১৪ দিনের পূর্ণ শাটডাউনের সুপারিশ সক্রিয় বিবেচনায় নেয়া হবে: প্রতিমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

অনলাইন (১ মাস আগে) জুন ২৪, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৮:৪০ অপরাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ১২:৫০ অপরাহ্ন

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সারাদেশে ১৪ দিনের পূর্ণ শাটডাউনের সুপারিশ সক্রিয় বিবেচনায় নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। তিনি বলেছেন, সরকার করোনা পরিস্থিতি খুব গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। পরিস্থিতি বিবেচনায় যেকোনো সময় যেকোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমকে এসব কথা বলেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সারাদেশে ১৪ দিনের পূর্ণ শাটডাউনের সুপারিশ করেছে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘আমরা তাদের সুপারিশ অ্যাকটিভ কনসিডারেশনে (সক্রিয় বিবেচনা) নেব। এটা কমানোর জন্য যেটা করা প্রয়োজন হবে আমরা সেটা করব। তিনি আরও বলেন, সংক্রমণ যেহেতু বেড়ে যাচ্ছে, আমরা বিভিন্নভাবে তা কমানোর চেষ্টা করছি।
স্থানীয়ভাবে বিধিনিষেধ দিচ্ছি, দিয়ে এটাকে কন্ট্রোল (নিয়ন্ত্রণ) করার চেষ্টা করছি। পরিস্থিতি বিবেচনা করে যেটা প্রয়োজন হবে সেটাই আমরা করব। যেহেতু সংক্রমণটা ঊর্ধ্বমুখী, দৈনিক সংক্রমণ ৬ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। সরকার পরিস্থিতি খুব গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। পরিস্থিতি অনুযায়ী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। সেক্ষেত্রে যেটি উপযুক্ত হবে, সেই সিদ্ধান্তই আমরা নেব। সরকার কতদিন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করবে- জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা গভীরভাবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। পরিস্থিতি বিবেচনা করে যেকোনো সময় যেকোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

ovi

২০২১-০৬-২৫ ১৪:৫০:২৩

গার্মেন্টস খোলা রেখে লকডাউন যদি দেয় কিছু হবে না

জাকারিয়া মাহমুদ

২০২১-০৬-২৪ ১১:০২:৩১

শাটডাউন কখন করা হবে? করোনার বিস্তার লাভের পর, না ভারতের মতো অবস্থা হলে।

লিসা

২০২১-০৬-২৪ ০৮:৪০:০৬

গার্মেন্টস খোলা রেখে তথা কথিত লকডাউন যদি দেয় কিছু হবে না। হয় সব বন্ধ না হয় সব খোলা। আর অনুরোধ করছি কঠোর থেকে কঠোর হওয়ার জন্য।

Nessar Ahmed

২০২১-০৬-২৪ ০৭:৫৩:০৪

১৪ দিন কেন ১৪ মাস দিন জনগন আপনাদের সাথে থাকবে, যদি............ সরকার নিজ খরচে জনগনের মৌলিক চাহিদা মেটায় এবং যারা ব্যাংক বা অন্য কোন প্রতিষ্ঠান থেকে ঋন নিয়েছে তাদের সূদ মৌকুফ এবং ঋন পরিশোধের সীমা কমপক্ষে দুই বছর বিনা সূদে বর্ধিত করন করে। তানাহলে কিন্তু মানুষ বাচার তাগিদে এইসব লকডাউন/ষাটডাউনকে থোরাই কেয়ার করবে। কারন করোনায় যত মানুষ মরবে তারচেয়ে ঢের বেশী মানুষ মরবে ক্ষুধায় আর ঋনের জাতাকল থেকে বাচতে আত্নহত্যাও করে। সমাজে চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই বেড়ে যাবে। এমনকি শেষমেশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে যদি জনগন দাঁড়ায় তাহলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। কারন মানুষ আগে বাচতে চায়, যেকোন উপায়ে !!

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

মমতার ‘খেলা হবে’

৩ আগস্ট ২০২১



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



সরানো হয়েছে 'ঘটনা সত্য', থামেনি প্রতিবাদ

আমার সন্তান পাপের শাস্তি নয়, সে একটা স্পেশাল গিফট

DMCA.com Protection Status