শেষ সময়েও বিতর্কিত কর্মকাণ্ড কলিমউল্লাহর, রাত ৩টায় নিলেন ক্লাস

ইভান চৌধুরী, বেরোবি থেকে

অনলাইন (১ সপ্তাহ আগে) জুন ১০, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১২:৪৭ অপরাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ৯:২৯ পূর্বাহ্ন

মেয়াদের শেষ সময়ে রাত ৩টায় ক্লাস নিয়ে ফের বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) ভিসি অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ। বৃহস্পতিবার (১০ জুন ২০২১ইং) রাত ৩টা ২০মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয়ের জেন্টার এন্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের ২০১৯-২০ইং শিক্ষাবর্ষের প্রথম বর্ষ দ্বিতীয় সেমিস্টারের ‘পলিটিক্যাল থট’ কোর্সের ক্লাস নেন তিনি। এনিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতরে এবং বাইরে চলছে সমালোচনার ঝড়।

জানা যায়, বুধবার রাত সাড়ে ৮টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের জেন্ডার এন্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের ২০১৯-২০ইং শিক্ষাবর্ষের প্রথম বর্ষ দ্বিতীয় সেমিস্টারের ‘পলিটিক্যাল থট’  (কোর্স কোড- ১২০২) কোর্সের ক্লাস রাত ৩টায় নেয়ার কথা জানায় ভিসি কলিমউল্লাহ। এরপর অনলাইন প্লাটফর্ম গুগল মিট-এ রাত ৩টা ২০মিনিটে ক্লাস শুরু হয়। প্রায় ৩৫মিনিট চলা ক্লাসের শুরুতে প্রায় ২৮ জনের মতো যুক্ত থাকতে পারলেও শেষ পর্যন্ত যুক্ত থাকার সংখ্যা দাড়ায় প্রায় ১২ জনের মতো। রাত প্রায় ৩টা ৫৫ মিনিটে ক্লাস শেষ করেন তিনি।

এদিকে রাত প্রায় সাড়ে তিনটায় ক্লাস নেয়ার ঘটনায় ক্যাম্পাস এবং ক্যাম্পাসের বাইরে চলছে ব্যাপক সমালোচনা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেকেই। শুধু তাই নয়, এর আগেও মধ্য রাতে ক্লাস নিয়ে সমালোচনায় এসেছিলেন ভিসি কলিমউল্লাহ।
পরে তীব্র সমালোচনার মুখে রাতে ক্লাস নেয়া বন্ধ করেন তিনি।

অভিযোগ রয়েছে, বিশ্ববদ্যিালয়ের বিভিন্ন বিভাগের প্রায় অর্ধশতাধিক কোর্সের ক্লাস নিয়েছেন তিনি। এসব কোর্সের সর্বোচ্চ এক থেকে দুইটি নামে মাত্র ক্লাস নেন তিনি। আর পরীক্ষার খাতা কর্মচারী দিয়ে মূল্যায়ন ও পরীক্ষায় অনুপস্থিত শিক্ষার্থীকেও মার্কস দেয়ার অভিযোগ রয়েছে কলিমউল্লাহর বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয়, এসব কোর্স বাবদ মোট অংকের পারিতোষিকও নেয়ার অভিযোগ রয়েছে।

অধিকার সুরক্ষা পরিষদের আহবায়ক ও ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. মতিউর রহমান বলেন, এটি কোন সুস্থ মানুষের কাজ হতে পারে না। তার আসলে মানসিক চিকিৎসা প্রয়োজন। তার যারা কাছের লোকজন রয়েছে তাদের উচিৎ তার (ভিসি) মানসিক চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করা।
এ ব্যাপারে জানতে অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেনি।

প্রসঙ্গত, রাষ্ট্রপতির নিয়োগাদেশ অনুযায়ী ভিসি অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর চার বছর মেয়াদ পূর্ণ হয় গত ৩১শে মে। তবে, ড. কলিমউল্লাহর দাবি, তিনি যোগদান করেছেন ১৪ জনু ২০১৭ ইং তারিখে এবং মেয়াদ শেষ হবে ১৩ জুন ২০২১ইং তারিখে। মেয়াদ শেষ নিয়ে ধোঁয়াশা না কাটতেই গতকাল বুধবার (৯ জুন ২০২১) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মাহমুদুল আলম স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) ট্রেজারার ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের অধ্যাপক ড. হাসিবুর রশিদকে বিশ্ববিদ্যালয়টির ৫ম ভিসি হিসেবে নিয়োগ প্রদান করা হয়। যা ১৪ই জুন ২০২১ই তারিখ হতে কার্যকর হবে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

shamsuirrahman

২০২১-০৬-১১ ১০:৪৯:৩৫

এই লোকটা এখনও বাতিল হয় নাই।

Shamsun Naher

২০২১-০৬-১১ ০৬:২৪:২৯

অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ একজন মানসিক রোগী উনার চিকিৎসা না করলে হয়তো উনি আরো অনেক বিতরকের সৃষ্টি করবেন । তাই তাকে দ্রুত চিকিৎসা করা প্রয়োজন । এমন একজন মানসিক রোগী কিভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হতে পারে সেটা ভেবে অবাক হচ্ছি । পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এখন দুর্নীতিবাজ মানসিক রোগী তেলবাজ এই জাতীয় লোকেরাই উপচার্য হিসাবে নিয়োগ পাচ্ছেন । ভবিষ্যৎ প্রজন্ম এমন শিক্ষকদের কাছ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে জাতিকে কী উপহার দিবে সেটাই এখন একমাত্র চিন্তার বিষয়। আমাদের সন্তানেরা মানুষ হচ্ছে নাকি এদের মতো চরিত্রের অধিকারী হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বেরিয়ে আসছে।

Noor fidu

২০২১-০৬-১০ ১১:৩৪:১৬

ওনার ঘুম আসছিল না, তাই উনিও ভেবেছিল ছাত্র ছাত্রীরা এখনো ঘুমাই নি।

Noor fidu

২০২১-০৬-১০ ১১:২৯:৪০

ছাত্র ছাত্রীরা যেন ওনাকে সারাজীবন মনে রাখে, তাই উনি ইচ্ছাকৃত ভাবে এমন কাজ করেছেন।

মাসুদুল হক

২০২১-০৬-১০ ০৬:১৯:০৪

এই লোকটা এত এত সমালোচনার জন্ম দিয়ে সে (তাকে তিনি বলা থেকে বিরত থাকলাম বলে দুঃখিত) কিভাবে তার পরিবারের সদস্যদের কাছে মুখ দেখায়????!!!!!!!????!!!!

Focus Bangladesh

২০২১-০৬-১০ ০৪:৫৩:০৭

নিদ্রাহীনতায় ভুগছেন। Brain deffect.need psychlgist

শামসুর রহমান

২০২১-০৬-১০ ০৩:৩৮:২৩

উনার কাছ থেকে আমরা কি শিখলাম কিংবা উনি আমাদের কি শিখিয়ে গেলেন।

Md.Shamsul Alam

২০২১-০৬-১০ ১৫:২৬:৩৯

ভাবখানা এইরকম আমি চুরি করছি তো কি হইছে আমাকে তো সবাই জুতা দিয়া পিটায় নাই। We should hate such people with their supporter .

MD. Khalilur Rahman

২০২১-০৬-১০ ০১:৪৩:৪৪

Eder Jonno e DU er durnam hosse .Eder atok kore dhruto ainer aotai nia asa ucit.

অনামিকা

২০২১-০৬-১০ ০১:০৫:২৯

ভিসি কলিমুললাহ একবার দাবি করছিলেন তিনি দিনে বাইশ ঘন্টা কাজ করেন, এটা প্রমাণ করার চেষ্টায় রাত বিরেতে class নিচ্ছেন বোধহয় ।

আব্দুল্লাহ

২০২১-০৬-১০ ০১:০৪:৩৮

এই লোকই যখন টকশোতে বড় বড় কথা বলেন তখন লজ্জায় মুখ লুকোয় পুরো বাংলাদেশ।

Md.Faruk Hossain

২০২১-০৬-১০ ১৩:৪৭:২৯

Mr.Kalimullah sir is not my dept. teacher but i knew as a good teacher before joined the VC, After joined as a VC he started his original character and engaged with corruption, Really i am very sorry as a student of DU. So now appointed as a VC my management dept. sir Prof.Dr.Hasibur Rashid, he is really honest and most respected teacher of DU, So i think government decided good decision. May Allah bless him.

nasir uddin

২০২১-০৬-১০ ১৩:৪৬:২৯

This man lacks sanity.

Siddq

২০২১-০৬-১০ ০০:৩৮:১৭

কিছু কিছু মানুষ লজ্জা বলতে যে কিছু আছে এটা জানেনা । ভাবখানা এইরকম আমি চুরি করছি তো কি হইছে আমাকে তো সবাই জুতা দিয়া পিটায় নাই।

Md. Harun al-Rashid

২০২১-০৬-১০ ১৩:৩১:২৩

কি আর করবেন, দুশ্চিন্তায় ঘুম নাই তাই ছাত্রদের সাথে রাত জাগার ব্যবস্থা করলেন।

জাফর আহমেদ

২০২১-০৬-১০ ০০:০৩:০৪

অযগ্য উগ্ৰদলীয় কেডার দের নিয়োগ দিয়েছে, তাদের প্রদান উদ্দেশ্য চুরি ড়াকাতি, এরা কি শিক্ষক , এরা সবাই ছিল লূটের টাকায় রাজকীয় হালে , তাই শেষের সময় মাথায় কাজ করছে না,

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status