অতিরিক্ত মদ্যপানে আরেক ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে

অনলাইন (৪ সপ্তাহ আগে) সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২১, শনিবার, ১:৩২ অপরাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ১০:০৫ পূর্বাহ্ন

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ্যপানের কারণে মারা যাওয়া কোতোয়ালি থানার ছাত্রলীগ নেতা রাফসান ইরফানের সাথে থাকা তার রাজনৈতিক ছোট ভাই মুনতাসির প্রিয়ামেরও মৃত্যু হয়েছে। রাফসানের মতো এই ছাত্রলীগ কর্মীরও মদের বিষক্রিয়ায় মৃত্যু হয়েছে বলে জানা যায়।
শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) রাত দুইটার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এই তরুণের মৃত্যু হয়। রাফসানের আরেক সহযোগী জাহাঙ্গীর আলম আকাশ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
জানা যায়, অতিরিক্ত মদ্যপানের কারণে শুক্রবার সকালে মারা যাওয়া রাফসানের লাশের সাথে তার সহযোগী প্রিয়াম ও রায়হানকে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ থেকে বিকেলে চট্টগ্রামে নিয়ে আসা হয়। পরে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ভর্তি করানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। চমেক হাসপাতালে ভর্তি থাকা রাফসানের আরেক সহযোগী রায়হানের অবস্থাও আশঙ্কাজনক।
একাধিক সূত্রে জানা গেছে, গত ১৫ই সেপ্টেম্বর রাফসান তার সহযোগী প্রিয়াম ও রায়হানসহ চারজনকে নিয়ে কক্সবাজার বেড়াতে যান।
সেখানে তারা ‘বে ওয়ান্ডারস’ নামে একটি হোটেলে অবস্থান করেন। বৃহস্পতিবার (১৬ই সেপ্টেম্বর) গভীর রাত পর্যন্ত হোটেলে তারা মদ পান করেন। পরে তারা ঘুমিয়ে পড়ে। এর মধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়ে রাফসানসহ কয়েকজন। পরে তাদেরকে কক্সবাজারের বেসরকারি একটি হাসপাতালে নিয়ে যায়। অবস্থা আরো খারাপ হলে তাদেরকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানেই রাফসান ইরফানের মৃত্যু হয়। আর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ২ টার দিকে প্রিয়ামও মারা যায়।
জানা যায়, নিহত রাফসান ও প্রিয়ামের বাড়ি নগরের কোতোয়ালি থানার এনায়েতবাজার বাটালি রোড এলাকায়। এদের মধ্যে রাফসানের দলের তার কোন পদ পদবী না থাকলেও এলাকায় তিনি ছাত্রলীগ নেতা হিসেবে পরিচিত ছিলেন। একসময় সিটি মেয়র আ জ ম নাসির গ্রুপে থাকলেও সামনের কাউন্সিলে কোতোয়ালি থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদের আশ্বাসে তিনি সম্প্রতি উপমন্ত্রী নওফেল গ্রুপে যোগ দেন। এই ঘটনায় মারা যাওয়া প্রিয়াম তার ঘনিষ্ঠ অনুসারী বলে পরিচিত।
কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মহিউদ্দিন আহমেদ জানান, চট্টগ্রাম থেকে বেড়াতে আসা ৪ বন্ধু কলাতলীর একটি হোটেল ওঠেন। তারা সকলে অতিরিক্ত মদ পান করেন। এতে ৩ জন শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সকালে অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাদের মধ্যে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাফসানের মৃত্যু হয়। অন্য ২ জনকে চট্টগ্রামে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) রাত সোয়া ২টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় প্রিয়াম মারা যান।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

mukammel haque

২০২১-০৯-২০ ১৫:১৩:০১

dekha hobe poropare

Kibria

২০২১-০৯-১৮ ১৮:০৭:০০

ছাত্রলীগ মদ খেয়ে মাতাল হয়ে মারা গেল????? মনে হচ্ছে শিবির মদ হয়ে পেটে গিয়ে ফুটবল খেলেছিল।

Mohammad S Islam

২০২১-০৯-১৮ ১৮:০০:৫১

They started and gave resistance only few days, then left the scene. Enemy killed innocent people who were ignorant and poor, don not know about politics and don't have money to move their family. This happened in every country's freedom war. At some point occupier leave the scene when other party come back and fight each other to grab the power. Who survive the second fight repeat the same process of killing other calling them enemy and trouble maker.

Khokon

২০২১-০৯-১৮ ০৪:৩১:২৩

We had fought for independence about seven and half core people. All are were freedom fighter and all were Bangladeshi awamilegue. Now we are all most eighteen core people but not support of awamilegue but we awamilegue leaders.

Desher Bhai

২০২১-০৯-১৮ ১৭:১৮:২৩

Spending free mafia money through drinking.

জীবন মানে যুদ্ধ

২০২১-০৯-১৮ ০৪:০০:৫৩

আহ! এক্কেবারে জাহান্নামে।

Mamun Hazari

২০২১-০৯-১৮ ০২:২৫:৫২

সত্যিকার ছাত্রলীগ করে মনে হচ্ছে

S.M.Shamsuzzoha

২০২১-০৯-১৮ ১৪:৫৩:২৮

Real Leader.

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

শনাক্তের হার ১.৭৪

করোনায় আরও ১৬ জনের মৃত্যু

১৭ অক্টোবর ২০২১



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



তদন্ত কমিটি গঠন

চাঁদপুরে সংঘর্ষ, নিহত ৩

DMCA.com Protection Status