হায় ভারত! পরপর কন্যাসন্তান জন্মানোয় মা, মেয়েদের কুয়োয় ঠেলে ফেলে দিল বীরপুঙ্গব

বিশেষ সংবাদদাতা

ভারত (১ মাস আগে) জুন ৭, ২০২১, সোমবার, ১১:৫৫ পূর্বাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ৭:৫২ অপরাহ্ন

কন্যাসন্তানকে কেউ লক্ষীলাভ ভাবে, কেউ ভাবে অভিশাপ। এই ইন্টারনেট এর যুগেও মেয়ের বাবা হওয়ার ঘেন্নায় মধ্যপ্রদেশের এক বাবা নিজের স্ত্রী ও দুই মেয়েকে ঠেলে কুয়োয় ফেলে দেয়। কোনওরকমে বেঁচে গেছে স্ত্রী ও তিনমাসের শিশুকন্যাটি। আট বছরের মেয়েটি কুয়োর জলে চিরতরে তলিয়ে গেছে। পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে রাজা ভাই যাদব নামের ৪২ বছরের অভিযুক্তকে। মধ্যপ্রদেশের ছত্তরপুরের বাসিন্দা রাজাভাই এর ৮ বছরের একটি কন্যা সন্তান ছিল। স্ত্রী আবার সন্তানসম্ভবা হওয়ায় স্ত্রীকে বাপের বাড়ি পাঠিয়ে পুত্রেষ্টি যজ্ঞ করে রাজাবাবু। তার আশা ছিল যে স্ত্রী এবার পুত্রসন্তান প্রসব করবে।
কিন্তু রাজাবাবুর ইচ্ছার মুখে ছাই দিয়ে পান্নায় বাপের বাড়িতে স্ত্রী আবার একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেয়। এরপর ছোট মেয়ের ৩মাস বয়েস হতে বাইক নিয়ে রাজাবাবু হাজির হয় পান্নায়, বউ বাচ্চাকে বাড়ি নিয়ে যাওয়ার জন্যে। ফেরার পথে পারোই গ্রামে কুয়ো দেখানোর আছিলায় তিনজনকেই কুয়োয় ঠেলে ফেলে দেয় রাজাবাবু। স্ত্রী ৩মাসের বাচ্চাটিকে নিয়ে কুয়োর পার বেয়ে উঠে প্রাণে বাঁচলেও সলিল সমাধি হয় আট বছরের মেয়েটির। চান্দেলা থানার ইন্সপেক্টর রাজেন্দ্র কুমার জানান, স্ত্রীকে প্রাণে বাঁচতে দেখে রাজাবাবু পাথর ছুঁড়ে স্ত্রীকে আবার জলে ফেলে দেওয়ার চেষ্টা করেছিল।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

২০২১-০৬-১৬ ২৩:২২:৪৯

উপরে উপরে যত যুক্তি ঝাড়ুন বা বোঝানোর চেষ্টা করুন বাংলাদেশও সব পরিবার ছেলে সন্তানই আশা করে এবং ছেলের দোষ ত্রুটির ভ্রূক্ষেপ না করে দরদ ভরে ছেলের পক্ষ নিয়ে বলে থাকে যে সোনার আঙটি বাঁকাও ভালো । শিক্ষিত অশিক্ষিত নির্বিশেষে এটাই বাস্তবতা।

A.S.M Sayam

২০২১-০৬-১৪ ১৫:৫৯:৪৯

ইসলাম ধর্ম আসার পর সতীদাহ প্রথা বাদ দিয়েছে।ভগমানের আদেশ একজন মানুষ কিভাবে বাদ দেয়।সতীদহ আবার পুনরায় চালু হোক।

এ কে এম মহীউদ্দীন

২০২১-০৬-০৭ ১৭:১৪:৪৬

বাংলাদেশের অনেক বড়ো মাপের ও প্রভাবশালী মানুষদের আদর্শ তো হিন্দুত্ব। তাদের স্বপ্নও তো হিন্দু হয়ে যাওয়া। সবদিক দিয়ে এরা যেভাবে সফল হচ্ছে তাতে বাংলাদেশেও এমন জিনিষ চলে আসতে পারে।

মোঃ মনিরুজ্জামান

২০২১-০৬-০৭ ০৩:২১:৩৯

এদের শাস্তি হতে হবে অতিদ্রুত ও জনসম্মুখে। তবেই অন‍্যরা শিক্ষা পাবে

Md. Harun al-Rashid

২০২১-০৬-০৭ ১৫:৫৭:৫৪

রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতায় ধর্মান্ধতার পথে ধাবমান দেশে দু'চার জন আমর্ত্য সেন মহাশয়গন কি করবেন।

খোকন

২০২১-০৬-০৭ ০২:১৭:৩৯

অসভ্য সভ্যতার দিকে ক্রমাগত ঝুঁকিতে ভারত ! সেই দেবদেবীর কাদামাটির মূর্তিকে পুঁজা করে বা মাথা নত করে সেজদা দেওয়া, সেই প্রাচীনতম মুর্খতার জগৎকে আজও ভুলতে পারে নাই ? মানুষ নাকি শিক্ষা দীক্ষা করে সমাজকে সুন্দর পরিবেশ গড়ে তোলে কিন্তু না ? বিজেপি সরকার এসে ওদের মেরুদন্ডকে আরো আঘাত করিতেছে এবং সেটা আফ্রিকা মহাদেশকে ও হার মানাচ্ছে ? কোনো ধর্মে আছে, জীবকে হত্যা করা ? কিন্তু আজ সেই বিজেপি সরকার মাথায় সিধুর পরে অহরহ জীবকে হত্যা করছে, মনে হয় সেই বর্বতা যুগের সতীদাহ প্রথার দিকেই দ্রুত গতিতে অনুধাবিত হচ্ছে ? আর এ জন্য তরুণ সমাজকে সমস্ত কুসংস্কার থেকে বেরিয়ে আসতে হবে ? একটি মেয়ে হত্যা করা মানে একটি বোনকে হত্যা করা, একজন মাকে হত্যা করা, তার মানেই হলো পুরো মানব সমাজকে হত্যা করা ? আর এর বিরুদ্ধে পুরো মানব সমাজকে উঠে দাঁড়াতে হবে ? প্রতিবাদ করতে হবে, ধর্মের এ প্রাচীন অশিক্ষিত যুগের কুসংস্কার থেকে সরে এসে নুতন সংস্কার করে মানব সম্পদকে বাঁচাতে হবে !!

nasir uddin

২০২১-০৬-০৭ ১৫:১৪:৫৩

How could they accept Indira Gandhi or Jai Lalita or for that matter Momota?

Tofazzel Hossain

২০২১-০৬-০৭ ১৪:৫৫:১২

India, they kill female kids, how a lady be a angel of them? Most of angles of Hundus are lady

Shahab

২০২১-০৬-০৭ ০১:৩৯:১৮

That's are real India!!!!! Shameless....

Citizen

২০২১-০৬-০৭ ১৩:৪০:০২

"Hindus and Humans are different, generally". India is only country on earth having frequent religious riots, always led by Hindu leaders to slaughter the minorities. Indian Judiciary, Bureaucracy, Media, Security, intelligentsia are all followers of majoritarianism HINDUTVA policy guided by RSS.

আবুল কাসেম

২০২১-০৬-০৬ ২৩:২৭:১৭

আইয়্যামে জাহেলিয়াত বা অন্ধকার যুগে- যেটা ছিলো রাসূল মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মক্কা বিজয়ের পূর্বে, তখন মক্কার কাফের সম্প্রদায় কন্যা শিশু জন্ম নিলে তা নিজেদের জন্য অপমানকর মনে করতো। ফলে তারা কন্যা সন্তানকে জীবন্ত কবর দিতো। কখনো গভীর কূয়ার ভেতরে ফেলে দিয়ে হত্যা করতো। রাসূল স. মক্কা বিজয় করার পর এই লোমহর্ষক হত্যাকাণ্ড থেকে মানুষ বিরত থাকে। কারণ ইত্যবসরে তারা কুরআনের শিক্ষায় শিক্ষিত হয়েছে। কুরআন মজিদ থেকে জ্ঞান আহরণ করেছে। অসভ্য থেকে তারা সভ্য হয়েছে। বর্বর থেকে মনুষ্যত্ব ফিরে পেয়েছে। অমানুষ থেকে তারা মানুষ হয়েছে। অন্ধকার থেকে তারা আলোতে এসেছে। তারা হয়েছে আলোকিত মানুষ। কুরআন মানুষকে সভ্য করে, আলোকিত করে। কুরআনের শিক্ষা আজকের সমাজে নেই বলেই মানুষ দিনে দিনে বর্বর হয়ে যাচ্ছে, অমানুষ হয়ে যাচ্ছে। মানবিক বোধ, বিচার বুদ্ধি মানুষ হারিয়ে ফেলছে। কুরআন মজিদ বর্ণনা করা হয়েছে কন্যা সন্তান হত্যা করা মহাপাপ। যারা তাদের কন্যাদের হত্যা করবে তারা জাহান্নামি। রাসূল স. কন্যা সন্তানের বাবা মাকে জান্নাতের সুসংবাদ দিয়েছেন। বর্তমান কালে মানুষ কুরআনের শিক্ষা বর্জন করার ফলে সর্বক্ষেত্রে বর্বরতার সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছে। সকল প্রকার অমানবিক কর্মকাণ্ড থেকে মানুষকে বিরত থাকতে হলে অবশ্যই কুরআনের পথে ফিরে আসতে হবে। কুরআনের শিক্ষা- শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ও ঘরে ঘরে পৌঁছে দিতে হবে।

কাজি

২০২১-০৬-০৬ ২৩:২২:৫৬

ধর্মে গলদ । পুত্রেষ্টি যজ্ঞ যে ভণ্ডামি, কন্যা সন্তান জন্মের পরই তো বুঝা উচিত ছিল । যে ভণ্ড যজ্ঞ আয়োজন করেছিল তার কাছে কৈফিয়ত চাইতে পারত। ভণ্ডামিতে ভরপুর ইণ্ডিয়ান তান্ত্রিক ।

Borno bidyan

২০২১-০৬-০৬ ২৩:১৪:২৩

এমন জঘন্য কাজের মধ্য দিয়ে হয়তো আগামীতে সতীদাহ প্রথা প্রবর্তনসহ নানা ধর্মীয় গোড়ামি পুন:প্রবর্তন করে বিজেপি ভারতকে হিন্দু রাষ্ট্র গঠনে আরও একধাব এগিয়ে নিয়ে যাবে !

আপনার মতামত দিন

ভারত অন্যান্য খবর

হু-র চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট

ভারত থেকে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়েছে বিশ্বের ১২৪টি দেশে

৩০ জুলাই ২০২১



ভারত সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status