সিলেট কারাগারে স্ত্রী হন্তারকের ফাঁসি কার্যকর

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট থেকে

অনলাইন (১ মাস আগে) জুন ১৮, ২০২১, শুক্রবার, ৯:২১ পূর্বাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ৫:৫৭ অপরাহ্ন

স্ত্রী হত্যার দায়ে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে সিরাজুল ইসলাম সিরাজের ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে।  তিনি হবিগঞ্জের রাজনগর এলাকার মৃত আবুল হোসেনের  ছেলে। সিলেটের নতুন কেন্দ্রীয় কারাগারে রাতে ফাঁসি কার্যকর করা হয়। পরে পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিলেটের সিনিয়র জেল সুপার মোহাম্মদ মঞ্জুর হোসেন।
তিনি জানান, ২০০৪ সালে তার স্ত্রী শাহিদা আক্তারকে শাবল ও ছুরি দিয়ে আঘাত করে হত্যা করেন সিরাজ। এরপর ২০০৭ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি সিলেট জেলা ও দায়রা জজ আদালতের দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক তার ফাঁসি ও ১০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দেন। এই রায়ের বিরুদ্ধে সিরাজ হাইকোর্টে জেল আপিল করেন। পরে ডেথ রেফারেন্সের আলোকে ২০১২ সালের ১ আগস্ট হাইকোর্ট সিরাজের জেল আপিল নিষ্পত্তি করে সিলেটের আদালতের রায়ই বহাল রাখেন। এই রায়ের বিরুদ্ধে সিরাজ সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগেও জেল পিটিশন দাখিল করেন। শুনানি শেষে আপিল বিভাগ ২০২০ সালের ১৪ অক্টোবর রায়ে সিরাজের আপিল বাতিল করে ডেথ রেফারেন্সের সিদ্ধান্তই বহাল রাখেন।
এরপর সিরাজ প্রাণভিক্ষা চেয়ে আবেদন করলে এ বছরের ২৫ মে রাষ্ট্রপতি তা না মঞ্জুর করেন।
ফাঁসি কার্যকর করার আগে সিরাজের ইচ্ছে অনুযায়ী তার পরিবারের সাথে দেখা করার ব্যবস্থা করে দেয় কারা কর্তৃপক্ষ। ফাঁসির মঞ্চে ওঠার আগে সিরাজ খুব শান্ত ছিলেন। কারা রীতি অনুযায়ী ফাঁসির মঞ্চে তোলার আগে সিরাজকে গোসল করানো হয়। এরপর বৃহস্পতিবার রাত ১০টা ১৫ মিনিটে তওবা পড়ানো হয়।
সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মঞ্জুর আলম জানান, স্ত্রীকে হত্যার দায়ে সিরজুল ইসলাম সিরাজের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন আদালত। প্রাণভিক্ষা চেয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে আবেদন করলে তার আবেদন মঞ্জুর হয়নি। বৃহস্পতিবার রাত ১১টায় সিরাজের ফাঁসি কার্যকর হয়।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

BHUIYAN

২০২১-০৬-১৯ ২১:৩১:১৭

সিলেট কারাগারে স্ত্রী হত্যাকারির ফাঁসি কার্যকর হওয়ায় খুশি হয়েছি, তবে রাষ্ট্রপতির নিকট প্রান ভিক্ষার আবেদন করার নিয়মটা বাদ দেওয়া দরকার-কারণ ১ কোন ব্যাক্তি কখনো কারো প্রান ভিক্ষা দিতে পারেনা, প্রান দেওয়ার মালিক যেমন আল্লাহ ঠিক প্রান নেওয়ার মালিকও আল্লাহ, এইটা একটা শির্ক কর্মকান্ড ছাড়া আর কিছুই নয়, তাছাড়া রাষ্ট্রপতির প্রান ভিক্ষার সুযোগে রাষ্ট্রপতির নিজ দলিয় সন্ত্রাসী ও খুনিরা ক্ষমা পেয়ে যায় ।

ওবাইদুল

২০২১-০৬-১৮ ১৬:৩৬:১০

ধর্ষক, হত্যাকারী বা মাদক ব্যাবসায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া ও এর শাস্তি বাস্তবায়নের সংবাদ ফলাও করে প্রচার করলে জনমনে শঙ্কা কমবে। মানবজমিন ভাল কাজ করেছে এবং আশা করি তাঁরা এ বিষয়ে অগ্রগামি থাকবে।

হাবিব

২০২১-০৬-১৮ ১২:৪৭:৪৯

আমাদের টিভিগুলিতে এত এত টকশো হয় অথচ আমাদের মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে তেমন কোন অনুষ্ঠান হয়না। আমাদের টিভি গুলির উচিত প্রচুর পারিবারিক, সামাজিক ও মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে অনুষ্ঠান প্রচার করা তাতে একটু হলেও পারিবারিক প্রতিহিংসা কমবে।

শহীদ

২০২১-০৬-১৮ ১১:০১:১০

2004 সালের খুনিকে 2021 সালে মৃত্যুদন্ড কার্যকর! এতদিন আমাদের বিচারক মহোদয়গণ কী করেছেন? রায় কার্যকর করতে এত দেরী হয় কেন তার জবাব নেয়া প্রয়োজন।

Kazi

২০২১-০৬-১৭ ২০:৩৯:৩৬

যেমন কর্ম তেমন ফল ।। তারপরও খুন করতে মানুষ কেন একবার ভাবে না ? অহরহ খুন চলছে । কিছু আগে তিন জনকে গলা কেটে হত্যা হৃদয় বিদারক ।

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status