দ্বিতীয় দফার সিরিজ বৈঠক

মাঠের আন্দোলনের পরামর্শ নেতাদের

শাহনেওয়াজ বাবলু

শেষের পাতা ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:০৩ অপরাহ্ন

দ্বিতীয় দফা সিরিজ বৈঠকেও বিএনপি নেতারা মাঠের আন্দোলনের ওপর জোর দিয়েছেন। বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে দলের করণীয় ঠিক করতে দলীয় নেতাদের মতামত নিতে  সিরিজ বৈঠক করে বিএনপি। দুই দফার সিরিজ বৈঠকের নেতাদের মতামতের বিষয়ে করণীয় ঠিক করতে আজ শনিবার বৈঠকে বসবে বিএনপি’র জাতীয় স্থায়ী কমিটি। গত দু’দিনে বিএনপি’র ২০ জন নির্বাহীর কমিটির সদস্য ও জেলা সভাপতির সঙ্গে কথা হয় এ প্রতিবেদকের। তারা বলেন, সরকার হটাতে আন্দোলনের বিকল্প নেই। তাই আন্দোলনের সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নামতে হবে। সরকারবিরোধী সব দলকে একই প্ল্যাটফরমে আনতে কাজ করতে হবে। তাদের নিয়ে যুগপৎ আন্দোলন হতে পারে।
জোটের বিষয়ে নানা আপত্তি তুলে ধরে নেতারা বলেন, এক নেতার এক দল এমন দলের সঙ্গে জোট করে কোনো লাভ হবে না। বড় দলের সঙ্গে জোট হতে পারে। তবে যারা বিএনপি’র সভায় এসে আওয়ামী লীগ নেতার গুণকীর্তন করবে তাদের সঙ্গে জোট চাই না। জোট থেকে জামায়াতের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়ার দাবিও জানান অনেকে। তারা বলেন, যা কিছুই করা হোক, রাজপথের আন্দোলনে নেতৃত্ব দিতে হবে বিএনপিকেই। আন্দোলনের জন্য দলের তৃণমূল নেতাকর্মীরা প্রস্তুত আছে। তৃণমূলের সঙ্গে কেন্দ্রের সম্পর্ক আরও জোরদার করতে হবে। তাদের আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে।

এ সময় নেতারা বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সরকার পতনের দাবিতে শিগগিরই আন্দোলনের ঘোষণা দেয়ার কথা বলেন। তৃণমূল নেতাকর্মীরা জীবন বাজি রেখে এসব কর্মসূচি সফল করবেন বলেও তারা অঙ্গীকার করেন। একইসঙ্গে বিগত দিনের আন্দোলন-সংগ্রামের অভিজ্ঞতা থেকে রাজধানীতে কর্মসূচি সফল করার জন্য পরামর্শ এবং দাবি জানিয়েছেন তৃণমূলের নেতারা।

চট্টগ্রাম ও খুলনা বিভাগের একাধিক নেতা জানিয়েছেন, বিগত যেকোনো আন্দোলন-সংগ্রামে ঢাকার বাইরে সফল কর্মসূচি হয়েছে। বেশির ভাগ জেলাই নেতারা অচল করে দিতে পেরেছিলেন। কিন্তু রাজধানীতে আন্দোলন সফল করতে ব্যর্থ হওয়ার কারণে সারা দেশের আন্দোলনই ব্যর্থ হয়েছে। এজন্য এবার একযোগে সফল কর্মসূচি পালন করতে হবে। ঢাকায় যেসব নেতাকর্মী রয়েছেন তাদেরকে রাজপথে অবস্থানের নিশ্চয়তাও চান তারা।

গত মঙ্গলবার থেকে দ্বিতীয় দফায় বৈঠক শুরু হয়। বৃহস্পতিবার শেষ হয়। এর আগের মঙ্গলবার থেকে প্রথম দফার বৈঠক শুরু হয়। প্রথম দফায় তিন দিনে দলের ভাইস চেয়ারম্যান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য, যুগ্ম মহাসচিব, সাংগঠনিক সম্পাদকসহ সম্পাদকমণ্ডলী এবং ৯টি অঙ্গসংগঠনের সঙ্গে বৈঠক হয়। এরপর গত ২১শে সেপ্টেম্বর থেকে তিনদিন নির্বাহী কমিটির সদস্য, সারা দেশের জেলা এবং মহানগরের সভাপতির সঙ্গে ধারাবাহিক বৈঠক হয়। শেষদিন সাংগঠনিক বিভাগ রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল অঞ্চলের নির্বাহী কমিটির সদস্য, জেলা ও মহানগরের সভাপতিরা অংশ নেন। দুই দফার ধারাবাহিক বৈঠকে ৪৯১ জন অংশ নেন। তাদের মধ্যে ৩০০ জন বক্তব্য রাখেন। বৈঠকে লন্ডন থেকে স্কাইপিতে সংযুক্ত হয়ে সভাপতিত্ব করেন বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। মূল মঞ্চে ছিলেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

আপনার মতামত দিন

শেষের পাতা অন্যান্য খবর

রাহাত খুন

বেপরোয়া ‘ঘাতক’ সাদী

২৩ অক্টোবর ২০২১

দেড় বছরে সর্বনিম্ন ৪ জনের মৃত্যু

২৩ অক্টোবর ২০২১

একদিনে করোনার শনাক্তের হার ও মৃত্যু  আরও  কমেছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় সারা ...

টিআইবি’র গবেষণা

প্রান্তিক জনগোষ্ঠী নানা বৈষম্যের শিকার

২২ অক্টোবর ২০২১



শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status