অন্তর্দ্বন্দ্বে মোল্লা বারাদারের নিহত হওয়ার দাবি উড়িয়ে দিল তালেবান

মানবজমিন ডেস্ক

বিশ্বজমিন (৪ দিন আগে) সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১, মঙ্গলবার, ৫:৩৯ অপরাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ১০:৪৪ পূর্বাহ্ন

তালেবান সরকারের ডেপুটি প্রধানমন্ত্রী মোল্লা আব্দুল গণি বারাদার এক সংঘর্ষে প্রাণ হারিয়েছেন এমন দাবি উড়িয়ে দিয়েছে সংগঠনটি। এ নিয়ে টুইটারে একটি বার্তা দিয়েছেন তালেবানের মুখপাত্র সুলাইল শাহীন। এতে তিনি বলেন, এমন দাবি মিথ্যা ও সম্পূর্ন ভিত্তিহীন। এর আগে গুজব ছড়িয়েছিল যে, তালেবানের মধ্যেকার দ্বন্দ্ব থেকে রক্তক্ষয়ী সংঘাত ছড়িয়ে পড়লে তাতে নিহত হন মোল্লা বারাদার। এ নিয়ে একটি অডিও বার্তা দিয়েছেন বারাদার, যাতে তার মৃত্যুর দাবিকে উড়িয়ে দিয়েছেন তিনি। এরপর তালেবানের পক্ষ থেকেও বারাদারের একটি ভিডিও চিত্র প্রকাশ করা হয়। যাতে দেখা যায় বারাদার কান্দাহারে একটি বৈঠকে আলোচনা করছেন।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, গত কদিন ধরেই শোনা যাচ্ছিল যে বারাদার ও সিরাজুদ্দিন হাক্কানির সমর্থকরা নিজেদের মধ্যে সংঘাতে জড়িয়েছে। সিরাজুদ্দিন হাক্কানি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হাক্কানি নেটওয়ার্কের প্রধান।
মূলত পাকিস্তানের অভ্যন্তরে ও সীমান্তাঞ্চলে সক্রিয় হাক্কানি জঙ্গিরা। এই বাহিনী মূলত আত্মঘাতি বোমা হামলার জন্য পরিচিত। অপরদিকে বারাদার ছিলেন তালেবানের রাজনৈতিক শাখার প্রধান। তিনিই মূলত কাতারে বিদেশিদের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে গেছেন। যে চুক্তির ভিত্তিতে মার্কিন সেনারা আফগানিস্তান ছেড়েছে সেটির দর কষাকষিও করেছেন বারাদারই। এরপর থেকেই তালেবানের মধ্যে দ্বন্দ্বের খবর পাওয়া যায়। বিভিন্ন রকমের খবর আসতে থাকে গণমাধ্যমে যা থেকে ধারণা করা হয় সংগঠনটির মধ্যে এখন বারাদার ও হাক্কানির আলাদা দুটি সমর্থকগোষ্ঠী সৃষ্টি হয়েছে। যদিও তালেবান এমন দাবি অস্বীকার করেছে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Professor Dr, Mohamm

২০২১-০৯-১৪ ২২:৫২:১৭

ছবিতে দৃশ্যমান পাঁচ জনের পরনের পোশাক মামুলী তবে তাতে ময়লা আছে বলে মনে হয়না । বিশ্বাস হতে চায়না যে, এরাই দুই পরা শক্তিকে তাদের দেশ থেকে হটিয়েছে । অবশ্যই আসছে দিন গুলোতে আফগানিস্তানে কোন পিকনিক হবে না কারন, সেখানে যুদ্ধ পরবর্তী সঙ্কটের সমাধান জরুরি । উল্লেখ্য, ১৯০ বছর ভারত শাসন করার পর যাবার বেলায়, ইংরেজ অনেক কষ্ট পেয়ে ভারত ভাগ করে জাতিগত দন্দের কারনে যে রক্তের বন্যা শুরু করেছিল তা আজও সেখানে শেষ হয় নি । সুখের বিষয়, ৪০ বছর রাশিয়া, গোটা পাশ্চাত্য আর আমেরিকানদের সাথে যুদ্ধ করেও আফগানরা কিন্তু ভাগ হয়ে যাইনি বা নতুন করে প্রতিবেশী দেশে উদ্বাস্তু হয়নি বা প্রতি হিংসার আগুনে সেখানে এখনো রক্ত গঙ্গা বইতে শুরু করেনি; যা ভেবে দেখার বিষয় ।

MD.ABDUL BAREK

২০২১-০৯-১৪ ১৯:৫০:৩৯

তালেবানরা লোক ভালো না ইসলামের নাম দিয়ে ইসলাম বিরোধী কাজ করে

Joy

২০২১-০৯-১৪ ০৬:১৯:১২

You guys are all Taliban and go to Afganistan. Illiterate people.

ranju

২০২১-০৯-১৪ ১৮:৫৮:৪৮

এসব পঁচা গল্প বাদ দিন ২০ বছরে আমেরিকা কত নিরীহ মানুষকে হত্যা করল কিংবা তালেবানের হাতে আমেরিকানরা কেমন মার খেল তার গল্প কাহিনী দিন

Adv. N. I. Bhuiyan

২০২১-০৯-১৪ ০৫:০৪:৫৫

তালেবানের উচিত পশ্চিমাদের যে সকল দালাল আলবদর আলশামস তাদের দেশে আছে বা পালিয়ে গেছে তাদের বিচারের মাধ্যমে উপযুক্ত ও দীর্ঘকালীন আটকের শাস্তি দেওয়া কারণ তারা আফগানিস্তানের জনগণকে শান্তিতে থাকতে দিবে না এরা দীর্ঘ 20 বছর আফগানিস্তানকে পরাধীন রাখতে সচেষ্ট ছিল এদেরকে ক্ষমা করলে কখনোই শান্তি আসবে না বলে মনে হয়

আপনার মতামত দিন

বিশ্বজমিন অন্যান্য খবর

ট্যাক্সিতে এখন ছাদবাগান

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১



বিশ্বজমিন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status