বগুড়ায় করোনায় মৃত ও আক্রান্তের বেশির ভাগই গ্রামের

প্রতীক ওমর, বগুড়া থেকে

শেষের পাতা ৩০ জুলাই ২০২১, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:৫৯ অপরাহ্ন

অসাবধানতা, স্বাস্থ্যবিধি না মানায় বগুড়া শহরের তুলনায় গ্রামের মানুষ করোনায় বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যুবরণ করছে। করোনা ডেডিকেটেড বগুড়ার মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে সরজমিন গিয়ে দেখা যায়, রোগীতে কানায় কানায় পূর্ণ। এখানে রোগী ভর্তির ব্যবস্থা আছে ২৫০ জনের। সেখানে ২৭শে জুলাই পর্যন্ত রোগী ভর্তি ছিল ২০৭ জন। এছাড়াও প্রতিদিন নতুন রোগী ভর্তি হচ্ছে। এসব রোগীর বেশিরভাগই প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে আসা। গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার বাটিগ্রামের মিজানুর রহমান জানান, তার মায়ের জ্বর-সর্দি দেখা দিলে ১৫ দিন আগে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। কোভিড পরীক্ষা করার পর পজেটিভ রিপোর্ট আসে।
পরে ক্রমান্বয়ে শরীর খারাপ হতে থাকে।
নওগাঁ জেলার বদলগাছী উপজেলার তেঁতুলিয়া গ্রামের জোসনা বেগম ১৯ দিন আগে আক্রান্ত হয়ে বগুড়ার সরকারি মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তার মেয়ে শাম্মী আক্তার জানান, গ্রামের মানুষেরা আক্রান্ত হলেও হাসপাতালে আসতে চায় না। পরীক্ষাও করাতে চায় না। তার মা-ও অসুস্থ হয়ে পড়লে হাসপাতালে আসতে চায়নি। জোর করে হাসপাতালে আনতে হয়েছে। গাইবান্ধার ফুলছড়ির চরের গজারিয়া গ্রামের বাসিন্দা আমিনুল ইসলাম টুকুও এই হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছেন। তার অক্সিজেন মাত্রা আশির নিচে আপডাউন করছে। তিনি বলেন, তার অবস্থা খুব খারাপ হলে তিনি হাসপাতালে ভর্তির জন্য আসেন। এদিকে কোভিড ডেডিকেটেড মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের মৃত রোগীর তালিকা পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে মৃতের প্রায় ৭০ শতাংশ গ্রামের মানুষ। চলতি জুলাই মাসের ১০ তারিখ এবং ২৫ তারিখের মৃত ১৬ জনের মধ্যে দেখা যায় ১২ জন প্রত্যন্ত গ্রামের। বগুড়ার আরও দুটি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালের চিত্র একই। শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ এবং বেসরকারি টিএমএসএস মেডিকেল হাসপাতালের ভর্তি রোগীর বেশিরভাগ গ্রাম থেকে আসা।  
মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল কর্মকর্তা ডা. শফিক আমিন কাজল মানবজমিনকে বলেন, বর্তমানে প্রায় ৬০ শতাংশ প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে আসা। মৃত্যুর পরিসংখ্যানে এই হার আরো বেশি। গ্রামের মানুষের মৃত্যুর হার বেশি, কারণ হিসেবে তিনি বলেন, গ্রামের মানুষ এখনো সচেতন নন। তারা পরীক্ষা এবং হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে সহজে আসতে চায়না। আক্রান্ত হয়ে যখন তীব্র শ্বাসকষ্ট শুরু হয় তখন বাধ্য হয়ে তারা হাসপাতালে আসছে। ফলে চিকিৎসা শুরুর আগেই অনেক রোগী মারা যাচ্ছে।
এদিকে বগুড়ার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজুর রহমান তুহিন মানবজমিনকে জানান, গ্রামের মানুষ পরীক্ষার পর পজেটিভ হলে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে, এমন ভয় থেকেই পরীক্ষা বিমুখ হচ্ছে। ফলে অনেক মানুষ আক্রান্ত হয়ে সবার সঙ্গেই মিশছে এবং সংক্রমণ বৃদ্ধি করছে। এই মাত্রা এখন এতো বেশি হচ্ছে যার ফলে হাসপাতালগুলোতে গ্রামের রোগীতেই ঠাসা।

আপনার মতামত দিন

শেষের পাতা অন্যান্য খবর

রাজারবাগ দরবারের সম্পদ তদন্তের নির্দেশ হাইকোর্টের

২০ সেপ্টেম্বর ২০২১

রাজারবাগ দরবার শরীফ ও এর পীর দিল্লুর রহমানের সম্পদ ও ব্যাংক হিসাব তদন্ত করতে দুর্নীতি ...

পরীর পাহাড় নিয়ে বিরোধ তুঙ্গে

আইনজীবীদের হুঁশিয়ারি

২০ সেপ্টেম্বর ২০২১

৫৯টি আইপি টিভি বন্ধ করেছে বিটিআরসি

২০ সেপ্টেম্বর ২০২১

অনিবন্ধিত ৫৯টি অবৈধ ইন্টারনেট প্রটোকল বা আইপি টিভি বন্ধ করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। গতকাল ...

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চাকরির প্রলোভন

পুলিশের জালে প্রতারক চক্র

১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

চীন থেকে সিনোফার্মের আরও ৫৪ লাখ টিকা এসেছে

১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

চীন থেকে কেনা সিনোফার্মের আরও ৫৪ লাখ ১ হাজার ৩৫০ ডোজ করোনার টিকার চালান দেশে ...

অতিরিক্ত মদ্যপানে চট্টগ্রামের ২ ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু

১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ্যপানে রাফসান হাবিব (৩০) ও মোনতাসির পিয়াম (২১) নামে ...

কুমিল্লা-৭ আসন

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হচ্ছেন প্রাণ গোপাল দত্ত

১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

কুমিল্লা-৭ আসনের উপনির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী অধ্যাপক ...

এ পর্যন্ত মৃত্যু ৫৯

২৩২ জন নতুন ডেঙ্গু রোগী বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি

১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে আরও ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই নিয়ে ...



শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status