ডা. জাহাঙ্গীর কবীরের ব্যাখ্যা

অনলাইন ডেস্ক

অনলাইন (১ মাস আগে) আগস্ট ৩, ২০২১, মঙ্গলবার, ১:৪৯ অপরাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ১০:৪০ পূর্বাহ্ন

কিছু বক্তব্য নিয়ে তৈরি হওয়া বিতর্কের ব্যাপারে ব্যাখ্যা দিয়েছেন আলোচিত চিকিৎসক ডা. জাহাঙ্গীর কবীর। ফেসবুক পেজে দেয়া এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, সুস্থ থাকার লক্ষ্যে একটি স্বাস্থ্যকর জীবনধারা নিয়ে আমি কাজ করছি। সেই লক্ষ্যে দীর্ঘ দিন ধরে আমার রোগীদের লাইফস্টাইল মডিফিকেশনের পরামর্শ দিয়ে আসছি। ইদানিংকালে আমার একটি ভিডিও এবং দুইটি পোস্ট নিয়ে আলোচনার সৃষ্টি হয়েছে। প্রথমত সুস্থ থাকার জন্য রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো বিষয়ে গুরুত্বারোপ করে আমি একটি ভিডিও পোস্ট করেছিলাম সেখানে করোনার ভ্যাক্সিন বিষয়ে কিছু তথ্য সহজভাবে বোঝাতে গিয়ে আমার অসাবধানতা বশত ভুল ব্যাখ্যা দিয়েছিলাম। এ নিয়ে সমালোচনার সৃষ্টি হলে আমি অত্যন্ত দ্রুততার সাথে ভিডিওতে যে তথ্যগুলো ভুল ছিল এবং যে কথাগুলো জনমনে বিভ্রান্তি ছড়াতে পারে সেসব বিষয়ে সুস্পষ্ট বক্তব্য দিয়ে পূর্বের ভিডিওটি অনলাইন থেকে সরিয়ে নিয়েছি। একইসাথে সকলকে ভ্যাক্সিন দেওয়ার জন্য পরামর্শ এবং উৎসাহ দিয়েছি। এরপরেও কয়েকজন সম্মানিত ডাক্তার আমাকে ভুল বুঝে সরাসরি আমার নাম উল্লেখ করে নানান রকম পোস্ট করেন।
তন্মধ্যে একটি পোস্টের স্ক্রিনশট আমি আমার পেইজে শেয়ার করেছিলাম। এছাড়া অন্য একটি জনসচেতনতামূলক পোস্টে উদাহরন স্বরুপ একটি প্রেসক্রিপশন শেয়ার করেছিলাম। ঐ প্রেস্ক্রিপশনটি যিনি লিখেছিলেন তার প্রতি সম্মান প্রদর্শনপূর্বক আমি তার নাম ও রেজিস্ট্রেশন নাম্বারটি প্রকাশ করিনি। তথাপি এই পোস্টটি নিয়ে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হলে তৎক্ষণাৎ দুটি পোস্টই ডিলিট করে দেই। আমি বিশ্বাস করি আমাদের ডাক্তার সমাজের প্রত্যেকেই নিজ নিজ অবস্থান থেকে জনসেবা করে যাচ্ছেন, মানবিক কাজ করে যাচ্ছেন, এজন্য প্রত্যেক ডাক্তারই আমার কাছে অত্যন্ত সম্মানিত ও শ্রদ্ধাভাজন। একজন ডাক্তার হিসেবে আমি কখনোই কাউকে অসম্মান করতে পারি না এবং আমি তা করতে চাইও না। তবুও আমার অনিচ্ছায় তা হয়ে থাকলে তার জন্য আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত ও ক্ষমাপ্রার্থী। উপরোক্ত বিষয়গুলোর বাইরে আরও যে বিষয়ে সমালোচনা এসেছে তার মধ্যে অন্যতম হল আমার পরামর্শকে কিটো ডায়েট হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। এই বিষয়ে আমি বহুবার নানান ভিডিওর মাধ্যমে বলেছি যে আমি শুধুমাত্র ডায়েট বা খাদ্যাভ্যাস নিয়ে কথা বলি না। আমি মূলত পাঁচটি বিষয়ের উপর গুরুত্ব দিয়ে পরামর্শ দিয়ে থাকি। এর মধ্যে স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের পাশাপাশি অটোফেজি, পর্যাপ্ত ঘুম, নিয়মিত ব্যায়াম ও মানসিক প্রশান্তির চর্চা করাকে সমানভাবে গুরুত্ব দেই। আমি কখনোই ঔষধ বিরোধী না, আমি সব সময় বলে এসেছি জরুরী চিকিৎসায় ঔষধ অপরিহার্য। তবে লাইফস্টাইল রোগগুলো লাইফস্টাইল মডিফাই করে প্রতিরোধ করা যেতে পারে এবং সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। আমিও আমার রোগীদের প্রয়োজনে ঔষধ লিখছি সুতরাং ঔষধের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। আমি সাধারন মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করার চেষ্টা করছি যেন স্বাস্থ্যকর জীবন যাপনের মাধ্যমে দীর্ঘদিন ঔষধ ছাড়া সুস্থ থাকতে পারেন। বিশেষভাবে উল্লেখ্য যেসব রোগীরা সরাসরি আমার পরামর্শ নেন আমি তাদেরকে নিয়মিত অবজারবেশনে রাখার চেষ্টা করি এবং কাউন্সেলিং এর মাধ্যমে আমার পরামর্শের নানান প্রভাব ও প্রতিকারের বিষয়ে আলোকপাত করে থাকি। সর্বপরি আমি মনে করি চিকিৎসক সমাজে আমরা সবাই সহকর্মী, একে অপরের সহযোগী। এখানে রয়েছেন আমার সম্মানিত শিক্ষক-শিক্ষিকাগন, শ্রদ্ধাভাজন বড় ভাই-বোন,বন্ধুরা ও আগামীর সম্ভাবনাময় জুনিয়র ডাক্তারগন। জনস্বার্থে সকল চিকিৎসকই একেকজন যোদ্ধা। করোনা মহামারীর এই চরম দুর্দিনে ডাক্তারদের মত যোদ্ধারাই নিজেদের জীবন ঝুঁকির কথা ভুলে জরাগ্রস্থ মানুষের পাশে থেকেছে এখনো আছে। আজকের পুরো বিশ্ব চিকিৎসা বিজ্ঞানের উন্নয়ন ও বাস্তবায়নের সাথে জড়িত সকলের কাছে কৃতজ্ঞ।আমি সকলের প্রতি সম্মান রেখে বলছি মানুষ মাত্রই ভুল হতে পারে তাই আপনারা আমার কোন ভুল ধরিয়ে দিলে আমি তা শুধরে নিব। নিজের ভুলকে আমি ভুল হিসেবে গ্রহণ করে তা শুধরে নিব আর আপনাদের কাছেও আমার অনুরোধ আপনারা আমার পূর্বের ভুলগুলো ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। কেননা আমরা তো সকলে মিলে মানব সেবার ব্রতেই চিকিৎসা পেশাকে বেছে নিয়েছি আর সেজন্য আমরা একে অপরের প্রতি সম্মান রেখে একযোগে কাজ করতে পারি। আমি নিজেও একজন চিকিৎসক, সবসময়ই প্রত্যেক চিকিৎসকের সম্মান রক্ষা ও অবদান স্বীকার আমার কাছে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য পায়। বহু আগে থেকেই আমি নিজেও চিকিৎসকদের নিরাপত্তা, অধিকার ও দায়িত্ব নিয়ে সোচ্চার আছি। সেই লক্ষ্যে আমি ফাউন্ডেশন ফর ডক্টরস সেফটি, রাইটস এন্ড রেসপন্সিবিলিটিস (FDSR) এর সাথে প্রোগ্রাম করেছিলাম, তা আমার পেইজ থেকে শেয়ার করেছিলাম সকলের উদ্দেশে। তবুও মানুষ হিসেবে আমি ভুলের উর্ধে নই। তাই আমার কথায় হয়তো অনেক সহকর্মী - সিনিয়র চিকিৎসক কষ্ট পেয়েছেন কিংবা মনক্ষুন্ন হয়েছেন। আমি তাদের সবার প্রতি আন্তরিকভাবে দুঃখিত ও ক্ষমাপ্রার্থী।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

M.A. Quayum

২০২১-০৮-০৫ ১৪:৫১:২৭

We feel proud of Dr. Zahangir Kobir. I've benefited much through following his suggestions. Really He is a blessing for Bangladesh.

আমিক

২০২১-০৮-০৪ ১৩:২৪:২০

এডভোকেট আব্দুস সাহেব, পিথাগোরাস মিশরীয় ছিলেন। সেটা হেলেনিসটিক যুগ। সে অর্থে এতে কোন সমস্যা নেই। ডাক্তার মাজিদ যদি সত্যি বলে থাকেন যে ডাক্তার জাহাঙ্গীর অন্যের কাজ নকল করে শুধু অনুবাদ করে নিজের নামে চালিয়েছেন, তাহলে তা গুরুতর অন্যায়, অনৈতিক এবং পেশাগত আচরন বহিরভুত। মুল কাজ যার, তাকে স্বীকৃতি দেওয়া উচিত। এটা শুধু গবেষণার বেলায় নয়, সব ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। একই সাথে আমি ডাক্তার জাহাঙ্গীরকে ফুটপাথের ডাক্তার বলারও নিন্দা করি। এটা অত্যন্ত নোংরা এবং অপেশাদার আচরন।

mokaram

২০২১-০৮-০৪ ১২:৪০:৫৪

Dr. Mojid উনি কোন মানের ডাঃ তা উনার কমেন্ট থেকেই বুজা গেল

আলমগীর সারওয়ার

২০২১-০৮-০৪ ১২:১৪:০৫

ডা. মজিদ, আমি ডা. জাহাঙ্গীর কবিরের প্রায় প্রতিটি ভিডিও দেখেছি । উনি কিন্তু অটোফেজির মূল আবিষ্কারক জাপানী এক ডাক্তারের কথা মাঝে মাঝে বলেছেন । আপনি শুনেননি এটা আপনার সীমাবদ্ধতা । এরকম অনুমান নির্ভর কথা আমরা সাধারণ মানুষ কোন ডাক্তার থেকে আশা করিনা । ডা. জাহাঙ্গীর কবিরের মত এমন ভালো মানুষের সমালোচনা করার পূর্বে যে কোন মানুষকে আগে সহস্রাবার ডা. জাহাঙ্গীরকে স্টাডি করতে হবে । এ বিষয়ে পবিত্র কুরআনের উদ্ধৃতি : ‘যে বিষয়ে তোমার কোনো জ্ঞান নেই, সেই বিষয়ে অনুমান দ্বারা পরিচালিত হইয়ো না। নিশ্চয় কর্ণ, চক্ষু ও হৃদয় ওদের প্রত্যেকের কাছে কৈফিয়ত তলব করা হবে’ (সূরা বনি ইসরাইল, আয়াত-৩৬) । মহান আল্লাহর কাছে আপনার সুস্থতা কামনা করছি ।

Mohammad Sorwar

২০২১-০৮-০৩ ১১:০৪:৩৬

Dr Great, best of luck

sajun khan

২০২১-০৮-০৩ ২৩:৫৫:৪০

salam sir thank you

আলমগীর সারওয়ার

২০২১-০৮-০৩ ০৯:৫৭:০১

ডাঃ জাহাংগীর প্রমাণ করেছেন বড় বড় ডাক্তারী ডিগ্রী না থাকলেও সদিচ্ছা, সততা,একনিষ্ঠতায় মানুষের মধ্যমণি হওয়া যায় যা অন্যান্য ডাক্তারদের জন্য অনুকরণীয়।

আলমগীর সারওয়ার

২০২১-০৮-০৩ ০৯:৪৬:১৭

বাংলাদেশের চিকিৎসা ক্ষেত্রে ডাঃ জাহাংগীর চির স্মরণীয় হয়ে থাকবেন। ইউরোপ- আমেরিকা হলে তিনি নোবেল পুরস্কার পেতেন। যে ডাক্তারগণ তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ করছেন তাঁরা কি কখনো রুগিদের বলেছেন- ঔষধ নয়, খাদ্যাভ্যাস এবং লাইফস্টাইল পরিবর্তনে এসিডিটি সমস্যা/ গ্যাস্টিক ভালো হয় ?

Advocate Md. Abdus S

২০২১-০৮-০৩ ২২:০৩:২৪

ড. মজিদ, গবেষণা বা বই লিখতে রেফারেন্স দিতে হয়। আমরা যারা যেটাকে পিথাগোরাসের উপপাদ্য বলি সেটা আসলে মিশরীয়দের আবিষ্কার, আপনি পিথাগোরাসকে কি বলবেন? আপনি যখন প্রেসক্রিমশন লিখেন, তখন কি আপনি কে কি আবিষ্কার করেছে সেটা লিখে ব্যবস্থাপত্র দেন? উনি যদি ট্রেড মার্ক বা পেটেন্ড নিতে চান তাহলে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষেআছে, তারা দেখবে, আপনার বলার কিছু নাই। এজন্য কর্তৃপক্ষ আছে। সব দায়িত্ব যদি আপনি পালন করতে চান তাহলে রাষ্ট্র চলবে না। আপনার দায়িত্ব আপনি পালন করেন, সে যদি প্রতারণা করে থাকেন তার জন্য আইন আদালত আছে, আপনিও মামলা করতে পারেন জনগণের পক্ষে। শুধু ডা. জাহাঙ্গীর কবির নয় বাংলাদেশ অনেক মানুষ আছে, ইরেজি বই এর বাংলা অনুবাদ করে নিজের নামে চালিয়েছে। শুধু বাঙ্গালীরা নয়, একাজ হাজার হাজার বছর আগে থেকেই সারা দুনিয়াই চলছে। তবে উনি যদি কারো থেকে পড়ে বাঙ্গালিদের মাঝে বিতরণ করতে পারে তাহলে আপনারা ব্যর্থ হলেন কেন? ভুলচুক মানুষের হতে পারে, আপনারও হয়েছে আপনি তো ফেরেস্তা নন। অন্যকে বড় করে নিজে বড় হওয়া যায়, কাউকে ছোট করে নিজে বড় হওয়া যায় না।

Wadud

২০২১-০৮-০৩ ০৮:৪১:০৩

অনেক ধন্যবাদ আপনাকে। নিজেকে সমালোচকদের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে বরং নিজেকেই সম্মানিত করেছেন।ভুল স্বীকার এবং আত্ম উপলব্দি একটি বিশেষ গুন,যা সবার মধ্যে থাকে না।

Faruqe

২০২১-০৮-০৩ ২১:০০:৩৬

জাহাঙ্গীর কবির স্যার , আপনি ভয় পাবেন না। আপনার পাশে আমি সহ এদেশের লক্ষ লক্ষ রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া মানুষ আছে ।আমি প্রতিদিন নিজে ১৫/১৬ টা ঔষুধ খেতাম। এখন খাওয়া লাগেনা। যেসকল ডাক্তার নামের কশাইদের ব্যাবসায় ধবস নেমেছে তারাই আপনার বিরোদ্ধে সড়যন্র করছে। আপনি দিশাহারা রোগীদের পথ দেখিয়েছেন। আল্লাহ আপনার হেপাজত করুন। আমিন।

জামশেদ পাটোয়ারী

২০২১-০৮-০৩ ২০:০৩:৩৯

ডাক্তাররাও সমালোচনার উর্ধে নয়। তবে তিনি নিজের ভূল স্বীকার করেছেন, তাই এই বিষয় নিয়ে কারো বারাবারি করা উচিত নয়। আর ডাক্তার জাহাঙ্গীর কবীর সাহেব একজন বর্তমান সময়ের তুমুল জনপ্রিয় চিকিতসক। দেশ বিদেশের লক্ষ লক্ষ বাংলাদেশী তার চিকিতসায় উপকার পেয়েছেন। তার ডায়েট কন্ট্রোলিংয়ের পরামর্শে অনেকেই শরীরকে নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছেন। সুতারাং তার সামান্য ভূলের জন্য তাকে বিতর্কিত করা কোন ভাবেই কাম্য নয়।

SM.Rafiqul Islam

২০২১-০৮-০৩ ০৬:২৪:৫৪

ডাঃ জাহাঙ্গীর কবির সাহেবকে অভিনন্দন। আপনি দেশবাসীকে যে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তা উপকারভোগী প্রতিটি মানুষ আপনাকে মনে রাখবে। আপনি সামনে এগিয়ে যাবেন এই আশা করি। আপনার শুভ কামনা করছি। ধন্যবাদ।

মোহাম্মদ সেলিম বেপার

২০২১-০৮-০৩ ০৫:৫৮:১৭

স্যার মন খারাপ করবেন না। আপনার জন্য লাখ লাখ মানুষ দোয়া করছে। আমি যতদিন বাচব আপনার জন্য দোয়া করব। দশ বছর অনেক ঔষধ খেয়েছি সুস্থ হতে পারিনি। ইউটিউবে আপনার ভিডিও দেখে এবং জেকেলাইফ ইসটাইল ফলো করে এখন আমি আল্লাহর রহমতে সম্পুর্ন ভালো আছি। আপনারা এই ভালো কাজ কিছু অসাধু ডাক্তারের ব্যাবসা খারাপ যাচ্ছে তাই গেউ গেউ করছে। ওরা আপনার কিছু করতে পারবে না। আপনার সাথে আল্লাহ আছে।

Md .Raselur Rahman

২০২১-০৮-০৩ ১৮:৩৮:৩৭

Dear Dr.Jahangir Sir, Thank You

Mahfuz

২০২১-০৮-০৩ ০৫:১৩:৫১

ড. মজিদ কে? উনাকে যেমন আমি চিনিনা তেমনি হলফ করে বলতে পারি এদেশের খুব কম সংখ্যক লোকই উনাকে চিনে, পক্ষান্তরে ড. জাহাঙ্গীর কবির কে কোটি সংখ্যক লোক চিনে কারণ উনার দারা উপকৃত হয়েছে বলে। আলহামদুলিল্লাহ আমি নিজেও অনেক উপকৃত হয়েছি। শুধু ডিগ্রি থাকলেই মানুষ হওয়া যায়না, মানুষ হতে হলে মানবিক গুনের অধিকারী হতে হয়। জাহাঙ্গীর কবির এর নিন্দুকেরা নিপাত যাক।

Mahbub

২০২১-০৮-০৩ ০৫:১০:৪০

ডাক্তার নামক কিছু ডাকাতের স্বার্থে আঘাত লেগেছে, ডা: জাহাঙ্গীর,আপনি এগিয়ে যান, জাতি আপনার সাথে আছে।

Dr. Alim hamid

২০২১-০৮-০৩ ০৪:৫৪:১৫

মজিদ তুমি লেখাপড়া শিখছ কিন্তু গাধায় কনভার্ট হইস। stop talking rubbish.

bahar

২০২১-০৮-০৩ ১৭:৩১:১৫

আমি, মানবজমিনের মাধ্যমে ডা. জাহাঙ্গীরকে সালাম জানাচ্ছি

Khairul Anam

২০২১-০৮-০৩ ০৪:১৩:১৬

ড. মজিদ, ডা. জাহাঙ্গীর একজন এমবিবিএস। এত বড় ডিগ্রী নিয়ে কোন ডাক্তার কি ফুটপাতের ডাক্তার হতে পারেন?সমালোচনারও একটা শৈল্পিক রূপ আছে।

jamal kabir

২০২১-০৮-০৩ ১৭:০৯:৫৩

ধন্যবাদ ডাঃ জাহাঙ্গির কবির স্যারকে আমি তার পরামর্শে ১০৩ কিলো থেকে ৮২ কিলোতে এসেছি এবং আল্লাহর রহমতে খুব ভাল আছি, আগে হাই প্রেসার ছিল এখন নিয়ন্ত্রনে , আগে ডায়েবেটিস ছিল এখন নেই , আলাহামদুলিল্লাহ অনেক ভাল আছি, কে কি বলল এটা দেখার বিষয় নয় , স্যার আপনি আপনার কাজ টা করে যান আমি তার উদহারন , মানুষ উপকৃত হবে আমি হলফ করে বলতে পারি , ধন্যবাদ,

Dr. Mojid

২০২১-০৮-০৩ ১৬:৫৫:৫১

আগে ডাঃ জাহাঙ্গীর কবির প্রকৃত পক্ষে একজন ফুটপাতের ডাক্তার ছিলেন। সে বর্তমানে কিটোডায়েট, ফাস্টিং, এক্সসারসাইজ, স্ট্রেস রিড়ুস এর মাধ্যমে যে চিকিৎসা ব্যবস্থা চালু করেছেন তা আবিস্কারের পিছনে তার কোন ভূমিকা নাই । যারা এ ধরনের চিকিৎসা ব্যবস্থা আবিস্কার করেছেন রেফারেন্স হিসেবে যে কখনো তাদের নাম উল্লেখ করে না । এমন একটা ভাব দেখায় যেন সে নিজেই এসব আবিস্কার করেছে ।সে যে সমস্ত ভিডিও তৈরি করেছে তা মূলত Dr Jason Fung এবং Dr Sten Ekberg এর ভিড়িও সরাসরি অনুবাদ l যদি কেহ অন্যের আবিস্কার কোথাও ব্যবহার করে তবে অবশ্যই রেফারেন্স হিসেবে আবিষ্কারকের নাম উল্লেখ করতে হয় ৷ কিন্তু ডাঃ জাহাঙ্গীর কবির আবিষ্কারকে তার প্রাপ্য সম্মান টুকু দেয়নি ৷ অন্যের আবিস্কার সে নিজের নামে চালিয়ে দিয়ে রাতারাতি খ্যাতি অর্জন এবং বড় মাপের ডাক্তার হওয়ার চেষ্টা করেছে l সে একজন প্রতারক এবং অকৃজ্ঞ ডাক্তার ।তার বিরুদ্ধে কপিরাইট আইনে মামলা হওয়া উচিত।

ম নাছিরউদ্দীন শাহ

২০২১-০৮-০৩ ০৩:২৭:১১

ইতিমধ্যে আপনি চিকিৎসা বিজ্ঞানে বিপ্লব ঘটিয়ে দিয়ে ছেন। এই মহৎ মানবিক কাজের জন‍্য রাষ্ট্র কতৃক সব্বোউচ্ছ সম্মাননা পুরুস্কার পাবেন। ইনশাআল্লাহ। আপনার ন‍্যাচারাল নির্ভেজাল দামি প্রাকতিক খাবার মানুষের জীবন বাচাচ্ছেন। মোনাফালোভী কিছু অসৎ ডাক্তার। অখাদ্য কুখাদ‍্য বাজেতেল বিভিন্ন প্রতিষ্টানের আপনি চরম শক্র পরিণত হয়েছেন। আপনি নিজের নিরাপত্তা সাবধানতা নিয়ে চলাপেরা করুন। আপনার বিরুদ্ধে আইন গত ভাবে করার সম্ভাবনা খুবই কম। আপনি তাদের বিরুদ্ধে মানবিক কাজে বাধা প্রদানকারী হিসাবে শত কোটি টাকার মানহানি মামলা কোট ফি দিয়ে করার যতেষ্ট সুযোগ আপনার আছেন। আপনার বিরুদ্ধে যেহেতু ষড়যন্ত্র হচ্ছে গভীর ভাবেই আপনি আপনার রোগীদের ব‍্যাপারে পরিস্কার সিদ্ধান্ত নিন। আমার ওয়াইফ শিক্ষিত আপনার দায়িত্বশীল সব পরামর্শে আজ নতুন জীবনের অধিকারী। বিশাল পুরুস্কার আমি আপনাকে দেব। প্রকাশ‍্যে বলছিনা। আপনার শারীরিক সুস্থতা দীর্ঘায়ু কামনা করছি। আল্লাহ্ আপনাদের মত মানব সেবায় নিয়োজিত ডাক্তারদের আমাদের জন্যে জমিনে নিয়ামত হিসাবে পাটিয়েছেন। আল্লাহ আপনাকে হেফাজত করবেন।

Md. MAHBUB REZA,

২০২১-০৮-০৩ ১৫:৫১:৫৬

ডাঃ জাহাঙ্গীর সাহেব এদেশের লক্ষ লক্ষ মানুষের লাইফ স্টাইল মোডিফিকেশন করে সুস্থ থাকার ব্যাবস্থা করেছেন। । তিনি এদেশের লক্ষ লক্ষ মানুষের হৃদয়ের স্পন্দন। দয়া করে তার বক্তব্য না বুঝে তার বিরোদ্ধে কথা বলে তাকে অপমান ও ডিস্টার্ব করবেন না। তার দির্ঘায়ু কামনা করছি।

A. K. M. Fayzul Haqu

২০২১-০৮-০৩ ১৫:৪৫:৩৩

Thank u Dr.Jahangir Sir

Md. Anowar Hossain

২০২১-০৮-০৩ ১৫:১৮:১৪

ডাঃ জাহাঙ্গীর সাহেব এদেশের লক্ষ লক্ষ মানুষের লাইফ স্টাইল মোডিফিকেশন করে সুস্থ থাকার ব্যাবস্থা করেছেন। । তিনি এদেশের লক্ষ লক্ষ মানুষের হৃদয়ের স্পন্দন। দয়া করে তার বক্তব্য না বুঝে তার বিরোদ্ধে কথা বলে তাকে অপমান ও ডিস্টার্ব করবেন না। তার দির্ঘায়ু কামনা করছি।

মোঃ মাহবুবুল আলম

২০২১-০৮-০৩ ০২:০৭:২১

একজন সবার স্বার্থ ও সবার মন রক্ষা করতে পারে নাই.. পারবেওনা...রোগীর স্বার্থ- ডাক্তার গনের স্বার্থ - পুষ্টিবিদ গণের স্বার্থ , এ এক অসম্ভব কাজ। যিনি কাজ করেন, যিনি কথা বলেন,তার ভুল হয় এবং ভুল হওয়া স্বাভাবিক। আপনি কাজ করে যান, চেষ্টা করবেন হিকমার সাথে কথা বলার। সচেতন হওয়ার, কোন বিষয় সম্পর্কে মন্তব্য করার সময়। কিন্তু এর মানে এই নয় আপনাকে চুপ করিয়ে দেওয়া হবে - যা সাধারণ মানুষ সহজ ভাবে নেবে না। আপনি গণ মানুষের জন্য কাজ করার চেষ্টা করেছেন, যার জন্য আপনাকে সাধুবাদ জানাই। তাই বলবো সব কথা সব চেষ্টা পাবলিকলি আসা উচিত নয়, আরও সচেতন হবেন পাবলিকলি কথা বলার সময়। আপনার জন্য দোয়া রইল।

Salim Khan

২০২১-০৮-০৩ ০১:৪৩:৩২

কিছু ডাক্তারের বানিজ্যে ধ্বস নেমেছে, তাই তারা ডাঃ জাহাঙ্গীরকবিরের বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছে। রাস্ট্রের মধ্যে কত কত দুর্নীতি চলতেছে, জনসাস্থের জন্য ক্ষতিকর কত কিছুই বাজারজাত হচ্ছে, ডাক্তার রা কত রোগীর পেট কেটে মেরে ফেলছে, পঙ্গু করে দিচ্ছে, স্বস্থ খাতের বারোটা বাজিয়ে ছাড়ছে, ওসব নিয়ে কোন কথা নেই। ডাঃ জাহাঙ্গীর কবিরের পিছনে লাগছে। কসাইখানার ব্যবসায় মন্দা দেখা দিয়েছে তাই।

Md. Harun al-Rashid

২০২১-০৮-০৩ ১৪:২০:০৩

সব মেনেই একটা কথা জানাতে পারলে খুব ভায়- তাহলো মানষিক রোগে আক্রান্ত বহু রুগী ডাক্তার জাহাঙ্গীরের প্রচারনা ও প্রেরনায় বিভ্রান্ত হয়ে চিকিৎসা বন্ধ করে তাদের অবস্থা জটিল করে তুলছে। তাছাড়া তিনি চড়া মূলে যে সকল ভোজ্য তেল ও অন্যান্য সামগ্রি বিক্রি করে রুগীদের পকেট কাটছেন। তিনি কি চিকিৎসক না কি মুদি মালের একচেটিয়া কারবারি!

Md ziaur Rahaman

২০২১-০৮-০৩ ০১:১৩:০৬

Thank u Jahangir sir

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

পাঠ্যবইয়ে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ভুল তথ্য

এনসিটিবির চেয়ারম্যানকে তলব

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

শনাক্তের হার ৪.৪১

করোনায় আরো ২১ জনের মৃত্যু

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status