ভারত-চীন সম্পর্কে রাজনৈতিক বিতর্কের সূত্রপাতের কারণ 'চিংড়ি'

সেবন্তী ভট্টাচার্য্য

অনলাইন (১ মাস আগে) জুলাই ৩১, ২০২১, শনিবার, ৬:৪৫ অপরাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ১১:০১ পূর্বাহ্ন

কথায় বলে ক্ষুদ্র হলেও তুচ্ছ নয়। এবার ভারত-চীন সম্পর্কের মধ্যে রাজনৈতিক বিতর্কের সূত্রপাত ঘটালো 'চিংড়ি' । ভারত যে কন্টেইনারে করে চিংড়ি পাঠিয়েছে তাতে মিলেছে করোনাভাইরাস। এই অভিযোগ তুলে এবার বিপুল পরিমাণ ভারতের রপ্তানি করা চিংড়ি খাবার অযোগ্য বলে ঘোষণা করলো চীন । দেশটি পরীক্ষার যে রিপোর্ট শেয়ার করেছে তার প্রতিবাদ করে ভারত বলেছে যে, অভিযোগের কোন "বৈজ্ঞানিক ভিত্তি" নেই। ভারত বিশ্বে চিংড়ির সবচেয়ে বড় রপ্তানিকারক দেশ এবং চীন ভারত থেকে সামুদ্রিক খাবারের দ্বিতীয় বৃহত্তম আমদানিকারক, যার মধ্যে রয়েছে ৪৬% হিমায়িত চিংড়ি। গুজরাট ও উড়িষ্যা ছাড়াও অন্ধ্র প্রদেশে সবচেয়ে বেশি এই চিংড়ি রপ্তানি করা হয়। চিংড়ি নিয়ে দুই দেশের বিরোধ চরমে ওঠে সপ্তাহখানেক আগে।
ভারত থেকে পাঠানো চিংড়ির হাজারটি কন্টেইনার বাতিল করে চীন । তারা বলে, কন্টেইনারের বাইরে, পলিথিন ও করোগেটের গায়ে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া গেছে। ভারত থেকে জানতে চাওয়া হয়, কন্টেইনারের বাইরে কীভাবে করোনাভাইরাস থাকতে পারে? যে পরীক্ষার মাধ্যমে কন্টেনারের বাইরে ওই ভাইরাসের অস্তিত্ব জানা গিয়েছে, তা দেখতে চেয়েছে ভারত। কিন্তু চীন থেকে সেই রিপোর্ট দেখানো হয়নি। ইকোনমিক টাইমস-এর একটি সূত্র বলছে, এরপরে ভারতের মেরিন প্রোডাক্টস এক্সপোর্ট ডেভলপমেন্ট অথরিটি, বাণিজ্যমন্ত্রক ও বিদেশমন্ত্রক যৌথভাবে চীনের বিরুদ্ধে কূটনৈতিক লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছে। বাণিজ্যের বিধিভঙ্গের জন্য চীনের বিরুদ্ধে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় অভিযোগ জানানো হবে বলে স্থীর হয়েছে। ভারতের মেরিন প্রোডাক্টস এক্সপোর্ট ডেভলপমেন্ট অথরিটি ইকোনমিক টাইমস-কে জানিয়েছে, ২৩টি ইউনিটকে অনির্দিষ্টকালের জন্য সাসপেন্ড করেছে শুল্ক বিভাগ। চীনের অভিযোগ এই ইউনিটগুলি দ্বারা প্রেরিত চালানের প্যাকেজিং উপাদানে সার্স-কোভিড-২ ভাইরাসের উপস্থিতি পরিলক্ষিত হয়েছে। আরো ১৭টি ইউনিট -এর বিরুদ্ধেও একই অভিযোগ এনেছে চীন। অনেক অনুরোধ সত্ত্বেও চীন কিন্তু কোনো রিপোর্ট দেখতে রাজি হয়নি। বেইজিং-এর ভারতীয় দূতাবাস জানাচ্ছে, চীনের পরীক্ষার ভিত্তি কী ? কিভাবে এই নিউক্লিক অ্যাসিড-এর পরীক্ষা করা হলো তার কোনো প্রোটোকল সামনে আনতে রাজি হচ্ছে না চীন। চীন ২০২০ সালের নভেম্বর থেকে সেই বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞাগুলি প্রয়োগ করছে এবং এটি সেই দেশের সাথে আমাদের রপ্তানি বাণিজ্যকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করেছে”, বলে জানাচ্ছে ভারতের মেরিন প্রোডাক্টস এক্সপোর্ট ডেভলপমেন্ট অথরিটি। এই বিধিনিষেধের জেরে ভারত-চীনের মধ্যে চিংড়ি রপ্তানি ৩৪% কমে গেছে। ভারতীয় চিংড়ির জন্য চীন একটি বড় বাজার হওয়ায় ভারতের কাছে এটি একটি বড় ধাক্কা তো বটেই। অল ইন্ডিয়া সি ফুড অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি, জগদীশ ফোফান্দি, চীনের সিদ্ধান্তের বিশাল প্রভাব সম্পর্কে দেশের মৎস্য ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে অবহিত করেন। এখন দেখার চিংড়িকাণ্ডের জল কতদূর গড়ায়।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

nam nai

২০২১-০৭-৩১ ১৯:০০:৫৫

China is probably correct. We need to stop importing Indian products too. BD Shrimp farmers should take over the Chinese market fast . Ha Ha. Perfect opportunity .

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

বৈঠকে বিএনপির স্থায়ী কমিটি

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

শনাক্তের হার ৬.০৫

করোনায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status