যৌতুকের বলি কাকলী

নবাবগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি

অনলাইন (৫ দিন আগে) সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২১, বুধবার, ১০:৪৭ পূর্বাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ১১:৫০ অপরাহ্ন

ঢাকার নবাবগঞ্জে কাকলী আক্তার (২০) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। কাকলীর পরিবারের দাবি তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। গত ৫ই সেপ্টেম্বর উপজেলার শিকারীপাড়া ইউনিয়নের বক্তারনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর থেকেই মৃত কাকলীর স্বামী রাজ্জাকসহ ও তার পরিবারের সবাই পলাতক রয়েছে। ঘর তালাবদ্ধ রয়েছে।
কাকলীর মা ফিরোজা বেগম অভিযাগ করে বলেন, “আমার মেয়ে আত্মহত্যা করেনি, ওরা আমার মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে খুন করেছে। ওর ঘাড় ভাঙা ছিল। ওর মুখে কানে কোন বিষাক্ত জিনিসের গন্ধ আমি পাইনি। যৌতুকের জন্য আমার মেয়েকে সব সময় মারধর করতো।
ওরাই আমার মেয়েকে মেরে ফেলেছে। ওরা যদি অপরাধী না হয় তবে কেন পালিয়েছে। আমি আমার মেয়ের খুনের বিচার চাই।”
তিনি আরও জানান, দুই বছর আগে শিকারীপাড়া ইউনিয়নের বক্তারনগর গ্রামের আব্দুল রাজ্জাকের সঙ্গে তার মেয়ে কাকলীর বিয়ে হয়। বিয়ের সময়ও বরকে স্বর্ণ ও আসবাবপত্রের পাশাপাশি যৌতুক হিসেবে নগদ ২০ হাজার টাকা দেয়া হয়েছিল। এরপরও জামাই আমার মেয়েকে প্রায় টাকার জন্য চাপ দিতো। টাকার জন্য প্রায় ওর উপর নির্যাতন করতো। রাজ্জাক নেশাগ্রস্ত প্রায় থাকতো। ওর বন্ধু অটোচালক বাবুর গাড়িতে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় শুনেছি। বাবু অনেক কিছু জানে। বাধ্য হয়ে মেয়ের সুখের জন্য কিছুদিন আগে আরো ১ লাখ টাকা দেওয়া হয়েছে। তবুও জামাই ও তার পরিবারের লোকজন আমার মেয়ের উপর নির্যাতন করতো। গত ৪ঠা সেপ্টেম্বর রাত ১২টায় মেয়ে আমাকে জানায় ওকে একা রেখে স্বামী গান শুনতে গেছে। রাত ১টার দিকে জামাই রাজ্জাক ফোন দিয়ে আমাকে বলে সকালে এসে আমি যেন মেয়েকে নিয়ে যাই। কি হয়েছে জিজ্ঞাসা করলে সে কোন উত্তর দেয়নি। এরপর ভোর ৩টা ২১ মিনিট জামাই বাড়ির থেকে আমাকে জানায় কাকলীর অবস্থা ভাল না, হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। এরপর তাদের সাথে আর যোগাযোগ করেত পারি নাই। সকালে মেয়ের বাসায় গিয়ে দেখি ঘরের বারান্দায় মেয়ের লাশ রেখে ঘরে তালা দিয়ে ওরা সবাই পালিয়ে গেছে। খবর পেয়ে রোববার দুপুরে নবাবগঞ্জ থানার পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করেন।
নবাবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সিরাজুল ইসলাম শেখ জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল শেষ করে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ ঢাকা পাঠানো হয়েছে। বাদীর আবেদনের প্রেক্ষিতে পুলিশের নজরদারি করছে । আসামিরা বাড়িতে তালা লাগিয়ে পলাতক রয়েছে। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসার পর পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে । আশা করি প্রকৃত রহস্য উদঘাটন করতে পারবো।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

ওয়াহিদ নূর

২০২১-০৯-১৫ ১১:৫৮:৪৬

ইতিহাস বলে, উত্স থেকে অপরাধ উপড়ে ফেলুন। এর জন্য আমাদের যা করতে হবে, আমাদের নিশ্চিত করতে হবে প্রকৃত অপরাধীদের শাস্তি হচ্ছে। । প্রকৃত অপরাধী যখন শাস্তি পায়, তখন সবাই বিচারের রায় মেনে নেয়। কিন্তু আমাদের বিচার ব্যবস্থায়, অনেক ক্ষেত্রে দোষী এবং তার পরিবার মামলার রায় এবং প্রদত্ত মামলার শাস্তি মেনে নেয় না। কারণ, দোষী ব্যক্তি মনে করেন, তাকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে কিন্তু প্রকৃত অপরাধী শাস্তিবিহীন রয়ে গেছে।

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

বিনিয়োগ ও পরিবহনমন্ত্রীর সঙ্গে সালমান এফ রহমানের বৈঠক

বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী সৌদি আরব

২০ সেপ্টেম্বর ২০২১

শনাক্তের হার ৫.৬৭

করোনায় আরও ২৬ জনের মৃত্যু

২০ সেপ্টেম্বর ২০২১

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাংবাদিক নেতাদের সাক্ষাৎ-

‘ব্যাংক হিসাব তলবের চিঠি এভাবে দেয়া উচিত হয়নি’

২০ সেপ্টেম্বর ২০২১



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



বাংলাদেশের উন্নয়নে সৌদি বিনিয়োগ বৃদ্ধির প্রত্যাশা

সালমান এফ রহমানের নেতৃত্বে সৌদিতে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ প্রতিনিধি দল

DMCA.com Protection Status