ভিসি কলিমউল্লাহ’র বিদায়, বেরোবিতে আতশবাজি-মিষ্টি বিতরণ

বেরোবি প্রতিনিধি

শিক্ষাঙ্গন (১ মাস আগে) জুন ১৪, ২০২১, সোমবার, ৯:৩৭ পূর্বাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ৫:০৭ অপরাহ্ন

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) সদ্য সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ’র শেষ কর্মদিবস ছিল রোববার। এদিনই ক্যাম্পাসে অনুপস্থিত ছিলেন তিনি। দ্বিতীয় মেয়াদ বর্ধিত না হওয়ায় বিদায় নিয়েছেন তিনি। এ উপলক্ষে রোববার রাত ৮টায় পুরো ক্যাম্পাসে মিষ্টি বিতরণ, আতশবাজিসহ আগরবাতি প্রজ্জ্বলন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

জানা যায়, ড. কলিমউল্লাহকে বেরোবির ভিসি হিসেবে নিয়োগ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি হয় ২০১৭ সালের ১লা জুন। সে হিসেবে চলতি বছরের ৩১শে মে তার ৪ বছর মেয়াদ শেষ হয়। কিন্তু তিনি ২০১৭ সালের ১৪ই জুন ক্যাম্পাসে যোগদান করায় ২০২১ সালের ১৩ই জুন ক্যাম্পাস থেকে বিদায় নেন। রোববার বিশ্ববিদ্যালয় জনসংযোগ দপ্তর থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে তার বিদায় গ্রহণের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

এদিকে তার বিদায় গ্রহণের খবরে আনন্দ-উল্লাস প্রকাশ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। কলিমউল্লাহ’র বিদায় উপলক্ষে ক্যাম্পাসের জিরো পয়েন্টে তার কুশপুত্তলিকা উল্টো করে ঝুলিয়ে রাখা, সেন্ট্রাল মাঠে আতশবাজি, শেখ রাসেল মিডিয়া চত্বরে আগরবাতি প্রজ্জ্বলনসহ পুরো ক্যাম্পাসে পরস্পরের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।
সবশেষে স্বাধীনতা স্মারক প্রাঙ্গণে কলিমউল্লাহ’র বিদায়ে গণক্রন্দন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে রোববার সন্ধ্যায় ভিসি হিসেবে চার বছর দায়িত্ব পালনকালে সহযোগিতার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সকলকে ধন্যবাদ জানান সদ্য সাবেক ভিসি অধ্যাপক ডক্টর নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন গণমাধ্যমের কর্মীসহ সুধীজন ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

প্রসঙ্গত, মেয়াদের ৪ বছর দায়িত্ব পালনকালে কর্মচারী দিয়ে পরীক্ষা নেয়া, একটি ক্লাস নিয়েই কোর্স শেষ করা, রাত ৩টায় ক্লাস নেয়া, শিক্ষক ও জনবল নিয়োগে অনিয়ম, তার আমলে বিভিন্ন বিভাগে সেশনজট বৃদ্ধি, ভর্তি পরীক্ষার জালিয়াতি ধামাচাপা দেয়াসহ অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে মেয়াদের পুরো সময় সমালোচিত ছিলেন বিদায়ী ভিসি নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Zahir uddin

২০২১-০৬-১৩ ২১:২৪:১৯

আমরা যখন স্কুল কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলাম তখন স্যারদের বদলি অথবা অবসরে যাওয়ার সময় নানান ধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হতো এবং বিদায়ী স্যারকে সাধ্যমত সম্মানিত করার চেষ্টা করা হতো বর্তমানে এসব কি দেখছি? শিক্ষা মন্ত্রী সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এর জবাব দিবেন কি? শুনেছি অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় গুলিতেও একই পরিস্থিতি তাহলে কি আমরা ধরে নেব আমাদের বর্তমান শিক্ষাব্যবস্থা সম্পূর্ণভাবে ভেঙে পড়ছে। কোথায় আমাদের দেশের গুণীজনেরা আর কতটুকু অধঃপতন হলে আপনাদের ঘুম ভাঙবে?

Saber Ahmed

২০২১-০৬-১৩ ২০:৪৭:৩২

ইনারা সবকিছুর উর্ধ্বে!!!

আপনার মতামত দিন

শিক্ষাঙ্গন অন্যান্য খবর

পরীক্ষা নিতে না পারলে অ্যাসাইনমেন্ট ও সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ে মূল্যায়ন

পরিস্থিতির উন্নতি হলে নভেম্বরে এসএসসি, ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা

১৫ জুলাই ২০২১



শিক্ষাঙ্গন সর্বাধিক পঠিত



পরীক্ষা নিতে না পারলে অ্যাসাইনমেন্ট ও সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ে মূল্যায়ন

পরিস্থিতির উন্নতি হলে নভেম্বরে এসএসসি, ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা

DMCA.com Protection Status