সরজমিন খুমেক হাসপাতাল

‘বহু চেষ্টা করেছি বাবাকে বাঁচাতে পারলাম না’

জীবন আহমেদ, খুলনা থেকে

প্রথম পাতা ২৪ জুলাই ২০২১, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৫:০৩ অপরাহ্ন

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জীবন-মৃত্যুর লড়াই ছবি: জীবন আহমেদ
খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে আহাজারি করছেন নড়াইলের নয়ন কুমার কুণ্ডু। একটু আগেই মারা গেছেন তার বাবা। মরদেহ নিয়ে যাওয়ার আগে ফোনে বিলাপ করছিলেন আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে। ৩টি হাসপাতাল ঘুরেও বাবাকে বাঁচাতে না পারায় বারবার কষ্টের কথা জানাচ্ছিলেন তিনি। শুক্রবার সকাল ৯টার ঘটনা এটি।

মানবজমিনকে তিনি বলেন, বাবার হার্ট ও মস্তিষ্কে সমস্যা ছিল। ঈদের ছুটির জন্য নড়াইল হাসপাতালে ভালো ডাক্তার পাইনি। পরে যশোর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাখা হয় করোনা ওয়ার্ডে।
সেখানেও ভালো কোনো চিকিৎসা পাইনি। পরে গতকাল সকালে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কয়েক ঘণ্টার পর বাবা মারা গেছেন। তার কোনো করোনা কিংবা উপসর্গ ছিল না। হার্টে সমস্যার কারণে তাকে ২৪ ঘণ্টাই অক্সিজেন দিয়ে রাখা হতো। ১৫-১৬টা সিলিন্ডার শেষ হয়েছে। আমি আমার বাবার জন্য বহু চেষ্টা করেছি, কিন্তুপারলাম না বাবাকে বাঁচাতে।

গত ১ মাসেরও বেশি সময় ধরে করোনার নতুন ‘হটস্পট’ খুলনা। সংক্রমণ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে মুমূর্ষু রোগীর সংখ্যা। মৃত্যুর সংখ্যাও অস্বাভাবিক। বেড়েছে আইসিইউ শয্যার চাহিদা। চাহিদার তুলনায় আইসিইউ বেডের সংখ্যা সীমিত থাকায় করোনা রোগীদের অনেকেই বঞ্চিত হচ্ছেন আইসিইউ সেবা থেকে। এতে অনেকেই মারা যাচ্ছেন। কেউ বা আইসিইউ না পেয়ে ছুটছেন এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে। ঈদের দিন বুধবার ও পরদিন বৃহস্পতিবার খুলনা এ হাসপাতালে রোগীর চাপ কম থাকলেও গতকাল সকাল থেকেই চাপ বেড়েছে। প্রতি ঘণ্টায় আসছে রোগী। গতকাল সকাল ৭টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত অন্তত ২৫ জন রোগী হাসপাতালে ভর্তির জন্য আসেন। যারা সবাই করোনা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হতে চান। তাদের অনেকেরই রয়েছে শ্বাসকষ্ট। বেশ ক’জন রোগীর স্বজনকে আইসিইউ’র জন্য আহাজারি করতে দেখা গেছে। তবে আইসিইউ বেড খালি না থাকায় সাধারণ বেডেই ভর্তি হতে হয়েছে তাদের।

এদিকে হাসপাতালটিতে করোনা চিকিৎসার জন্য মোট শয্যা রয়েছে ২০০টি। এর মধ্যে আইসিইউ বেডের সংখ্যা ২০টি। গত কয়েকদিন ধরে কোনো বেড খালি থাকছে না। এতে অপেক্ষায় থাকছেন সংকটাপন্ন বহু রোগী। একজন মারা যাওয়ার খবর এলেই আইসিইউর জন্য সিরিয়াল পড়ে তাদের। তালিকাও হয় দীর্ঘ। এতে অনেকেই আইসিইউর সেবা না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বাইরে সরজমিনে দেখা গেছে, দু’দিনেই বদলে গেছে দৃশ্যপট। যেখানে ঈদের দিন ও তার পরদিন কোনো কোলাহল ছিল না, ভিড় ছিল না। শুক্রবার ভোর থেকে এম্বুলেন্সের লাইন পড়ে গেছে। চলছে রোগীর স্বজনদের সঙ্গে দর কষাকষি। হাসপাতালে ভর্তি কয়েকজন রোগীর স্বজন মানবজমিনকে জানান, হাসপাতালে অনেক ডাক্তার ঈদের ছুটিতে গেছেন। এই সময়ে হাসপাতালেও তেমন একটা রোগীর চাপ ছিল না। করোনা রোগীদের জন্য সাধারণ বেড খালি থাকলেও আইসিইউর চাহিদা সব সময় বেশি ছিল। ঈদের পরদিন ভোর থেকেই হাসপাতালে রোগীদের চাপ বাড়তে থাকে। বেশিরভাগ রোগী শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে আসছেন। তারা অভিযোগ করে বলেন, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চাহিদার তুলনায় এখনো অক্সিজেন কম পাওয়া যাচ্ছে। কিছু কিছু সিলিন্ডারে অক্সিজেনের পরিমাণ অনেক কম থাকে। স্টাফরা অক্সিজেন সিলিন্ডার লাগানোর কয়েক মিনিট পরও অক্সিজেনের সাপোর্ট পাওয়া যায় না। এতে রোগী ও স্বজনদের মধ্যে ভয় কাজ করছে।
জুয়েল মোল্লা নামের একজন বলেন, ৬-৭ দিন ধরে খুলনা মেডিকেলে আমার খালা ভর্তি আছেন। আগে অক্সিজেনর সমস্যা থাকলেও এখন তা নিয়ে কোনো অভিযোগ নেই। সেবার মান কিছুটা ভালো হয়েছে। তবে হাসপাতালে আইসিইউ বেডের সংখ্যা আরও বাড়ানো দরকার। এই সংকটময় মুহূর্তে অনেক রোগীর আইসিইউর সেবা প্রয়োজন হয়। এটা বাড়ানো হলে হয়তো মৃত্যুর সংখ্য অনেক কমতো।
করোনার উপসর্গ নিয়ে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি হন যাত্রাপুরের আমির আলী শেখ। সেখানে করোনা শনাক্ত হলে দেখা দেয় শ্বাসকষ্ট। প্রয়োজন হয় আইসিইউ’র। নেয়া হয় খুলনায় কিওর হোমে। সেখানেও আইসিইউ না পেয়ে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেন স্বজনরা। সেখানে জানতে পারেন, আইসিইউ’র কোনো বেড খালি নেই। অনেক কাকুতি-মিনতি করেও মেলেনি আইসিইউ সেবা। পরে সাধারণ বেডেই ভর্তি নেন ডাক্তাররা।

মোখলেসুর রহমান। বয়স ৭৫। খুলনা সদর হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। অবস্থা খারাপ হওয়ায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসেন স্বজনরা। সদর হাসপাতালে আইসিইউ না থাকায় তারা এখানে নিয়ে এসেছেন আইসিইউ’র জন্য।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরএমও ও করোনা হাসপাতালের ফোকালপার্সন ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার মানবজমিনকে বলেন,  হাসপাতালে করোনা রোগীর চাপ বেড়েছে। অনেকেই স্বাসকষ্ট নিয়ে আসছেন। আইসিইউ বেডের চাহিদাও বেড়েছে। তবে আমাদের এখানে ২০টি আইসিইউ আছে। কোন বেড খালি নেই। আমাদের অনেক ডাক্তার ছুটিতে আছেন। অনেকে এই ঈদের সময়ও করোনা রোগীদের সেবা করে যাচ্ছেন। আমরা আমাদের সাধ্যমতো চেষ্টা করে যাচ্ছি।

আপনার মতামত দিন

প্রথম পাতা অন্যান্য খবর

বৈশ্বিক খাদ্য নিরাপত্তা

প্রধানমন্ত্রীর পাঁচ সুপারিশ

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

ভারতে টাকা ফেরত পাচ্ছেন ভুক্তভোগীরা

গ্রাহকের টাকা ফেরানোর উপায় কি?

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

সাক্ষাৎকার

নজরদারির অভাবে প্রতারণা

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

সাক্ষাৎকার

টাকা ফিরে পাওয়া জটিল প্রক্রিয়া

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

ডেসটিনি-যুবক থেকে ইভ্যালি

হতাশার যে গল্পের শেষ নেই

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

বিচিত্র পেশা- ১

সংসার চলে টাকা বেচাকেনায়

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

দিল্লির আদালত কক্ষে গ্যাংস্টার যুদ্ধ, নিহত ৩

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

ভারতের রাজধানী দিল্লির একটি আদালতকক্ষে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটেছে। এতে নিহত হয়েছেন এক গ্যাংস্টারসহ অন্তত ৩ ...

ইউনিয়ন ব্যাংকের ভল্টে ১৯ কোটি টাকার গরমিল

৩ কর্মকর্তা প্রত্যাহার তদন্ত কমিটি

২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১



প্রথম পাতা সর্বাধিক পঠিত



১৬০ ইউপিতে নির্বাচন আজ

বিনা ভোটে জয়ের রেকর্ড

ডেসটিনি থেকে ইভ্যালি

কোটি গ্রাহক ফেরত পায়নি এক টাকাও

ক্যাম্পাসে বসানো হচ্ছে সিসিটিভি, শিক্ষামন্ত্রণালয়ের চিঠি

বিশ্ববিদ্যালয়ে নজরদারির সিদ্ধান্ত

বিমানবন্দরে আরটি-পিসিআর ল্যাব বসবে কবে?

উৎকণ্ঠায় ৫০,০০০ প্রবাসী

ই-কমার্সে প্রতারণার দায় প্রাথমিকভাবে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের: অর্থমন্ত্রী

ই-কমার্সে হায় হায় দায় কার?

সৌদি বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সালমান এফ রহমানের বৈঠক

শুল্কমুক্ত সুবিধা চাইলেন ১৩৭ পণ্যের

DMCA.com Protection Status