‘প্রাকৃতিক গ্যাস অনুসন্ধানই জ্বালানি নিরাপত্তার অন্যতম উপায়’

স্টাফ রিপোর্টার

শেষের পাতা ২০ জুন ২০২১, রোববার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:০৪ অপরাহ্ন

শিল্পখাতে চাহিদামাফিক জ্বালানি সরবরাহ নিশ্চিত করতে প্রাকৃতিক গ্যাস অনুসন্ধানই ভবিষ্যতের জ্বালানি নিরাপত্তার অন্যতম উপায়। একই সঙ্গে বিকল্প জ্বালানি হিসেবে এলপিজি ও এলএনজি আমদানি এবং উৎপাদনের ওপর আরও বেশি গুরুত্ব দিতে হবে। গতকাল ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি-ডিসিসিআই আয়োজিত ‘বাংলাদেশের শিল্পখাতের জ্বালানি উৎসের ভবিষ্যৎ: এলপিজি এবং এলএনজি’- শীর্ষক ওয়েবিনারে এসব কথা বলেন বিশেষজ্ঞ ও ব্যবসায়ীরা। ওয়েবিনারের স্বাগত বক্তব্যে ডিসিসিআই সভাপতি রিজওয়ান রাহমান বলেন, গত ৫ দশকে শিল্পখাতের গতিধারাকে চলমান রাখতে প্রাকৃতিক গ্যাস অন্যতম জ্বালানি হিসেবে ভূমিকা পালন করেছে। তবে আমাদের অর্থনৈতিক কার্যক্রমের সম্প্রসারণের ফলে জ্বালানির চাহিদা প্রতিনিয়ত বৃদ্ধির কারণে প্রায়ই শিল্পখাতে জ্বালানি সংকট দেখা যাচ্ছে। সরকার ঘোষিত ২০২৬ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হলে শিল্পখাতের চাহিদামতো জ্বালানি সরবরাহ নিশ্চিত করার কোনো বিকল্প নেই। সেই সঙ্গে এখাতে পরিকল্পিত উপায়ে পরিবেশবান্ধব ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। শিল্পখাতে চাহিদামাফিক জ্বালানি সরবরাহ নিশ্চিতকরণে প্রাকৃতিক গ্যাসের অনুসন্ধান বৃদ্ধির পাশাপাশি বিকল্প জ্বালানি হিসেবে এলপিজি ও এলএনজি আমদানি এবং উৎপাদনের ওপর আরও বেশি হারে গুরুত্ব দিতে হবে।
বর্তমানে অভ্যন্তরীণ চাহিদার ২ শতাংশ এলপিজি’র মাধ্যমে মেটানো হয় বলে ডিসিসিআই সভাপতি উল্লেখ করে বলেন, এলএনজি’র চাহিদার বিষয়টি বিবেচনায় রেখে, পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপের মাধ্যমে স্টোরেজ সুবিধা নিশ্চিত করা। তিনি দ্রুততার সঙ্গে এলপিজি ও এলএনজি টার্মিনাল স্থাপনে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান, পাশাপাশি এ খাতের সার্বিক উন্নয়নে একটি সমন্বিত টেকসই কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে জোর দেন।
ওয়েবিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আনিছুর রহমান বলেন, সরকার গ্যাস অনুসন্ধান কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে এবং জকিগঞ্জে সর্বশেষ কার্যক্রম চালানো হচ্ছে, আশা করা যাচ্ছে, সেখান থেকে দীর্ঘ সময় ধরে গ্যাস উত্তোলন করা সম্ভব হবে। এর জন্য প্রায় ৩২ কিলোমিটার দীর্ঘ একটি পাইপলাইন স্থাপন করতে হবে। করোনা মহামারিকালীন ১০০ মিলিয়ন কিউবিক ফিট গ্যাস জাতীয় গ্রিডে সংযুক্ত করা হয়েছে। তিনি জানান, অনশোরে সক্ষমতা থাকায় বাপেক্সের মাধ্যমে অনুসন্ধান কার্যক্রম চালানো অব্যাহত রয়েছে। এলএনজি ব্যবসায় ঝুঁকি কম থাকায় বর্তমানে সকলেই এর দিকে ঝুঁকছে, এলপিজি’র বাজার প্রায় ১২ লাখ টন এবং ২৯টি কোম্পানি স্থানীয় বাজারে এলপিজি অপারেটর হিসেবে কাজ করছে। তবে ৫৬টি কোম্পানিকে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ছোট ছোট জাহাজে এলপিজি আমদানি করায় খরচ বাড়ছে, তবে মাতারবাড়িতে এলপিজি টার্মিনালের কার্যক্রম চালু হলে, এ খরচ প্রায় এক-তৃতীয়াংশ কমে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। দেশীয় শিল্পখাতে এলপিজি’র ব্যবহার এখনও অনেক কম, তবে এলপিজি ও এলএনজি’র টার্মিনাল স্থাপন এবং স্থানীয় উৎপাদন বাড়ানোর মাধ্যমে দাম কমানো সম্ভব। তিনি জানান, ২০১৯-২০ অর্থবছরে ১০ লাখ মেট্রিকটন এলপিজি আমদানি হয়েছিল, যার মধ্যে ১ শতাংশ ব্যবহার হয়েছে শিল্পখাতে এবং সিরামিক, মোটরসাইকেল, বাইসাইকেল, স্টিল ও চা শিল্পেই বেশি ব্যবহার করা হয়। ইতিমধ্যে এলপিজি খাতে প্রায় ৩০ হাজার কোটি টাকার মতো বিনিয়োগ হয়েছে। সচিব জানান, ব্যবসাবান্ধব হওয়ার জন্য প্রয়োজন হলে নীতিমালা ও আইন সংস্কার করা হবে।
তিনি বলেন, এলপিজি অপারেটরদের অনুমোদনের জন্য ১৮ ধরনের লাইসেন্স দরকার এবং বাৎসরিক নবায়ন ফি দিতে হয় ১ কোটির বেশি, যা কমানো প্রয়োজন। গ্যাস সংযোগ নিতে তিতাসে সংস্কার কাজ চালানো হচ্ছে, বর্তমানে শিল্পখাতে গ্যাস সংযোগ নিতে দীর্ঘসময় অপেক্ষা করতে হয় না এবং পরিকল্পিত শিল্প অঞ্চলে শিল্প-কারখানা স্থাপনে উদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান জানান সচিব।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের সদস্য (গ্যাস) মো. মকবুল-ই-ইলাহী চৌধুরী বলেন, বর্তমানে আমাদের গ্যাসের রিজার্ভ ৬ টিসিএফ এবং সারা দেশে গ্যাস অনুসন্ধানের জন্য যে ধরনের কার্যক্রম গ্রহণ করা প্রয়োজন ছিল, সেগুলো যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করা যায়নি। তিনি জানান, বর্তমানে ৩৩০০ মিলিয়ন কিউবিক ফিট গ্যাসের মধ্যে নিজস্ব উৎপাদিত গ্যাসের ৭৪ শতাংশ আসে নিজস্ব খাত থেকে। বাকি ২৬ শতাংশ আসে এলএনজি থেকে এবং এ অবস্থা চলতে থাকলে ২০৩০ সালে দেশীয় উৎপাদন হবে ১৬ দশমিক ৫ শতাংশ এবং আমদানিখাত থেকে আসবে ৮৩ শতাংশ। সেক্ষেত্রে শিল্পখাতসহ সকল খাতে ব্যয় বাড়বে। এমন বাস্তবতায় অনুসন্ধান কার্যক্রম বাড়ানোর কোনো বিকল্প নেই বলে তিনি মত প্রকাশ করেন এবং এক্ষেত্রে সরকারের সঙ্গে বেসরকারি খাতকে এগিয়ে আসতে হবে। এছাড়াও অনুসন্ধানের জন্য দীর্ঘময়োদি পরিকল্পনা গ্রহণ অত্যন্ত আবশ্যক এবং এ কাজে একটা মানসম্মত ডাটা সেন্টার উন্মুক্ত করা খুবই জরুরি বলে মত  দেন। মকবুল এলাহী বলেন, গ্যাস ব্যবহারে মিটার ব্যবস্থা নিশ্চিত করা গেলে, সিস্টেম লস ও চুরি কামানো যেত। যার মাধ্যমে আরও ১০-১২ লাখ মিটার গ্যাস কাজে লাগানো যাবে। সেই সঙ্গে দুর্ঘটনা রোধ করা সম্ভব হবে।
পেট্রোবাংলার গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেডের সাবেক পরিচালক (অপারেশন) ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার সালেক সুফী ওয়েবিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের শিল্পখাতের ভবিষ্যৎ জ্বালানি হলো এলপিজি ও এলএনজি। শিল্পখাতে প্রাথমিক জ্বালানি সরবরাহ নিশ্চিতকল্পে আমাদের প্রাকৃতিক গ্যাস ব্যবহারের যৌক্তিক পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হবে। গ্যাস অনুসন্ধানে বর্তমানে বাংলাদেশের গৃহীত পদক্ষেপসমূহ যুগোপযোগী নয় এবং অনুসন্ধানের ক্ষেত্রে সারা পৃথিবীতে বাংলাদেশ ৩০তম স্থানে রয়েছে। সহনশীল দামে এলপিজি এবং এলএনজি সরবরাহের লক্ষ্যে অবকাঠামো উন্নয়নের ওপর তিনি জোর দেন।

আপনার মতামত দিন

শেষের পাতা অন্যান্য খবর

প্রত্যাখ্যান এমপি পক্ষের

পাকুন্দিয়া আওয়ামী লীগে সোহ্‌রাবেই আস্থা জেলা নেতৃত্বের

২৯ জুলাই ২০২১

মাহফুজ আনাম বিস্মিত

২৯ জুলাই ২০২১

সম্পাদক পরিষদ থেকে পদত্যাগ করেছেন বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম। তার পদত্যাগের বিষয়ে বাংলাদেশ প্রতিদিন ...

লকডাউনের এক সপ্তাহ

সড়কে বেড়েছে মানুষ ও যানবাহন

২৯ জুলাই ২০২১

রাজধানীতে একদিনে দেড়শ’ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি

২৯ জুলাই ২০২১

করোনার এই ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্যেই ডেঙ্গু জ্বরে আতঙ্ক বাড়ছে। দেশে প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে ডেঙ্গু ...

একনেকে আড়াই হাজার কোটি টাকার ১০ প্রকল্প অনুমোদন

২৯ জুলাই ২০২১

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) ২ হাজার ৫৭৫ কোটি ৪২ লাখ টাকা ব্যয়ে ১০টি ...

ভুটানে টিকার আওতায় ৯০ ভাগ মানুষ

২৯ জুলাই ২০২১

ইউনিসেফ বলেছে, উপযুক্ত বয়সী নাগরিকদের মধ্যে শতকরা ৯০ ভাগকেই করোনাভাইরাসের পূর্ণাঙ্গ টিকা দিয়েছে ভুটান। এই ...



শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত



লকডাউনের এক সপ্তাহ

সড়কে বেড়েছে মানুষ ও যানবাহন

DMCA.com Protection Status