১৭ বছর অকেজো চারঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জেনারেটর

চারঘাট (রাজশাহী) প্রতিনিধি

বাংলারজমিন ২৫ জুলাই ২০২১, রোববার

প্রায় ১৭ বছর ধরে অকেজো অবস্থায় পড়ে আছে রাজশাহীর চারঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বিশাল জেনারেটরটি। ফলে জেনারেটরের ব্যাটারিসহ মূল্যবান যন্ত্রাংশ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছেন, সরকারিভাবে  জ্বালানি তেলের বরাদ্দ না থাকায় জেনারেটরটি চালু করা সম্ভব হচ্ছে না। অপরদিকে, বিদ্যুৎ চলে গেলেই অন্ধকারে পড়তে হয় রোগীদের। অনেকে আলো জ্বালানোর ভরসা হিসেবে ব্যবহার করেন মোমবাতি। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, চারঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২০০৩ সালে স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর ডিজেল ইঞ্জিনচালিত ৪০ কেভির এই জেনারেটর বরাদ্দ দেয়। এতে ব্যয় হয় ৭ লাখ টাকা। এছাড়া বৈদ্যুতিক সামগ্রীসহ মোট ব্যয় হয় প্রায় ১০ লাখ টাকা।
জেনারেটরের ক্ষমতা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে চারঘাট পল্লী বিদ্যুৎ জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মোক্তার হোসেন বলেন, ৪০ কেভির (কিলো ভোল্ট) এই জেনারেটরে ২৫-৩০ কিলোওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়। এদিকে, জেনারেটর স্থাপনের উদ্দেশ্য ছিল লোডশেডিংয়ের সময় অন্যতম চিকিৎসাকেন্দ্র ৫০ শয্যার এই হাসপাতালের সকল শাখায় বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা নিশ্চিত করা। যাতে রোগীদের ওয়ার্ড ও জরুরি অপারেশন কাজে বিঘ্ন না ঘটে। কিন্তু সরকারিভাবে জ্বালানি তেলের বরাদ্দ না থাকায় বাস্তবে এটি চালানো যাচ্ছে না। ফলে এটি রোগীদের কোনো কাজে আসছে না। এমনকি জেনারেটর চালানোর জন্য লোকবলও নেই। দীর্ঘদিন ব্যবহার না হওয়ায় জেনারেটরের ব্যাটারি নষ্ট হয়ে গেছে। অন্যান্য যন্ত্রাংশ বিকল হয়ে যাচ্ছে।
সরজমিনে কয়েকদিন সন্ধ্যার পর হাসপাতাল ঘুরে দেখা গেছে, বিদ্যুৎ না থাকলে রোগীদের দুর্ভোগের চিত্র। বেশিরভাগ শয্যার পাশে খাদ্যের পাশাপাশি দিয়াশলাই ও মোমবাতি রাখা হয়েছে। চিকিৎসাধীন রোগীরা জানালেন, লোডশেডিংয়ের সময় রোগীর ওয়ার্ডসহ অন্যান্য বিভাগে ভুতুড়ে অবস্থার সৃষ্টি হয়। তখন রোগীর আনা মোমবাতি কিংবা মোবাইল ফোনের আলো একমাত্র ভরসা। মহিলা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ফুলছড়ি উপজেলার রাওথা গ্রামের রুনা বেগম (৩৮) বলেন, গরমের সময় কোনো কারণ ছাড়াই বিদ্যুৎ চলে যায়। বিদ্যুৎ চলে গেলে ভুতুড়ে অবস্থার সৃষ্টি হয়। তখন টয়লেটে গেলে দুর্ঘটনা ঘটছে। অথচ জেনারেটরের ব্যবস্থা নেই। বিদ্যুৎ না থাকলে বিকল্প ব্যবস্থা কী জানতে চাইলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) শহিদুল ইসলাম রবিন বলেন, বিকল্প কোনো ব্যবস্থা আপাতত নেই। মোমবাতি কিংবা টর্চের আলোই ভরসা। জেনারেটর চালুর ব্যাপারে পদক্ষেপ কী জানতে চাইলে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আশিকুর রহমান বলেন, জেনারেটরটি চালু করতে প্রায় ৩০ লিটার ডিজেল প্রয়োজন হয়। যা প্রচুর ব্যয়বহুল। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এতো পরিমাণ তেল কেনার কোনো তহবিল নেই।

আপনার মতামত দিন

বাংলারজমিন অন্যান্য খবর

লক্ষ্মীপুরে বৃদ্ধকে কুপিয়ে হত্যা

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার মান্দারীর মোহাম্মদ নগর এলাকায় সুপারী চুরির প্রতিবাদ করায় বৃদ্ধ দুলাল হোসেনকে কুপিয়ে ...

সাতক্ষীরায় ধানক্ষেত থেকে দুই যুবকের লাশ উদ্ধার

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

সাতক্ষীরার আশাশুনি থেকে দুই যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে ...

সীতাকুণ্ডে পর্যটকের ওপর হামলার ঘটনায় মামলা, আটক ১১

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ঢাকা থেকে আসা ৯ জন পর্যটকের ওপরে হামলায় ঘটনায় পুলিশ ১১ জনকে আটক ...

শাহরাস্তিতে গৃহবধূ খুন

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

১৭ থেকে ২০ই অক্টোবরের মধ্যে খুলছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

আগামী ১৭ই অক্টোবর থেকে ২০শে অক্টোবরের মধ্যে খুলছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়। তবে প্রথম ডোজ দেয়া সাপেক্ষে ...

দেলদুয়ারে স্ত্রীকে গলাটিপে হত্যা

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে স্ত্রীকে গলাটিপে হত্যা করেছে স্বামী। গত বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার এলাসিন ...

জয়পুরহাটে পৃথক ঘটনায় ২ জনের মৃত্যু

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

জয়পুরহাটে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে নুর আলম (৪৫) নামে এক নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল দুপুরে জয়পুরহাট ...

বারি’তে নিরাপদ খাদ্য উৎপাদনে কৃষক প্রশিক্ষণ

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি) এর কীটতত্ত্ব বিভাগের উদ্যোগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ...

নির্বাচনী সহিংসতার মামলায় ছাত্রনেতা সুহেল কারাগারে

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

 সিলেটে সিলেট-৩ আসনের বিএনপি প্রার্থী আলহাজ শফি আহমদ চৌধুরীর পক্ষে কাজ করতে গিয়ে মামলার আসামি ...



বাংলারজমিন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status