদেশে কোনো ভিক্ষুক নেই বলে এবারের বাজেটে ভিক্ষুক পুনর্বাসনের জন্য কোনো বরাদ্দ রাখতে হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী। অর্থমন্ত্রী বলেন ‘দেশে এখন আর কোনো ভিক্ষুক নেই। যারা ভিক্ষুক ছিল, তাদের পুনর্বাসন করা হয়েছে। আমি অর্থমন্ত্রী হওয়ার পর গত বাজেটে ভিক্ষুকদের পুনর্বাসনের জন্য বরাদ্দ রাখতাম। কিন্তু এবারের বাজেটে কোনো বরাদ্দ রাখিনি। কারণ, দেশে কোনো ভিক্ষুক নেই।’

Mahmud

২০২১-০৯-২৫ ২২:৪৬:২৯

ঢাকার রাস্তায় ট্রাফিক সিগন্যালে গাড়ী থামার সাথে সাথেই গাড়ীর কাঁচের জানালায় শুরু হয়ে যায় টক্ টক্ আওয়াজ। ভিখারিরা ঝাঁকে ঝাঁকে দাঁড়িয়ে থাকে প্রতিটি ট্রাফিক সিগন্যালে ।‌‌প্রান্তিক মানুষ থেকে শিক্ষিত বেকার সবাই এখন হাত পাততে শুরু করেছে। উন্নতির বড় বড় কথা যারা বলেন তারা সেটা না দেখার কথা নয় ।

আপনার মতামত দিন

বিশ্বজমিন অন্যান্য খবর

আসলে কি ঘটছে পাকিস্তানে!

১৮ অক্টোবর ২০২১



বিশ্বজমিন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status