নতুন দরিদ্রের হিসাব স্বীকার করেন না অর্থমন্ত্রী

অর্থনৈতিক রিপোর্টার

শেষের পাতা ১০ জুন ২০২১, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:০৪ পূর্বাহ্ন

আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে কোনো দুর্বলতা নেই বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, প্রথমে আমাকে বলতে হবে কোন্‌ কোন্‌ জায়গায় আপনারা ব্যত্যয় দেখেছেন। পুরো তালিকা আমাকে দিতে হবে। সেগুলো দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব। বুধবার অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে ভার্চ্যুয়ালি অর্থনৈতিক বিষয়ক সংক্রান্ত ও সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

এবারের বাজেটে দুর্বলতা কী ছিল এমন প্রশ্নে অর্থমন্ত্রী বলেন, বাজেটে কোনো দুর্বলতা নেই। আমি কোনো পার্টিকুলার সেগমেন্ট উল্লেখ করতে চাই না।
বাজেটটি যখন বাস্তবায়ন শুরু হবে তখন আমরা দেখবো কারা বেনিফিশিয়ারি। উপকারভোগী কারা আমরা সেটি জানতে পারবো। যাদেরকে নিয়ে আপনাদের প্রশ্ন তাদেরকে কাভার করার জন্যই আমরা এবারের বাজেট সাজিয়েছি। তিনি বলেন, আমরা বিশ্বাস করি এবং প্রধানমন্ত্রীও আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন। সেটি হচ্ছে নিম্ন আয়ের মানুষদের যদি আমরা আইডেন্টিফাই করতে পারি এবং অর্থনীতির মূলধারায় নিয়ে আসতে পারি, তাহলে আগামীতে আমাদের অর্থনীতি আরও সমৃদ্ধ হবে। এই নীতিতে আমরা বিশ্বাস করি এবং সেভাবে কাজ করে যাচ্ছি।
আড়াই কোটির মতো নতুন দরিদ্র হয়েছে বলে বেসরকারি সংস্থার প্রতিবেদনের বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, নতুন দরিদ্রের এই হিসাব আমি স্বীকার করি না। যাদের কাছে তালিকা আছে ২ কোটি বা ১ কোটি বা ১০ জন, এই তথ্য তারা কোথায় পেয়েছে, আগে তা জানা দরকার। অর্থমন্ত্রী বলেন, গবেষণা করার জন্য বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস), বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস) আছে। এসব প্রতিষ্ঠান থেকে যতদিন তথ্য পাওয়া না যাবে, ততদিন অন্য প্রতিষ্ঠানের তথ্য গ্রহণ করার সুযোগ নেই।

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, আগামী অর্থবছরে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির হার নিয়ে বিশ্বব্যাংক যে ৫.১ শতাংশ প্রাক্কলন করেছে, তার চেয়ে অনেক বেশি অর্জিত হবে। আগামী অর্থবছরের জন্য সরকারের লক্ষ্যমাত্রা ৭.২ শতাংশ। অর্থমন্ত্রী বলেন, অর্থনীতির যে সামপ্রতিক গতিধারা, তাতে এই অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধির ক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর উপরে থাকবে বাংলাদেশ।

অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, পার্বত্য অঞ্চল বান্দরবান, খাগড়াছড়ি ও রাঙ্গামাটিতে অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবল সংযোগ স্থাপন করতে হবে। আমাদের কানেকটিভিটি বাড়াতে হবে। সেই কাজটি করার জন্যই আমাদের ক্যাবল স্থাপন করতে হবে। সেই কাজটি করার অনুমোদন আমরা দিয়েছি, তারা কাজটি করতে পারবে। তথ্য যোগাযোগ ও প্রযুক্তি বিভাগ কাজটি করবে। অপটিক্যাল ফাইবার নেটওয়ার্ক স্থাপনের কাজটি দেয়া হয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে। প্রকল্পের অধীন পার্বত্য অঞ্চলের তিনটি জেলায় মোট ৫৯টি ইউনিয়নে অপটিক্যাল ফাইবার নেটওয়ার্ক স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।
এদিকে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ২০তম বৈঠকে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের ১১টি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আরেফিন জানান, অনুমোদিত ১১টি প্রস্তাবে মোট অর্থের পরিমাণ ২ হাজার ৫৭৯ কোটি ৩০ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকার ৮৯০ কোটি ৬২ লাখ টাকা এবং এডিবি, এএফডি ও ইআইবি থেকে ঋণ হিসেবে পাওয়া এক হাজার ৬৮৮ কোটি ৬৮ লাখ টাকা খরচ করা হবে।

আপনার মতামত দিন

শেষের পাতা অন্যান্য খবর

‘বিএনপি ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে দেশের অগ্রযাত্রাকে থামিয়ে দিতে চায়’

২০ জুন ২০২১

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ১২ বছর আগের পিছিয়ে পড়া বাংলাদেশ আজ প্রধানমন্ত্রী ...

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে না দিলে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি

২০ জুন ২০২১

দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আগামী ৩০শে জুনের মধ্যে খুলে দেয়ার আলটিমেটাম দিয়েছে শিক্ষক-কর্মচারী-অভিভাবক ফোরাম নামে একটি ...

তবুও প্রেম জমলো না

২০ জুন ২০২১

প্রেম নিয়ে নতুন এক পরীক্ষা করেছেন ইউক্রেনের খারকিভের এক যুবক আর যুবতী। তারা হলেন আলেকজান্দর ...



শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত



প্রার্থীরা মুখোমুখি

সিলেটে ভোটের আগেই উত্তাপ

আরও ৫৪ জনের মৃত্যু

শনাক্তের হার বাড়ছে

DMCA.com Protection Status