খুলনা মহানগরীর ফুটপাথে দখলদারদের দৌরাত্ম্য

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা থেকে

বাংলারজমিন ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, বুধবার

খুলনা মহানগরীতে ফুটপাথ দখলে মেতে উঠেছে ভ্রাম্যমাণ হকার ও স্থায়ীভাবে ফুটপাথ দখলকারীরা। যে কারণে সড়কে সৃষ্টি হচ্ছে যানজট ভোগান্তিতে পড়ছেন পথচারীরা। খুলনা নগরীর বিভিন্ন মার্কেটের সামনে ও ব্যস্ততম সড়কে ওপর এসব ভ্রাম্যমাণ হকার ফুটপাথ দখল করলেও নেয়া হচ্ছে না কার্যকর কোনো ব্যবস্থা। তাছাড়া নগরীতে অতিরিক্ত যানজট বেড়ে প্রতিদিন হচ্ছে ছোট বড় দুর্ঘটনা।
পথচারী মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, করোনাকালীন সবাইকে মাস্ক পরিধান ও তিন ফুট দূরত্ব রেখে চলাচলের যে নির্দেশনা ছিল তা মানা হচ্ছে না খুলনা মার্কেটগুলোতে। বিশেষ করে ডাকবাংলো, বড় বাজার, শপিং কমপ্লেক্স, জলিল মার্কেটসহ এমন কোনো মার্কেট নেই যে ফুটপাথ দখলদার বাহিনী চোখে পড়ে না। সড়কের মাঝখানে এসব হকার একটি ভ্রাম্যমাণ ভ্যান নিয়ে শার্ট, টি-শাট, প্যান্ট, বিভিন্ন ফল ও খাদ্য সামগ্রীসহ জিনিসপত্র বিক্রি করছে।
ডাকবাংলো এলাকার ব্যবসায়ী হাসান-উল্লাহ বলেন, এখানে যেসব হকার রয়েছে এদের কাছ থেকে নিয়মিত চাঁদা আদায় করছে ব্যবসায়ী মালিক সমিতির লোকেরা।
পাশাপাশি যে দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে ব্যবসা করবে সেসব দোকানদারও নিয়মিত আদায় করছেন হকারদের কাছ থেকে টোকা। যে কারণে ফুটপাথে হকার-ব্যবসায়ীদের আনাগোনা বেশ বেড়েছে। বর্তমান ডাকবাংলো মোড়ে অতিরিক্ত হকার দেখা যায়। তবে প্রশাসন মাঝেমধ্যে একটু ঝামেলা করে। তাছাড়া অতিরিক্ত সমস্যা দেখলে ভ্যান নিয়ে অন্যত্র চলে যায়, আবার সব স্বাভাবিক হলে জড়ো হয় আবারো সড়কে ফুটপাথে।
পথচারী সোহেল রানা বলেন, সড়কে অতিমাত্রা হকার বেড়েছে। পাশাপাশি বেড়েছে ভ্যানে করে বিক্রির ভ্রাম্যমাণ হকার। পথচারীরা কম মূল্যে বিভিন্ন জিনিসপত্র ক্রয় করার জন্য এ হকারদের ঘিরে দাঁড়িয়ে থাকে। যে কারণে আরও বেশি জটলা সৃষ্টি হয়। পথের মাঝে এমন জটলা তৈরি হলে অবশ্যই যানজট হয়। তাছাড়া মাঝেমধ্যে খুলনা সিটি করপোরেশন থেকে এসব অবৈধ ফুটপাথ দখলদারদের বিরুদ্ধে অভিযানে নামে। আবার কয়েকদিন পরই আগের মতো ফুটপাথ নিয়ন্ত্রণে নেয় এসব হকার-ব্যবসায়ীরা। মূলত এর পাশে রয়েছে একটি বড় সিন্ডিকেট যাদের ছত্রছায়ায় এসব ফুটপাথ দখল করে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। এদের নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে আরও যানজট তৈরি হবে। নগরীর সৌন্দর্য বাধগ্রস্ত হবে। করোনাকালীন এদের নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে বৃদ্ধি পেতে পারে সংক্রমণ।
দখলদার ভ্রাম্যমাণ হকার মিলন বলেন, পেটের দায়ে হকারি করছি। প্রতিদিন কত টাকা দিয়ে এখানে ব্যবসা করি সব কথা বলা যাবে না। তাছাড়া ফ্রিতে তো কেউ ব্যবসা করতে দেবে না। মাঝেমধ্যে প্রশাসনের পক্ষ থেকে অভিযানে আসে। যে কারণে এখন ভ্যানে করে প্যান্ট-গেঞ্জি বিক্রি করছি। অবস্থা খারাপ হলে যেন দ্রুত চলে যেতে পারি।
এ ব্যাপারে খুলনা সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র-১ আমিনুল ইসলাম (মুন্না) বলেন, ফুটপাথ দখলমুক্ত করার জন্য কাজ করা হচ্ছে। তাছাড়া করোনাকালীন সংকট পরবর্তী সবকিছু স্বাভাবিক হবে।

আপনার মতামত দিন

বাংলারজমিন অন্যান্য খবর

জায়গা নেই লাশ দাফনের

যশোরের দুঃখ খ্যাত ভবদহের ৫৩ গ্রাম পানির নিচে

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

কিশোরদের হাত ধরে স্বাবলম্বী

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

ছাতকে শিক্ষককে ছুরিকাঘাত

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

ছাতকে ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হয়েছেন এক স্কুল শিক্ষক। গত বৃহস্পতিবার বিকালে দক্ষিণ খুরমা ইউনিয়নের মায়েরকোল ...

বিসিক শিল্প মালিক সমিতি গোটাটিকর সিলেটের সভা

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

বিসিক শিল্প মালিক সমিতি গোটাটিকর সিলেটের নিয়মিত মাসিক সভা সম্পন্ন হয়েছে। নগরীর একটি অভিজাত রেস্টুরেন্টের ...

সিলেটে স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মিসভা অনুষ্ঠিত

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি সুব্রত পুরকায়স্থ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিটি ...

যশোরে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

যশোরের ঝিকরগাছায় ইমরুল কায়েস পরাগ (২৩) নামে একজন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা ...



বাংলারজমিন সর্বাধিক পঠিত



বেসিক ব্যাংক কর্মকর্তার মৃত্যু

সিসি ক্যামেরা ফুটেজে ছাদে দৌড়ানোর দৃশ্য

DMCA.com Protection Status